বিশ্বজুড়ে: ফিরে দেখা ২০১৩ সাল

December 31, 2013 0

শীর্ষবিন্দু নিউজ: উত্তপ্ত বিশ্ব রাজনীতি, মহান ব্যক্তিদের হারানো আর প্রকৃতির নির্মমতার মধ্য দিয়ে ঘটনাবহুল আরো একটি বছরের ক্রান্তি লগ্নে এসে পৌঁছেছে বিশ্ববাসী। তবে ২০১৩ সালের প্রাপ্তিও নেহাত কম ছিলো না। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি খাতেও বড় কিছু অর্জন দেখা গেছে এ বছর।

মিশরে সামরিক অভ্যুত্থান ও মুরসির পতন:

স্বৈরশাসক হোসনি মুবারকের পতনের পর মিশরের ইতিহাসে প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হন মুসলিম ব্রাদারহুডের নেতা মোহাম্মদ মুরসি। কিন্তু বছর না ঘুরতেই ব্যাপক গণআন্দোলনের মুখে চলতি বছরের ৩ জুলাই দেশটির সেনাবাহিনী তাকে ক্ষমতাচ্যুত করে। এরপর তাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয় এবং বিভিন্ন অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। মুরসির ক্ষমতাচ্যুতিতে দেশজুড়ে তার সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এতে হতাহত হয় অনেক মানুষ । ব্রাদারহুডের ঊর্ধ্বতন নেতাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি করা হয়।

মুরসির পতনের পর দেশটির সর্বোচ্চ সাংবিধানিক আদালতের প্রধান আদলি মনসুরকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট করা হয়। অগাস্টে মুরসি ও মুসলিম ব্রাদারহুডের সমর্থকদের দুইটি প্রতিবাদ ক্যাম্প রাব্বা আল-আদাউইয়া মসজিদ ও নাহদা স্কয়ারে সেনা অভিযানে বহু মানুষ প্রাণ হারায়। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয় অভিযানে ১৪৯ জন নিহত হয়েছেন। তবে ব্রাদারহুডের দাবি ওই অভিযানে তাদের দুই হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। এরপর দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। এ ঘটনার পর ভাইস-প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ বারাদেই অন্তর্বর্তীকালীন সরকার থেকে পদত্যাগ করেন। বর্তমানে মুরসিকে অজ্ঞাত স্থানে বন্দি করে রাখা হয়েছে। আর আগেই নিষিদ্ধ ঘোষণা করা মুসলিম ব্রাদারহুডকে ডিসেম্বরের শেষ দিকে ‘সন্ত্রাসী সংগঠন’ হিসেবে ঘোষণা করে দেশটির অন্তর্বর্তীকালীন সরকার।

 

সিরিয়া বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মুখোমুখি অবস্থান:

প্রায় তিন বছর ধরে সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলছে। এরমধ্যেই গত ২১ অগাস্ট রাজধানী দামেস্কের উপকণ্ঠে বিষাক্ত সারিন গ্যাস হামলায় প্রায় দেড় হাজার বেসামরিক মানুষ প্রাণ হারান বলে অভিযোগ ওঠে। জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদল সেখানে রাসায়নিক হামলা চালানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ ও বিরোধী দল এ হামলার জন্য পরষ্পরকে দায়ী করে। এ ঘটনায় বিশ্ব রাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্র এ হামলার জন্য বাশার বাহিনীকে দায়ী করে সিরিয়ায় সামরিক অভিযান চালানোর হুমকি দেয়। রাশিয়া বিরোধীদের দায়ী করে যুক্তরাষ্ট্রের অভিযান চালানোর সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নেয়।

অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ দেশগুলোর জোট জি-২০ এর শীর্ষ সম্মেলনে এ ব্যাপারে নেতারা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়ে। জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন সিরিয়ায় সামরিক অভিযানের বিরুদ্ধে কড়া হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। পর্যাপ্ত সমর্থন না পেয়ে যুক্তরাষ্ট্র শেষ পর্যন্ত তাদের অবস্থান থেকে সরে আসতে বাধ্য হয়। ২৭ সেপ্টেম্বর সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ধ্বংস করা নিয়ে বাধ্যতামূলক ও প্রয়োগযোগ্য একটি প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে পাস হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাশার তার বিশাল রাসায়নিক অস্ত্রভাণ্ডার যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দিতে রাজি হয়। অস্ত্রগুলো সফলভাবে নিষ্ক্রিয় করতে এরই মধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

