রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫৭

প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সংবর্ধনা’য় রাজধানীতে জনদুর্ভোগ

প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সংবর্ধনা’য় রাজধানীতে জনদুর্ভোগ

এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

যানজটে নাকাল নগরবাসী। প্রতিদিনের চিত্র এটি। এরমধ্যে গতকাল হঠাৎ করে বন্ধ করে দেয়া হয় জাহাঙ্গীর গেট থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও ফার্মগেট পর্যন্ত সড়ক। গুরুত্বপূর্ণ সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকায় স্থবির হয়ে পড়ে গোটা রাজধানী। ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে আটকে থাকতে হয়েছে নগরবাসীকে। আর এসব কিছুই হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সংবর্ধনাকে কেন্দ্র করে।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগদান শেষে গতকাল বিকাল পৌনে ৬টায় দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দারিদ্র্য বিমোচনে বিশেষ অবদানের জন্য তাকে জাতিসংঘের সাউথ সাউথ পুরস্কার দেয়া হয়। এ পুরস্কার পাওয়ায় বিমানবন্দরে আওয়ামী লীগ কর্তৃক প্রধানমন্ত্রীকে নাগরিক সংবর্ধনা দেয়া হয়। দলের সভানেত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী জড়ো হন বিমানবন্দরে।

সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন পর্যন্ত রাস্তায়, বিভিন্ন মোড়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন হাজার হাজার নেতাকর্মী। তারা আসেন বাসে করে, ট্রাকে মিছিল সহকারে। সহস্রাধিক মোটরসাইকেলের শোভাযাত্রাও করা হয়। তারা তাকে বিশেষ সম্মাননা অর্জন করায় অভিনন্দিত করেন। দিনশেষে অফিস ছুটির পরে বিমানবন্দরমুখী সড়কে শোভাযাত্রা, মিছিলের পাশাপাশি ব্যস্ততম এ সড়কে অবস্থান নেয়ায় দেখা দেয় তীব্র যানজট।

সন্ধ্যার আগেই এটি ছড়িয়ে পড়ে রাজধানীর বেশির ভাগ এলাকায়। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর ফেরার রাস্তা দীর্ঘ সময় বন্ধ করে রাখায় রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ অনেক সড়কে কয়েক ঘণ্টা আটকা পড়েন যাত্রীরা। একসময় স্থবির হয়ে পড়ে বিমানবন্দরমুখী সড়কের যানচলাচল। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন নগরবাসী। প্রায় ঘণ্টাখানেক মৎস্য ভবনের সামনে আটকে থেকে রাগে ক্ষোভে গন্তব্য ফার্মগেটের নাখালপাড়া হেঁটে রওয়ানা দেন মনির হোসেন। তিনি অফিস ছুটি শেষে মতিঝিল থেকে নিউভিশন গাড়িতে উঠেছিলেন। ঘণ্টাখানেক বাসে থেকে যখন শুনলেন গোটা রাজধানী অচল, তখন তিনি ক্ষোভ ঝাড়লেন। এমন অনেকেই বাস থেকে নেমে হেঁটেই বাসায় ফেরেন।

মহাখালীতে ১ ঘণ্টা ১০ মিনিট বাসে আটকে থেকে হেঁটেই বারডেমে যান জসিম উদ্দিন। যানজট ও জনদুর্ভোগ এড়াতে বিমানবন্দর থেকে বের হয়ে ক্যান্টনমেন্টের ভেতর দিয়ে জাহাঙ্গীর গেট-বিজয় সরণি হয়ে গণভবনে যান প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু যানজট এড়ানো যায়নি। আগেই বন্ধ হয়ে যায় বিমানবন্দরমুখী সড়কটি। প্রধানমন্ত্রী ফেরার সময় ঘণ্টাখানেক বন্ধ রাখা হয় মহাখালী থেকে ফার্মগেট, তেজগাঁও লিংক রোড থেকে বিজয় সরণি হয়ে গণভবন পর্যন্ত রাস্তা।

এ কারণে এখানকার রোডগুলোও দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকে। তাকে দেয়া নাগরিক সংবর্ধনা জানাতে নেতাকর্মীদের সড়কে অবস্থান ও গুরুত্বপূর্ণ রোড বন্ধ রাখায় এর প্রভাব পড়ে পুরো রাজধানীতে। বাস, ট্রাকে করে শোভাযাত্রা করায় বিমানবন্দর রোডে দেখা দেয় তীব্র জট। বিকাল ৫টা থেকে বিমানবন্দর থেকে মহাখালী পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ রুটের উভয় পাশেই যানজটের কারণে যানবাহনের চাকা প্রায় বন্ধ ছিল। একটি সিগন্যালেই আধাঘণ্টা থেকে ১ ঘণ্টা আটকে থাকতে হয়েছে। বিমানবন্দর থেকে মহাখালী পেরুতেই সময় লেগেছে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টার মতো।

ফার্মগেটে সড়ক বন্ধ থাকায় কাওরানবাজার, পান্থপথ, বাংলামোটর, শাহবাগ, প্রেস ক্লাব, কাকরাইল, পল্টন পর্যন্ত জট ছড়িয়ে পড়েছিল। এছাড়া, মহাখালী থেকে মগবাজার, ফার্মগেট থেকে মিরপুর পর্যন্ত ছিল তীব্র জট। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানাতে বিমানবন্দর থেকে গণভবনে ফেরার পথে অবস্থান নেন।

বিকাল থেকেই তারা মিছিল, ব্যানার-ফেস্টুন, শোভাযাত্রা ও গাড়িবহর নিয়ে এয়ারপোর্ট রোড, খিলক্ষেত, বনানী, মহাখালী, বনানী, বিজয় সরণি সহ সড়কের বিভিন্ন মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। বিমানবন্দরের ভিভিআইপি লাউঞ্জের সামনে জড়ো হন হাজার হাজার নেতাকর্মী। তারা এসময় প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার লাভে তাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে স্লোগান দেন। আওয়ামী লীগ ছাড়াও যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ দলের অঙ্গ সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সাধারণ নাগরিকরা সেখানে উপস্থিত হন।


এখানে শেয়ার বোতাম
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
All rights reserved © 2021 shirshobindu.com