শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৪৫

রোজা রাখলে যেসব সতর্কতা মানা জরুরী

রোজা রাখলে যেসব সতর্কতা মানা জরুরী

শরীর স্বাস্থ্য / ১৩৪
প্রকাশ কাল: মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ, ২০২৪

এই রোজায় সুস্থ থাকার জন্য সচেতনতার বিকল্প নেই। কিন্তু যারা বিভিন্ন রোগ নিয়ে রোজা রাখছেন ও যাদের নিয়মিত ওষুধ সেবন করতে হয়, তাদের চাই বাড়তি সতর্কতা।

রোজায় কীভাবে ওষুধ খাবেন, কোন রোগ নিয়ে কী কী সতর্কতা মানতে হবে এবং কাদের জন্য রোজা রাখা ঝুঁকিপূর্ণ- জেনে নিন এগুলোর বিস্তারিত।

ডায়াবেটিস রোগীর ক্ষেত্রে
প্রথমেই আসে ডায়াবেটিসের কথা। ডায়াবেটিসের রোগীরা অবশ্যই রোজা রাখতে পারবেন। তবে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে ওষুধের ডোজ সমন্বয় করে নিতে হবে। কারণ অন্য সময়ের তুলনায় এ সময় মুখে খাওয়ার ওষুধ বা ইনসুলিনের ডোজ কিছুটা কমিয়ে আনতে হয়।

সকালের ওষুধ ইফতারে আর রাতের ওষুধ সাহরিতে খেতে বলা হয়, ইনসুলিনের ক্ষেত্রেও একই নিয়ম। কিছু ইনসুলিন আছে যেগুলো দীর্ঘমেয়াদে কাজ করে। রক্তে সুগারের পরিমাণ কমে যাওয়ার ভয় কম থাকে এমন ইনসুলিন ডাক্তারের পরামর্শে নেওয়া যেতে পারে।

হৃদরোগের রোগীদের ক্ষেত্রে
ঝুঁকিপূর্ণ বা জটিল হৃদরোগী ছাড়া অন্য হৃদরোগীদের জন্য রোজা বেশ উপকারী। নিয়ম মেনে খেলে এর সাথে রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে থাকে। ৫০ এর বেশি বয়স্ক রোগী যারা দুর্বল, দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকলে আরও বেশি অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে তাদের রোজা না থাকাই ভালো।

একই সাথে হার্ট ফেইলরের রোগীদেরও রোজা না থাকা উচিত। যে কোনও হৃদরোগী যার অবস্থা জটিল নয়, কিন্তু হঠাৎ যদি বুকে ব্যথা বা বেশি খারাপ অনুভব করেন তাহলে দ্রুত রোজা ভেঙে ওষুধ খেয়ে নিতে হবে।

কিডনি রোগীদের ক্ষেত্রে
কিডনির রোগ থাকলেই যে রোজা রাখা যাবে না- তা ঠিক না। কিডনিতে সমস্যা থাকুক বা না থাকুক প্রত্যেকেরই রোজার সময় পর্যাপ্ত পানি পান নিশ্চিত করতে হবে। তবে আকস্মিক কিডনি রোগে আক্রান্ত, রেনাল ফেইলরের শেষ স্টেজ, ডায়ালাইসিস রোগীদের রোজা না রাখাই ভালো।

আ্যজমা বা শ্বাসকষ্ট রোগীদের ক্ষেত্রে
এ ধরনের রোগীদের প্রশ্ন হচ্ছে ইনহেলার নিতে পারবে কিনা। সঠিক নিয়মে ইনহেলার নিলে রোজা ভাঙার ভয় নেই। কারণ ওষুধ সরাসরি রক্তে মিশে গেলে রোজা ভেঙে যায়, কিন্তু ইনহেলারের ক্ষেত্রে তা হওয়ার সুযোগ নেই।

গর্ভাবস্থায় করণীয়
গর্ভকালীন প্রথম তিন মাস এবং শেষ তিন মাস রোজা না রাখাই উত্তম। মাঝের তিন মাসে মা যদি সুস্থ অনুভব করেন এবং তেমন কোন জটিলতা না থাকে তাহলে রোজা রাখতে পারেন। তবে ইফতার, সেহরি এবং অন্যান্য খাবারে পর্যাপ্ত পুষ্টি, ভিটামিন, ক্যালসিয়াম, খনিজ গ্রহণ, পানি পান নিশ্চিত করতে হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
All rights reserved © shirshobindu.com 2024