 

বিশ্বনেতাদের ফোনে এনএসএ’র আড়িপাতার খবর ফাঁস:

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনএসএ) অন্ততপক্ষে ৩৫ জন বিশ্বনেতার ফোনে আড়ি পেতেছিল। যাদের মধ্যে জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলও রয়েছেন। আড়িপাতা হয়েছিল বিশ্বব্যাংক ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সদর দপ্তরেও। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা তথ্য ফাঁসকারী সিআইএ’র সাবেক কর্মী এডওয়ার্ড স্নোডেনের সরবরাহ করা তথ্যেরভিত্তিতে গার্ডিয়ান পত্রিকা ২৫ অক্টোবর এমন একটি খবর প্রকাশ করলে বিশ্ব জুড়ে হৈ চৈ পড়ে যায়। ফাটল ধরে দীর্ঘদিনের মিত্র যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির সম্পর্কে। ব্যাপক সমালোচনার মুখে শেষ পর্যন্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এনএসএ কে তাদের নজরদারি নিয়ন্ত্রণে রাখার নির্দেশ দেন। আর স্নোডেন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পালিয়ে হংকং হয়ে বর্তমানে রাশিয়ায় সাময়িক রাজনৈতিক আশ্রয়ে রয়েছেন।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আসন গ্রহণ করতে সৌদি আরবের অস্বীকৃতি:

জাতিসংঘ দ্বিমুখী নীতি অবলম্বন করছে এমন অভিযোগ তুলে ১৮ অক্টোবর সংস্থাটির নিরাপত্তা পরিষদে নিজ আসন গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায় সৌদি আরব। নিরাপত্তা পরিষদে ১০টি অস্থায়ী সদস্যপদ সাধারণ সদস্যদের মধ্য থেকে পালাক্রমে নির্বাচন করা হয়ে থাকে। ৬ ডিসেম্বর জর্ডান ওই আসনটি গ্রহণ করে।

 

পরমাণু কার্যক্রম সংযত করতে রাজি ইরান:

জুনে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর দেশের অর্থনীতিকে দীর্ঘদিনের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার বেড়াজাল থেকে বের করে আনার উদ্যোগ নেন হাসান রুহানি। তিনি পশ্চিমাবিশ্বের সঙ্গে আলোচনায় বসার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে নিয়মিত কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের নীতি গ্রহণ করেন। এর অংশ হিসেবে সেপ্টেম্বরে নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের সময় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে রুহানির ঐতিহাসিক টেলিফোন আলাপ হয়, যা ছিল তিনদশকেরও বেশি সময়ের মধ্যে দুই দেশের প্রেসিডেন্টের মধ্যে প্রথম আলাপ। মূলত পরমাণু কার্যক্রম নিয়ে আপত্তির কারনেই পশ্চিমা বিশ্ব, জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র তেল সমৃদ্ধ এই দেশটির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা থেকে বেরিয়ে আসার পথ সহজ করতে ইরান তাদের পরমাণু কার্যক্রম সংযত করতে রাজি হয়ে ২৪ নভেম্বর একটি চুক্তি সই করে। কিভাবে চুক্তি কার্যকর হবে সে ব্যাপারে জেনেভায় পশ্চিমা বিশ্বের কূটনীতিকদের সঙ্গে ইরানের কূটনীতিকদের কৌশলগত আলোচনা চলছে।

 

পোপ ষোড়শ বেনেডিক্টের পদত্যাগ, নতুন পোপ ফ্রান্সিস:

