l

মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন

ইমিগ্রান্টদের বাড়ি ভাড়া নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের নীতি পুন:বিবেচনা করার সুপারিশ

ইমিগ্রান্টদের বাড়ি ভাড়া নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের নীতি পুন:বিবেচনা করার সুপারিশ

এখানে শেয়ার বোতাম

 

 

 

 

 

 

 

 

মোস্তাক আহমদ: অবৈধ ইমিগ্রান্টদের বিরুদ্ধে ইউকে সরকারের প্রণীত নতুন নীতি পুন:বিবেচনা করতে সরকারের কাছে সুপারিশ জানিয়েছে ব্রিটিশ প্রপার্টি ফেডারেশন (বিপিএফ)।

বিপিএফ জানায়, নতুন প্রস্তাবনা অনুযায়ী প্রত্যেক ভাড়াটিয়ার জটিল ইমিগ্রেশন ডকুমেন্ট যাচাই করে বাড়ি ভাড়া দিতে হবে। যেখানে একজন ইমিগ্রান্টের ডকুমেন্ট চেক করতে অফিসারদের দীর্ঘ সময় লাগে সেখানে বাড়ি মালিকরা কিভাবে তা করবে। যেহেতু ইংলান্ডের বাড়ি মালিকরা ইমিগ্রেশন অফিসার নয়। এ ব্যাপারে তাদের কোন ধারণা বা অভিজ্ঞতা নেই।

ইংলান্ডের অনেক বাড়ি মালিকরা  আছেন যারা জীবনে ইমিগ্রেশন ডকুমেন্ট দেখেনি। এই নীতি বর্তমান প্রেক্ষাপটের সাথে অসমঞ্জস্য। যে সব বাড়িওয়লাদের কমপ্লেক্স বিল্ডিং রয়েছে তাদের প্রত্যক রুমে গিয়ে ডকুমেন্ট যাচাই করা সম্ভব নয়। এর নীতির সম্পূর্ণ বিরোধীতা করে গত সপ্তাহে এমপি সারাহ টিয়েথার গভর্নমেন্ট এর নতুন নীতি বন্ধের আহ্বান জানান।

বিপিএফ এর মতে, ল্যান্ডলর্ডদের সহজ কিছু কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে যেমন, স্টুডেন্টদের ইউনিভার্সিটি ডকুমেন্ট যাচাই করা। যাদের ইমিগ্রেশন ডকুমেন্ট আগেই যাচাই করা হয়েছে। তবে তারা ভাড়াটিয়ার ভিসা যাচাই করতে পারবেনা। ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছে কিনা সে বিষয়ে ভাড়াটিয়াদের সতর্ক করার সময় নেই ল্যান্ডলর্ডদের। অনেক বাড়িওয়ারা আছেন যারা এস্টেট এজেন্টের মাধ্যমে তাদের বাড়ি দেখাশুনাসহ সম্পূর্ণভাবে পরিচালনা করিয়ে থাকেন। এক্ষেতে যদি কোন বাড়াটিয়া অবৈধভাবে এজেন্টের কাছ থেকে বাড়া নিয়ে থাকেন তবে নতুন প্রয়োগকৃত আইন অনুযায়ী জরিমানা গুনতে হবে বাড়িওয়ালাকে। যা সম্পূর্ণভাবে  বেআইনী বলে উল্লেখ করা হয়েছে বিপিএফ এর সুপরিশে।


এখানে শেয়ার বোতাম






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

All rights reserved © 2021 shirshobindu.com