l

রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০১:২২ অপরাহ্ন

অর্থমন্ত্রীর বন্ধুর মেয়ে তাই…

অর্থমন্ত্রীর বন্ধুর মেয়ে তাই…

এখানে শেয়ার বোতাম

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: নিয়ম বর্হিভূত আইন লঙ্ঘন করে মাত্র চার বছরের অভিজ্ঞতা নিয়েই দেশের শীর্ষস্থানীয় সাধারণ বিমা কোম্পানি গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হতে যাচ্ছেন ফারজানা চৌধুরী। সংশ্লিষ্টদের ধারণা এটা সম্ভব হয়েছে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের বাল্যবন্ধু প্রতিষ্ঠানটির সদ্য পদত্যাগী এমডি নাসির এ চৌধুরীর মেয়ে হওয়ার সুবাধে ফারজানা চৌধুরী হতে যাচ্ছেন এই গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিকারী।

বিমা পেশায় ফারজানার অভিজ্ঞতা রয়েছে মাত্র ‍চার বছরের। ফারজানা বিমা পেশায় যোগদান করেন ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে। এর আগে তিনি ২০০২ সাল থেকে ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারির আগ পর্যন্ত ব্র্যাক ব্যাংকে এসএমই ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সূত্রে মতে, প্রতিষ্ঠানটির এমডি নিয়োগে দীর্ঘ দিন ধরেই অনিয়ম করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটিতে অনুমোদন ছাড়াই পাঁচ বছর ধরে এমডির দায়িত্ব পালন করেন নাসির এ চৌধুরী। সম্প্রতি উচ্চ আদালত এমডি থাকতে নাসির এ চৌধুরীর করা রিট খারিজ করে দেওয়ায় তিনি এমডির পদ ছাড়তে বাধ্য হন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, গেজেট আকারে প্রকাশিত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগ ও অপসারণ প্রবিধানমালা-২০১২ অনুযায়ী এমডি হতে একই শ্রেণির বিমা কোম্পানিতে ১৫ বছরে চাকরির অভিজ্ঞতাসহ এমডির অব্যবহিত নিম্নপদে তিন বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তবে বিমা বিষয়ক উচ্চতর ডিগ্রিধারীদের জন্য অভিজ্ঞতা শর্তসাপেক্ষে তিন থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত শিথিল করা যাবে। অর্থাৎ আইন অনুযায়ী ১০ বছরের কম অভিজ্ঞতা নিয়ে কোনো মতেই বিমা কোম্পানির এমডি হওয়া যাবে না।

সূত্র মতে, বিমা কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বয়সসীমা সর্বনিম্ন ৪০ ও সর্বোচ্চ ৬৭ বছর নির্ধারণ করে ২০০৭ সালের জুন মাসে প্রজ্ঞাপন জারি করে সাবেক বিমা অধিদফতর। ওই প্রজ্ঞাপনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে আদালতে রিট (রিট নং ১৭-২০০৮) করেন গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাসির এ চৌধুরী। আদালত প্রজ্ঞাপনের নির্দেশ তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন। এতে তিন মাসের জন্য এমডি পদে থাকার সুযোগ পান তিনি। তবে রিটটি খারিজের জন্য সাবেক বিমা অধিদপ্তর ও বর্তমান নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ প্রথম দিকে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। ফলে আদালত থেকে মাত্র তিন মাসের আদেশ নিয়ে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে এমডি দায়িত্ব পালন করেন নাসির এ চৌধুরী।

এদিকে, চলতি বছরের তিন জানুয়ারি বিমা কোম্পানির এমডির বয়স ও শিক্ষাগত যোগ্যতার নতুন শর্ত দিয়ে প্রবিধান পাস করে সরকার। এতে এমডি পদে বয়সের সময়সীমা সর্বনিম্ন ৪০ থেকে সর্বোচ্চ ৬৭ বছর নির্ধারণ করা হয়। একইসঙ্গে প্রবিধান পাসের ৩০ দিনের মধ্যে পুনঃঅনুমোদনের বিধান রাখা হয়। সে হিসেবে বিমা কোম্পানিতে কর্মরত সকল এমডিকে পুনরায় অনুমোদন নেওয়ার নির্দেশ দেয় বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এ নির্দেশনার পর এমডি নিয়োগের নতুন শর্ত অনুযায়ী অযোগ্য হলেও কোম্পানিতে পুনরায় নিয়োগ পেতে গত জানুয়ারিতে আইডিআরএ-র কাছে আবারও আবেদন করেন তিনি। এ পরিস্থিতিতে আইডিআরএ রিটটি খারিজ করতে উচ্চ আদালতে আবেদন করে। আইডিআরএ-র আবেদনের প্রেক্ষিতে সম্প্রতি উচ্চ আদালত রিটটি খারিজ করে দেয়। রিট খারিজের পরের দিনই এমডির পদ থেকে পদত্যাগ করেন নাসির এ চৌধুরী।

এখন যোগ্যতা না থাকলেও এমডি হিসেবে তার মেয়ে ফারজানার নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। সম্প্রতি এ বিষয়ে অনুমোদন চেয়ে আইডিআরএ-র কাছে একটি চিঠি দেয়া হয়েছে। এদিকে, কোম্পানিটির একটি সূত্র জানিয়েছে, এমডি হিসেবে ফারজানার অনুমোদন নিতে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করছেন নাসির এ চৌধুরী। তিনি অর্থমন্ত্রীকে দিয়ে আইডিআরএ-র উপর চাপ সৃষ্টির পাঁয়তারা করছেন।


এখানে শেয়ার বোতাম






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

All rights reserved © 2021 shirshobindu.com