বয়সের ভারে ক্লান্ত, কাজের চাপ আর নিতে পারছেন না- এ কথা বলে ফেব্রুয়ারিতে হঠাৎ করেই পদত্যাগের ঘোষণা দেন পোপ ষোড়শ বেনেডিক্ট। ভ্যাটিকানে গত ৬শ’ বছরের মধ্যে এই প্রথম কোনো পোপ স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করলেন। ২৮ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে অবসরে যান তিনি। ২০০৫ সালের ২৪ এপ্রিল পোপ হিসেবে শপথ গ্রহণের পর থেকে বিতর্ক ছায়াসঙ্গী ছিল বেনেডিক্টের। তার শপথ গ্রহণের কিছুদিন পরই তার কয়েক জন যাজক এমনকি তার বিরুদ্ধেও শিশু নিগ্রহের অভিযোগ ওঠে। এই ঘটনায় সর্বোচ্চ ধর্মগুরু হিসেবে প্রকাশ্যে নিগৃহীত শিশু ও তাদের পরিবারের কাছে ক্ষমা চান তিনি। এছাড়া সমলিঙ্গে বিয়ে, মেয়েদের যাজক হওয়া ও স্টেম সেল (দেহের বিশেষ কোষ) নিয়ে গবেষণায় তার প্রকাশ্য আপত্তিও অনেক বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। মার্চে রোমান ক্যাথলিক চার্চের নতুন নেতা নির্বাচিত হন আর্জেন্টিনার জর্জ মারিও বেরগোগলিও। তিনি পোপ ফ্রান্সিস নাম গ্রহণ করেন। ভ্যাটিকানের প্রায় তেরশ’ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম ইউরোপের বাইরের কেউ ১২০ কোটি রোমান ক্যাথেলিকের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু নির্বাচিত হন। ফ্রান্সিস চার্চের ২৬৬তম পোপ হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। পোপ হওয়ার পরও নিজের সাধারণ জীবনাচরণ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তিনি। ১৯৩৬ সালের ১৭ ডিসেম্বর বুয়েন্স আয়ার্সে জন্মগ্রহণ করা পোপ ফ্রান্সিস দায়িত্ব নেয়ার নয় মাসের মাথায় টাইমস সাময়িকীর চোখে ২০১৩ সালের ‘পারসন অব দ্য ইয়ার’ নির্বাচিত হন। সাময়িকীতে পোপ ফ্রান্সিস সম্পর্কে বলা হয়- গত নয় মাসে দারিদ্র, বিচারকদের স্বচ্ছতা, নারীর ভূমিকা ও সমকামিতা নিয়ে বক্তব্য দিয়ে তিনি আলোচনায় ছিলেন।

রাশিয়ায় উল্কাপিন্ডের পতন:

রাশিয়ার মধ্যাঞ্চলীয় উরাল পর্বতমালায় ১৫ ফেব্রুয়ারি একটি উল্কাপিন্ডের পতনে ১৪৯১ জন আহত এবং প্রায় সাড়ে চার হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়। উল্কাপিন্ডটির বিস্ফোরণ ক্ষমতা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হিরোশিমায় নিক্ষিপ্ত আণবিক বোমার চেয়ে ৩০ গুণ বেশি ছিলো বলে জানিয়েছিলেন নাসার বিজ্ঞানীরা। গত এক শতাব্দীর মধ্যে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে প্রবেশ করা সবচেয়ে শক্তিশালী উল্কাপিন্ড ছিল এটি।

উত্তরাখন্ডে ভয়াবহ বন্যা:

জুনের মাঝামাঝিতে ভারতের উত্তরাখন্ড প্রদেশে আকস্মিক বন্যা ও ভূমিধসে কয়েক হাজার মানুষ প্রাণ হারায়।

মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে উত্তরাখন্ড ও হিমাচল প্রদেশে ভারী বর্ষণের ফলে এই বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। এসময় উত্তরাখন্ডের রুদ্রপ্রয়াগ জেলার জয়োতিরলিঙ্গা এলাকায় বিখ্যাত কেদারনাথ মন্দির ও এর আশেপাশের এলাকায় ভয়াবহ ভূমিধস হয়। সনাতন (হিন্দু) ধর্মালম্বীদের পবিত্র শহর কেদারনাথে এ সময় প্রচুর তীর্থযাত্রী অবস্থান করছিলেন। এই বন্যাকে সহস্রাব্দের ভয়াবহ মর্মান্তিক ঘটনা উল্লেখ করে উত্তরাখন্ডের কৃষিমন্ত্রী হারাক সিং রাওয়াট পিটিআইকে বলেন, “বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কেদারনাথ এলাকায় অবকাঠামোগত যে ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে অন্তত পাঁচ বছর সময় লাগবে।

 

টাইফুন হাউয়ানে উদ্ধার তৎপরতাটাইফুন হাইয়ানে লন্ডভন্ড ফিলিপাইন:

