সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৫৭

লকডাউন জারি ইউরোপের একাধিক দেশে

লকডাউন জারি ইউরোপের একাধিক দেশে

শীর্ষবিন্দু আর্ন্তজাতিক নিউজ / ৮৫
প্রকাশ কাল: রবিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২১

করোনা নিয়ন্ত্রণে বড়দিন ও নতুন বছরের উৎসবের আগেই লকডাউন কার্যকর হতে চলেছে ইউরোপে। বড়দিনের (২৫ ডিসেম্বর) উৎসবের মৌসুমে ইউরোপে আবার করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) ইউরোনিউজের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

ইউরোপের মধ্যে অস্ট্রিয়া, জার্মানি ও রাশিয়ায় দৈনিক  করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর রেকর্ড তীব্রতা দেখা গিয়েছে। এই দেশগুলিতে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এবং ইউরোপের মধ্যে অস্ট্রিয়াই প্রথম দেশ যেখানে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে।

ঠান্ডা আবহাওয়া ভাইরাসের বিস্তারকে প্রভাবিত করেছে বলে ইউরোপের বিভিন্ন অংশে করোনার সংক্রমণ আবার বাড়ছে। জার্মানের ভাইস চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল নাগরিকদের টিকা দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে দেশের সর্বোচ্চ করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। মার্কেল বলেন, পরিস্থিতি এখন চূড়ান্ত নাটকীয়তায় চলে গিয়েছে।

জার্মানের স্বাস্থ্য মন্ত্রী জেনস স্পান জানিয়েছেন যে জার্মানি হয়তো করোনা রোগীদের এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে বা এমনকী প্রতিবেশী দেশেও চিকিৎসার জন্য পাঠাতে পারে। স্পান বলেন, আমরা এমন এক পর্যায়ে পৌঁছেছি যেখানে আমাদের করোনা রোগীদের শুধু একই অঞ্চলে নয়, জার্মানির অন্যান্য অঞ্চলে স্থানান্তর করতে হবে।‌’‌  শুক্রবারও জার্মানিতে দৈনিক করোনা সংক্রমণ রেকর্ড হয়েছে ৫২,৯৭০টি। জার্মানের বাভারিয়া, করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য তাদের জনপ্রিয় বড়দিনের বাজার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

করোনা সংক্রমণের তীব্রতা কমাতে অস্ট্রিয়া ইতিমধ্যে লকডাউন কার্যকর করার কথা ঘোষণা করেছে এবং দেশের পুরো জনসংখ্যাকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে সম্পূর্ণ টিকাকরণের আওতায় আনার কথা বলা হয়েছে। অস্ট্রিয়ান চ্যান্সেলর আলেকজান্ডার শ্যালেনবার্গ বলেছেন, মানুষকে টিকাকরণের জন্য আমরা যথেষ্টভাবে রাজি করাতে পারছি না। কিন্তু এখন এটা নিয়ে কড়া বন্দোবস্ত করতে হবে। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা পারস্পরিক সহযোগিতা দেখাননি। এই দুষ্ট চক্র ভাঙ্গার একমাত্র উপায় টিকাদানের হার বাড়ানো।’ দেশজুড়ে লকডাউন কার্যকর হবে আগামী সোমবার থেকে। গত ২৪ ঘণ্টায় এই দেশে ১৫,৬০৯টি নতুন সংক্রমণ দেখা দিয়েছে, যা মহামারি শুরুর পর থেকে সর্বোচ্চ।

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের তালিকায় পাঁচটি দেশের একটি হল রাশিয়া। টিকা প্রয়োগের পর কয়েক মাস আক্রান্ত ও মৃত্যুহার নিয়ন্ত্রণে থাকলেও গত সপ্তাহ থেকেই তা আবার বাড়তে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতিতে কর্মক্ষেত্র, রেস্তোরাঁ কিংবা শপিংমলে গেলে টিকা সনদ সঙ্গে রাখার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। শুক্রবারও এই দেশে সর্বোচ্চ ১,২৫৪টি দৈনিক নতুন মৃত্যু সহ ৩৭,১৫৬টি নতুন করোনা কেস সনাক্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার এই দেশে ১,২৫১ জন ও বুধবার ১,২৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়।

দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, রাশিয়ার মাত্র ৪০ শতাংশ মানুষ করোনার দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন। গ্রীস বৃহস্পতিবার করোনভাইরাস-সম্পর্কিত নতুন বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে। যাদের এখনও টিকা দেওয়া হয়নি তাদের টিকা দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত চাপ চাপ দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী কিরিয়াকোস মিৎসোটাকিস বলেছেন যে, তিনি বিশ্বাস করেন যে করোনার পদক্ষেপগুলো যারা এখনও দ্বিধাগ্রস্ত তাদের মন পরিবর্তন করতে এবং টিকা নিতে সাহায্য করবে।

এদিকে স্পেনে চালু করা হয়েছে ভ্রাম্যমাণ টিকাকেন্দ্র। প্রশাসন বলছে, পর্যটন মৌসুম শুরু হওয়ার পর করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গত এক সপ্তাহে সংক্রমণের হার ৫২ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

All rights reserved © shirshobindu.com 2021