বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:৩২

পুরুষের কঠিন রোগের ঝুঁকি বাড়ে প্রস্রাবের সময় যে ভুলে

পুরুষের কঠিন রোগের ঝুঁকি বাড়ে প্রস্রাবের সময় যে ভুলে

টয়লেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে কমবেশি সবাই অসচেতন। জানলে অবাক হবেন, টয়লেট ব্যবহারের ভুলেও হতে পারে একাধিক রোগ। ঠিক যেমন প্রস্রাবের সময় এক ভুলে পুরুষরা কঠিন রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

আসলে নারীরা যখন টয়লেট ব্যবহার করেন, তখন তারা কমোডে বা লো প্যানে বসেন। তবে বেশিরভাগ পুরুষরাই প্রস্রাবের সময় চটজলদি দাঁড়িয়েই সেরে নেন প্রাকৃতিক কর্মটি।

তবে জানলে অবাক হবেন, আপনার এই অভ্যাস কিন্তু কঠিন রোগের ঝুঁকি বাড়চ্ছে। এমনটিই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রকৃতপক্ষে, একজন নেতৃস্থানীয় ইউরোলজিস্ট সতর্ক করেছেন যে অনেক পুরুষ ভুলভাবে টয়লেটে যাচ্ছেন, যা তাদের মূত্রাশয়ের ক্ষতি করতে পারে এবং তাদের জন্য স্বাস্থ্যবিধি সমস্যা তৈরি করতে পারে।

যুক্তরাজ্যের চেশায়ারের আলেকজান্দ্রা হাসপাতালের ডা. জেরাল্ড কলিন্সের দাবি, নারীদের মতো পুরুষদেরও বসে প্রস্রাব করা উচিত। এটি মূত্রাশয়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

পুরুষদের প্রস্রাব নিয়ে ইউগভ. এর একটি প্রতিবেদনের পর বিশেষজ্ঞ এই দাবি করেছেন। যা ১৩টি দেশের ৭ হাজার পুরুষের ওপর জরিপ করে দেখা গেছে, বেশিরভাগ পুরুষই দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করতে স্বাচ্ছন্দ্য করেন।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, ২৫ শতাংশ অস্ট্রেলিয়ান প্রতিবার প্রস্রাব করতে বসেন, তবে ২৭ শতাংশ পুরুষ ব্যস্ততার মাঝে প্রস্রাবের সময় ‘কখনো বসেন না’।

ডা. কলিন্সের মতে, ‘সমীক্ষায় শুধু জার্মানির পুরুষদের মাঝেই দেখা গেছে সেখানকার ৪০ শতাংশ পুরুষ প্রস্রাব করার সময় ‘সর্বদা’ বসেন।

অন্যদিকে সিঙ্গাপুরে সবচেয়ে কম পুরুষরা বসে প্রস্রাব করেন। সেখানকার ৯৫ শতাংশ মানুষ দাঁড়িয়ে প্রস্রাবে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

টেলিগ্রাফে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ডা. কলিন্স দাবি করেন, ‘বসে প্রস্রাব করলে পেলভিক পেশী ও মেরুদন্ড সম্পূর্ণ শিথিল হয়, যা প্রস্রাবেগ ঠিক রাখে।

এই বিশেষজ্ঞ আরও জানান, বয়স্ক পুরুষদের ক্ষেত্রেও প্রস্রাবের জন্য বসে থাকা উপকারী, তবে ইউগভ. সমীক্ষায় দেখা গেছে, বয়স্ক পুরুষদের মধ্যে কম বয়স্কদের তুলনায় বসে প্রসাবের প্রবণতা কম।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
All rights reserved © shirshobindu.com 2012-2024