৮ নভেম্বর প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় হাইয়ানের আঘাতে ফিলিপাইনে প্রায় আড়াই হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। লেইতে প্রদেশে আঘাত হানার সময় ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্রে বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘন্টায় ৩৭৯ কিলোমিটার। এটি ছিল ২০১৩ সালে তো বটেই পরিসংখ্যান অনুযায়ী স্মরণকালের সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়। ঘূর্ণিঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে লেইতে প্রদেশের রাজধানী তাকলোবান। উপকূলীয় এই শহরটিতে যখন ঝড়টি আঘাত হানে তখন এর সাথে প্রায় ১০ ফুট উঁচু জলোচ্ছ্বাসও হয় আর তা শহরটিকে তলিয়ে দেয়। ঝড়-পূর্ব সতর্কতা এবং ঝড়ের পর ত্রাণ কার্যক্রম ও উদ্ধার তৎপরতায় ধীরগতির কারণে দেশটির প্রেসিডেন্ট একুইনোকে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। ঝড়ের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি, খাবার ও চিকিৎসার মারাত্মক অভাব দেখা দেয়। এ সময় কোথাও কোথাও দুর্গত জনগণ খাদ্য গুদামও লুট করে।

বোস্টন ম্যারাথনে বোমা হামলা:

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস রাজ্যের বোস্টনে ঐতিহ্যবাহী এবং বিশ্বের সবচেয়ে পুরাতন ম্যারাথনের ফিনিশিং লাইনের কাছে ১২ সেকেন্ডের ব্যবধানে দুইটি বোমা বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই ৩ জন নিহত হয়, যাদের মধ্যে আট বছরের একটি শিশুও রয়েছে। এ ঘটনায় প্রায় দেড় শতাধিক মানুষ আহত হয়। ১৫ এপ্রিলের ওই হামলা চালানোর জন্য পুলিশ চেচেন বংশোদ্ভূত দুই ভাই তামেরলান সারনায়েভ ও জোখার সারনায়েভকে দায়ী করে। হামলার পরের দিন পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে বড় ভাই তামেরলান নিহত হন। পুলিশের এক সদস্যও গোলাগুলিতে নিহত হন। আহত অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয় জোখারকে। জোখারের বিরুদ্ধে গণবিধ্বংসী অস্ত্রের ব্যবহার ও চার ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগসহ মোট ৩০টি অভিযোগ আনা হয়।

কেনিয়ার শপিং মলে আল-শাবাব বাহিনীর হামলা:

কেনিয়ার অভিজাত শপিংমল ওয়েস্টগেট শপিং সেন্টারে সোমালিয়ার ইসলামপন্থি জঙ্গি দল আল-শাবাব বাহিনীর হামলায় অন্ততপক্ষে ৬২ জন নিহত এবং ১৭০ জনেরও বেশি মানুষ আহত হন। সোমালিয়া থেকে কেনিয়ার সৈন্যদের প্রত্যাহার করার দাবিতে তারা ওই হামলা চালিয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানায় আল-শাবাব। ২১ সেপ্টেম্বরের ওই হামলায় কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট কেনিয়াত্তার ভাগনে ও তার বাগদত্তা নিহত হন। এছাড়া নিহত হয়েছেন ঘানার জনপ্রিয় কবি কফি আউনুর, একজন কানাডিয়ান কূটনীতিক, তিনজন ব্রিটিশ ও দুইজন ফরাসি নাগরিক। জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের একজন সাবেক কর্মকর্তাও এই হামলায় নিহত হন।

আলজেরিয়ায় গ্যাসফিল্ডে জঙ্গি হামলা:

জানুয়ারির মাঝামাঝিতে আলজেরিয়ার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত একটি গ্যাস ফিল্ডে ইসলামপন্থি জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে দুজনকে হত্যা করে এবং বিদেশি শ্রমিকসহ কয়েক ডজন শ্রমিককে জিম্মি করে নিয়ে যায়। জঙ্গিরা সরকারের কাছে জিম্মি করা ব্যক্তিদের সঙ্গে নিয়ে আলজেরিয়া ত্যাগের অনুমতি চেয়েছিল। কিন্তু সরকার সেই অনুমতি না দিয়ে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়। দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর চালানো ৮ ঘন্টাব্যাপী ওই অভিযানে ৩০ জন জিম্মি এবং অন্তত ১১ জন জঙ্গি নিহত হয়। নিহত জিম্মিদের মধ্যে দুই জন জাপানের, দুইজন ব্রিটিশ ও একজন ফ্রান্সের নাগরিকসহ অন্ততপক্ষে ৭ জন বিদেশি শ্রমিক ছিল। নিহত আটজন আলজেরিয়ার নাগরিক। নিহত বাকিদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে আমেরিকা, নরওয়ে, রুমানিয়া ও অস্ট্রেলিয়া তাদের নাগরিকদের ধরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি জানিয়েছিল। মুক্তি পাওয়া কয়েক ডজন শ্রমিকের পরিচয়ও নিশ্চিতভাবে জানাতে পারেনি নিরাপত্তা সূত্র। এদিকে নিহত ১১ জঙ্গির মধ্যে মাত্র দুই জন আলজেরিয়ার নাগরিক যাদের একজন দলটির নেতা বলে জানা গেছে।

