বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১১:০৮

সাইবার সন্ত্রাস

সাইবার সন্ত্রাস

/
প্রকাশ কাল: বৃহস্পতিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩

ড. মাহফুজ পারভেজ: কক্সবাজারের রামুর সহিংস দাঙ্গার সূত্রপাত সাইবার জগত থেকে। এখন শাহবাগ আন্দোলন ও চলমান পরিস্থিতিতে সাইবার জগতের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ব্যবহার ও অপব্যবহারের অভিযোগও শোনা যাচ্ছে। মতলববাজরা পরিস্থিতির সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে। চরিত্রহনন, কুৎসা রটনা, গুজব ও তথ্য বিকৃতি ছাড়াও সাইবার সন্ত্রাসে নিমেষে লোপাট হয়ে যেতে পারে ব্যাঙ্কের জমানো আপনার টাকা; গোপন নথি। এলোমেলো হতে পারে কম্পিটারে রাখা ই-মেইল, বিভ্রান্তি ছড়ানো হতে পারে আপনাকে নিয়ে  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। আপনাকে ব্যবহার করে বা আপনার নাম ভাঙিয়ে অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতিও সৃষ্টি করতে পারে দুষ্টচক্র। আপনাকে জড়িয়ে দেওয়া যেতে পারে অপরাধের সঙ্গে। অতএব এইক্ষেত্রে চূড়ান্ত সাবধানতা অনস্বীকার্য।

সমস্যাটি নিয়ে কথা বলেছিলাম কয়েকজন আইটি বিশেষজ্ঞের সঙ্গে। তারা জানান, বর্তমানে অনেকেই ব্রডব্যান্ডের জন্য ওয়াই-ফাই ওয়ারলেস নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেন। সতর্ক না হলে হ্যাকাররা সেটা ব্যবহার করতে পারবে। এর থেকে বাঁচার সহজ উপায় হলো, যাকে দিয়ে আপনার নেটওর্য়াক ইন্সটল করিয়েছেন, তাঁকে বলবেন, আপনার নেটওর্য়াকটি যেন লুকনো থাকে। এবং সেটি যেন ডব্লিউপিএ-২ হয়। কখনও ডব্লিউইপি ব্যবহার করবেন না। এটা সহজেই হ্যাক করা যায়।

আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে কম্পিউটারের সঙ্গে সঙ্গে ফোনও সব সময় অনলাইন থাকে। সেখান থেকেও হতে পারে ‘আইডেনটিটি থেফ্ট’। ‘আইডেনটিটি থেফ্ট’ মানে যখন কেউ আপনার নাম, প্যান নম্বর বা ক্রেডিট কার্ড নম্বর আপনার অনুমতি ছাড়াই ব্যবহার করতে পারে। এসব ঠেকানোর প্রথম ধাপটি হলো, কখনওই ব্যক্তিগত বা গোপনীয় তথ্য ব্যবহার করবেন না। সাবধান থাকবেন কোনও রিকোয়েস্ট গ্রহণ বা কোন অ্যাপ্লিকেশনের ব্যাপারে অনুমতি দেওয়ার ক্ষেত্রেও। কম্পিউটার থেকে কোড বা তথ্য চুরি ঠেকাতে ‘ফায়ারওয়াল’ ইন্সটল করুন। এন্টি-ভাইরাসের সঙ্গে সঙ্গে এন্টি-ম্যালওয়ার প্রোগ্রামও ইন্সটল করুন। জোরদার ও জটিল পাসওর্য়াড ব্যবহার করুন। মাঝেমাঝে সেটার পরিবর্তন করুন। সবচেয়ে বড় কথা হলো, ই-মেইলে আসা কোনও অজানা ছবি বা লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। সাইবার সন্ত্রাস থেকে নিরাপদে থাকতে হলে বিশেষজ্ঞরা কিছু টিপস দিয়েছেন। যেমন, ডিকশনারি বা অভিধানের চেনা শব্দ দিয়ে পাসওর্য়াড তৈরি করবেন না। এ্কই পানওর্য়াড দুইবার ব্যবহার করবেন না। বিভিন্ন ওয়েবসাইটের জন্য আলাদা আলাদা পাসওর্য়াড ব্যবহার করুন। যত বড় পাসওর্য়াড হয়, তত ভালো। পাসওর্য়াডের দৈর্ঘ্য যত বড় হবে, সেটাকে ভাঙা বা হ্যাক করা ততই কষ্ট ও সময়সাপেক্ষ। স্বাভাবিকভাবে ১৪ বা তার বেশি ক্যারেক্টারের পাসওর্য়াড ভাঙা প্রায় অসম্ভব। গোপনে রাখুন পাসওর্য়াড। ইনবক্স বা ডেক্সটপে কখনওই রাখবেন না। আলাদা কাজে আলাদা ব্রাউজার ব্যবহার করুন। অর্থাৎ যে ওয়েব ব্রাউজার যেমন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার, মোজিলা ফায়ার ফক্স, গুগল ক্রোম ইত্যাদি দিয়ে এক একটি কাজ করুন। সামাজিক যোগাযোগ ও ব্যাঙ্কিং বা গোপন বিষয় একই ওয়েব ব্রাউজারে করবেন না।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *



পুরানো সংবাদ সংগ্রহ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
All rights reserved © shirshobindu.com 2021