বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০২:০৪

করোনা বৈশ্বিক হুমকি মোকাবিলায় সার্ক ঐক্যের আহবান

করোনা বৈশ্বিক হুমকি মোকাবিলায় সার্ক ঐক্যের আহবান

/ ১২ বার পড়া হয়েছে
প্রকাশ কাল : রবিবার, ১৫ মার্চ, ২০২০

শীর্ষবিন্দু নিউজ: করোনা ভাইরাসের বৈশ্বিক হুমকি মোকাবিলায় কার্যকর যৌথ কৌশল গ্রহণ করতে বিশেষ বৈঠকে বসেছেন সার্ক নেতারা।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আহ্বানে এই ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সার্কের অন্যান্য নেতাদের। এর আগে গেলো শুক্রবার বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া কোভিড-নাইন্টিন মোকাবিলায় দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের প্রতি ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সার্কভুক্ত আট দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের ভিডিও কনফারেন্সে এ আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ ভবিষ্যতে এমন দুর্যোগ ঠেকাতে সার্কের একটি ইনস্টিটিউট বাংলাদেশে স্থাপনে আগ্রহও প্রকাশ করেন তিনি৷

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আহ্বানে এ ভিডিও কনফারেন্সে নিজ নিজ দেশ থেকে উপস্থিত ছিলেন আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহীম মোহাম্মদ সলিহ, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং৷

অন্য সব দেশের সরকার বা রাষ্ট্রপ্রধান উপস্থিত থাকলেও, পাকিস্তানের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন দেশটির স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাফর মির্জা৷

বক্তব্যের শুরুতে উহান থেকে ২৩জন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে নিয়ে আসা এবং ভিডিও কনফারেন্স আয়োজনের জন্য মোদীকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷

উহান ফেরত

করোনা ভাইরাসের সূত্রপাত হয় চীনের উহান নগরীতে৷ একটা পর্যায়ে শহরটিকে কার্যত বিচ্ছিন্ন করে ফেলে দেশটির সরকার৷ সেখানে আটকা পড়ে কয়েকশো বাংলাদেশি৷ তার মধ্যে পয়লা ফেব্রুয়ারি বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে ৩১২ জনকে ঢাকায় ফিরিয়ে আনে সরকার৷

বাংলাদেশের পদক্ষেপ

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বাংলাদেশের গ্রহণ করা নানা ব্যবস্থার কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা৷ দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ায় বাংলাদেশ করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকিয়ে রাখতে পেরেছে বলে সার্ক নেতাদের জানান তিনি৷ শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে যত করোনা ভাইরাসের রোগী রয়েছেন তাদের সবাই দেশের বাইরে থেকে এসেছেন৷ অন্য অনেক দেশের মতো স্থানীয়ভাবে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া ঠেকিয়া রাখতে পেরেছে সরকার৷

স্থানীয় পর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধির নানা উদ্যোগের কথা জানান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী৷ সরকারি কর্মকর্তা ছাড়াও সব পর্যায়ের আওয়ামী লীগের কর্মীরাও সক্রিয় রয়েছেন৷ স্থানীয় কর্তৃপক্ষকেও যেকোনো সময় কোয়ারেন্টাইন পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য তৈরি থাকতে বলা  হয়েছে৷

করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় কুয়েত মৈত্রীসহ চারটি হাসপাতাল এবং রাজশাহীতে একটি বিশেষ হাসপাতাল আলাদাভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে৷ এছাড়া, প্রতিটি জেলা হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের জন্য আলাদা শয্যার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রী জানান, কিছু খালি ভবন চিহ্নিত করা হয়েছে যেগুলোকে যেকোনো মুহূর্তে সংক্রামক ব্যাধির চিকিৎসায় ব্যবহার করা যাবে৷ শিক্ষার্থীদেরও সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে৷ টেস্টিং কিটস, আইসোলেশন গাউনসহ বিভিন্ন উপকরণ পর্যাপ্ত মজুদ রাখা হচ্ছে৷

সমন্বিত উদ্যোগের প্রস্তাব 

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে ঐক্যবদ্ধ কৌশল নেয়ার আহ্বান জানান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, সব দেশের সক্ষমতা ব্যবহারে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে৷ এক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিশেষজ্ঞ ও প্রয়োজনীয় রসদ দিয়ে সহায়তা দিতে প্রস্তুত বলেও জানান শেখ হাসিনা৷

পরবর্তীতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও সার্কের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের নিয়েও নিয়মিত ভিডিও কনফারেন্স আয়োজন করা যেতে পারে বলে প্রস্তাব দেন শেখ হাসিনা৷ এই ধরনের সংকট মোকাবিলায় ভবিষ্যতে বাংলাদেশে একটি সার্ক ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার ব্যাপারেও আগ্রহ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷






পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
All rights reserved © 2021 shirshobindu.com