 

ব্রিটিশ সিংহাসনের উত্তরাধিকারীর জন্ম:

২২ জুলাই পৃথিবীতে আসে ব্রিটিশ সিংহাসানের তৃতীয় উত্তরাধিকারী জর্জ আলেক্সান্ডার লুইস। সিংহাসনের দ্বিতীয় উত্তরাধিকারী প্রিন্স উইলিয়াম ও কেট মিডলটনের প্রথম সন্তান জর্জ আলেক্সান্ডার লুইসের জন্মে যুক্তরাজ্যে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়।

 

নেলসন ম্যান্ডেলার মৃত্যু:

এ বছরই পৃথিবী থেকে চির বিদায় নেন বর্ণবাদবিরোধী কিংবদন্তী নেতা দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট নেলসন ম্যান্ডেলা। ৫ ডিসেম্বর নিজ বাড়ি জোহানেসবার্গে মারা যান বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নিজের পুরো জীবন উৎসর্গ করা মহান এই নেতা। দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট ও বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের প্রবাদপুরুষ ম্যান্ডেলা ২৭ বছরের কারাজীবন থেকে বেরিয়ে বর্ণভেদে রক্তাক্ত দেশটিকে গণতন্ত্রের পথে চালিত করেন। মৃত্যুর দশদিন পর দক্ষিণ আফ্রিকার ইস্টার্ন কেপ প্রদেশের কুনু নামের যে গ্রামে ম্যান্ডেলার শৈশব কেটেছে, সেখানকার পারিবারিক কবরস্থানে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। হাজার চারেক লোক এই শেষকৃত্যে যোগ দিয়েছিলেন। ১৯১৮ সালের ১৮ জুলাই তেম্বু গোত্রে জন্মগ্র্রহণ করেন ম্যান্ডেলা। দেশের মানুষের কাছে যিনি ‘মাদিবা’ নামে বেশি পরিচিত।

অবৈধভাবে দেশের বাইরে যাওয়া এবং শ্রমিকদের ধর্মঘটে উস্কানি দেওয়ার অভিযোগে ১৯৬২ সালে এই মহান নেতাকে পাঁচ বছরের জন্য জেলে যেতে হয়। জেলে থাকতে থাকতেই, ১৯৬৪ সালে তাকে এএনসি (আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস) পার্টির মাধ্যমে জাতিবিদ্বেষের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

পরবর্তী ১৮ বছর তার কাটে দক্ষিণ আফ্রিকার পলসমোর জেলে। ১৯৮০ সালের পুরো সময়টা ম্যান্ডেলার মুক্তি এবং সরকারের শ্বেতাঙ্গপ্রীতির বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক চাপ বাড়তে থাকে। শেষমেশ ১৯৮৫ সালে দেশটির রাষ্ট্রপতি নেলসন ম্যান্ডেলার মুক্তির বিষয়টি মেনে নেন। বিনিময়ে বন্ধ করতে বলা হয় চলতে থাকা ‘বর্ণবিদ্রোহ’। প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দেন ম্যান্ডেলা। শেষ পর্যন্ত প্রবল চাপের মুখে ১৯৯০ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি তখনকার দক্ষিণ আফ্রিকা সরকার বিনাশর্তেই মুক্তি দিতে বাধ্য হয় নেলসন ম্যান্ডেলাকে। ১৯৯৪ সালের ২ মে ম্যান্ডেলা দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

 

উগো চাভেজের মৃত্যু:

৫ মার্চ রাজধানী কারাকাসের সামরিক হাসপাতালে মারা যান ভেনেজুয়েলার টানা চতুর্থবারের মতো নির্বাচিত সমাজতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট উগো চাভেজ। ১৯৯৯ সাল থেকে তিনি দেশটির প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

২০১১ সালে বিপ্লবী এই নেতার শরীরে প্রথমবারের মতো ক্যান্সার ধরা পড়ে। ২০১২ সালে বন্ধু রাষ্ট্র কিউবায় চিকিৎসা শেষে অক্টোবরে চতুর্থবারের মতো তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। কিন্তু ওই বছরের শেষ দিকে তার শরীরে আবারো ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়লে ডিসেম্বরে তার শরীরে আবারো অস্ত্রোপচার করা হয়। কিন্তু তার শরীরের তেমন কোনো উন্নতি হয় না। শেষ পর্যন্ত মাত্র ৫৮ বছর বয়সে পৃথিবী ছেড়ে যান নিজস্ব রীতির ‘সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব’ আরো বেগবান করা এই নেতা।

