ঘর মন জানালা

ফাস্টফুডে মানুষের স্থূলকায় ভয়াবহ স্বাস্থ্য ঝুঁকি

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সারা বিশ্বে স্থূলতা মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। প্রতি বছর শুধু অতিরিক্ত ওজনের কারণে বিভিন্ন প্রাণঘাতী রোগে আক্রান্ত হয়ে অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন ২৮ লাখ মানুষ। বিশ্বায়নের সর্বব্যাপী এ প্রক্রিয়ায় আক্রান্ত চীনও। চীনের শহরগুলোতে ফাস্টফুড সংস্কৃতি যেভাবে ঢুকে পড়েছে, তা রীতিমতো আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। দেশটিতে এখন স্থূলকায় মানুষদের সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে শুধু ফাস্টফুড গ্রহণের ফলে।

অস্ট্রেলিয়ায় বিষয়টি বেশ গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হচ্ছে। ফাস্টফুড সংস্কৃতি ইউরোপ কিংবা পশ্চিমা বিশ্ব থেকে এশিয়ার সংস্কৃতিতেও মিশেছে। আর তা নিঃসন্দেহে ভয়াবহ উদ্বেগের কারণ। এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এমনিতেই জনসচেতনতার অভাব। সেখানে এ ধরনের সংস্কৃতি যে আরও ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিচ্ছে ও দেবে, তাতে সন্দেহ নেই। ইউরোপে ফাস্টফুড বা যে কোন খাবারের মান নিয়ন্ত্রণে যে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়, এশিয়ার অবস্থান সেখানে কোথায় সেটা সবারই জানা। ইউরোপ মান নিয়ন্ত্রণের পরও যেখানে এ ধরনের জাঙ্ক ফুড বা ফাস্টফুডকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে, সেখানে এশিয়ার অবস্থান কোথায় তা প্রশ্নাতীত।

প্রক্রিয়াজাত খাবার যে কোন অর্থেই স্বাস্থ্যের জন্য বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। সেখানে স্থূলতার বিষয় তো প্রথমেই আসে। বৃটেন ও যুক্তরাষ্ট্রের মতো উন্নত দেশগুলো উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ভীষণ উদ্বিগ্ন। তাই সময় থাকতে সচেতন না হলে, বিশ্ব দ্রুতই এগিয়ে যাবে এক বিপজ্জনক পরিণতির দিকে।

২০০৬ সালে পরিচালিত এক জরিপে দেখা গেছে, বিশ্বের ১০০ কোটি স্থূলকায় জনসংখ্যার এক-পঞ্চমাংশই চীনা নাগরিক। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা আইএএনএস। উন্নত বিশ্বের সবচেয়ে স্থূলকায় জাতির একটি অস্ট্রেলিয়াও ভুক্তভোগী। যে হারে দেশটিতে মোটা মানুষের সংখ্যা বাড়ছে, তা অব্যাহত থাকলে, ২০২৫ সালের মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ পূর্ণবয়স্ক অস্ট্রেলীয় নাগরিক স্থূলকায় ব্যক্তিদের তালিকায় পড়বেন। মোনাশ ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় এমন তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

 

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close