l

বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:২৭ অপরাহ্ন

আরিফুল হকের ১১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা

আরিফুল হকের ১১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা

এখানে শেয়ার বোতাম

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১৮ দল সমর্থিত সম্মিলিত নাগরিক জোটের প্রার্থী আরিফুল  হক চৌধুরী তার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। সোমবার দুপুর ১২টায় নগরীর  জিন্দাবাজারের শ্যামলী কমিউনিটি সেন্টারস্থ প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে  সম্মিলিত নাগরিক জোটের আহ্বায়ক অধ্যাপক আতাউর রহমান পীর আরিফুল হকের ১১ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেন।

ইশতেহারে ঘোষিত দফাগুলোর মধ্যে রয়েছে, সাইবার সিটি গড়ে তোলা, পানীয় জলের  সমস্যার সমাধান, জলাবদ্ধতা দূরিকরণ, যানজট ও পরিবহন সংকট দূরিকরণ, শিক্ষা ও উন্নয়ন, স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে  পরিচ্ছন্ন নগরী গঠন ও প্রবাসী সেবা কেন্দ্র স্থাপন। ইশতেহারে বলা হয়-  আরিফুল হক চৌধুরী মেয়র নির্বাচিত হলে তার কর্মজীবন ও বিদেশ সফরের  অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে দেশী-বিদেশী বিশেষজ্ঞ ও নগরবিদদের সমন্বয়ে সিলেট  নগরীর জন্য একটি মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করবেন। এর প্রধান লক্ষ্য হবে সিলেটকে  ‘পরিকল্পিত আধুনিক নগরী’ হিসেবে গড়ে তোলা। এছাড়া সিলেট কারাগারের জায়গায়  আধুনিক সাইবার সিটি গড়ে তোলা হবে।

পানীয় জলের সমস্যাকে নগরীর দীর্ঘদিনের অন্যতম প্রধান সমস্যা উল্লেখ করে  বলেন- এর সমাধানে সাইফুর রহমানের সময় নেয়া উদ্যোগ বাস্তবায়নের মাধ্যমে  নগরীর প্রতিটি ঘরে সুপেয় খাবার পানি পৌঁছে দেয়া হবে।

গত একযুগে নগরীর জলাবদ্ধতা দূরিকরণে কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি দাবি করে আরিফ  তার নির্বাচনী ইশতেহারে বলেন- নগরীর অনেক স্থানে নালা-নর্দমা দুর্নীতির  মাধ্যমে বন্দোবস্ত প্রদান ও অবৈধ দখলদারদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। আরিফ  নির্বাচিত হলে ছড়া-খাল উদ্ধার করে এগুলো গভীরতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পানি  নিষ্কাশনের সুষ্ঠু ব্যবস্থা করে জলাবদ্ধতা দূর করা হবে। নগরীর উল্লেখযোগ্য  ছড়াগুলোকে লেকে রূপান্তরিত করারও উদ্যোগ নেয়া হবে বলে ইশতেহারে উল্লেখ করেন আরিফ। মেয়র নির্বাচিত হলে যানজট নিরসনে নগরীর রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, উন্নত ট্রাফিক  নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি চালু ও দ্রুতগতির যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে। এ  লক্ষ্যে বেসরকারী উদ্যোগে নগরবাস সার্ভিস আরও সম্প্রসারিত এবং বিআরটিসি বাস ও ট্যাক্সি ক্যাব সার্ভিস চালু করা হবে। পথচারীদের নিরাপদ পারাপারের জন্য  ওভারব্রিজ ও গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হবে বলে ইশতেহারে  উল্লেখ করা হয়।

নগরীর শিক্ষার উন্নয়ন ও প্রসারে নগর প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন  এবং প্রতিটি মহল্লায় ছিন্নমুলদের শিক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া বিদেশের  সাথে লিংক প্রোগ্রামের মাধ্যমে প্রফেশনাল স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট  স্থাপন করা হবে বলে আরিফ প্রতিশ্র“তি দেন। স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে স্যাটেলাইট ক্লিনিক স্থাপন করা হবে। বস্তিবাসীর সেবায় ভ্রাম্যমান ক্লিনিক ও অ্যাম্বুলেন্স  সার্ভিস চালুর আশ্বাস দেন আরিফ।

নির্বাচনী ইশতেহারে আরিফ উল্লেখ করেন- দেড় যুগ ধরে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায়  ক্রুটি ও অবহেলার কারণে নগরীর অনেক এলাকা আবর্জনার স্তুপে পরিণত হয়েছে।  তিনি মেয়র হলে প্রযুক্তি ব্যবহার করে পচনশীল বর্জ্যকে সম্পদে পরিণত করবেন।  বর্জ্য থেকে কম্পোস্ট সার ও বায়োগ্যাস উৎপাদনে প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।  এছাড়া বর্জ্য অপসারণে লোকবল ও যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি করবেন।  প্রবাসী ও দেশে বসবাসকারী তাদের স্বজনদের ব্যবসা, বিনিয়োগ ও নির্মাণ  ক্ষেত্রে যাতে হয়রানির শিকার না হন সেজন্য নগরভবনে প্রবাসী সেবা কেন্দ্র  স্থাপন করা হবে। সেখান থেকে ওয়ান স্টপ সার্ভিস দেয়া হবে বলে ইশহেতারে  উল্লেখ করেন আরিফ। ইশহেতার ঘোষনার সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেয়র প্রার্থী আরিফুল  হক চৌধুরী, সাবেক জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন, সম্মিলিত নাগরিক  জোটের সদস্য সচিব আবুল কাহের শামীম প্রমুখ।

 


এখানে শেয়ার বোতাম






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

All rights reserved © 2021 shirshobindu.com