 

মান্না দের মৃত্যু:

২৪ অক্টোবর মারা যান উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী মান্না দে। বেঙ্গালুরুর একটি হাসপাতালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ৯৪ বছর বয়সী মান্না দে দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগ, শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ও মূত্রাশয়ের জটিলতায় ভুগছিলেন। সেপ্টেম্বর থেকে ঘন ঘন অসুস্থতার কারণে তাকে বেশ কয়েকবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ১৯১৯ সালের ১ মে কলকাতার বাঙালি পরিবারের জন্ম গ্রহণ করা মান্না দে ১৯৭১ সালে পদ্মশ্রী, ২০০৫ সালে পদ্মবিভূষণ ও ২০০৯ সালে দাদাসাহেব ফালকে পুরষ্কারে ভূষিত হন।

ডরিস লেসিং-এর মৃত্যু:

১৭ নভেম্বর নোবেলজয়ী প্রখ্যাত ব্রিটিশ সাহিত্যিক ডরিস লেসিং মারা যান। লন্ডনে নিজের বাড়িতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। লেসিং ২০০৭ সালে ৮৮ বছর বয়সে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার জয় করেন। সাহিত্যে তিনিই সবচেয়ে বেশি বয়সে নোবেল পুরস্কার পান।

বালিতে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সম্মেলন:

ডিসেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার মন্ত্রী পর্যায়ের নবম সম্মেলনে ১৫৯টি দেশ বাণিজ্য বাড়াতে একমত হয়েছে। এতে বিশ্ব বাণিজ্য প্রায় এক ট্রিলিয়ন ডলার বাড়তে পারে বলে ধারণা করছেন অর্থনীতিবিদরা। এই সমঝোতার ফলে বাণিজ্য সম্প্রসারণের সুবিধা যেমন বাড়বে, তেমনি স্বল্প উন্নত দেশগুলো তাদের পণ্য বিক্রির ক্ষেত্রেও সুবিধা পাবে।

ক্লোনিংয়ের মাধ্যমে আদি স্টেম সেল তৈরি:

ক্লোনিং পদ্ধতি ব্যবহার করে প্রাপ্তবয়স্ক টিস্যু থেকে আদি স্টেম সেল তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এর ফলে মানব শরীরের যে কোনো টিস্যু তৈরি করা সম্ভব হবে। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করেছেন বিজ্ঞানীরা। এতো দিন তাদের হতাশ হতে হলেও শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের একদল বিজ্ঞানী এর কৌশলগত সমস্যাগুলো কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছেন। গুরুত্বপূর্ণ এই আবিষ্কারের ফলে চিকিৎসা গবেষণায় ক্লোনিংয়ের ব্যবহার আরো বাড়বে।

 

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে শচীন টেন্ডুলকারের বিদায়:

১৪ নভেম্বর মুম্বাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নিজের ২০০তম টেস্ট ম্যাচ খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিদায় নেন ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার। এর আগে গত বছর ডিসেম্বরেই একদিনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছিলেন টেস্ট ও একদিনের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রানের মালিক এই কিংবদন্তী।

সাহিত্যে নোবেল জয়ী পেয়েছিলেন বুকারও

এ বছর সাহিত্যে  পেয়েছেন কানাডার ছোটগল্পকার এলিস মুনরো। প্রাঞ্জল গদ্যে মনস্তাত্ত্বিক জটিলতা ফুটিয়ে তোলায় মুনশিয়ানার জন্য যাকে বলা হয় ‘কানাডার চেকভ’। ৮২ বছর বয়সী মুনরোই বিশ্বের একমাত্র সাহিত্যিক যিনি বুকার পুরস্কারও পেয়েছিলেন। ২০০৯ সালে তিনি বুকার পুরস্কার পান। নোবেল পুরস্কারের ১১৩ বছরের ইতিহাসে এলিস মুনরো হলেন ত্রয়োদশ নারী, যিনি সাহিত্যে অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে এ পুরস্কার পেলেন।

কুতজ্ঞতা: রয়টার্স, বিবিসি, উইকিপিডিয়া, বিডিনিউজ২৪