স্বদেশ জুড়ে

অধিকারের সেক্রেটারি আদিলুর রহমান গ্রেপ্তার: রিমান্ড পেতে আদালতে পুলিশের আবেদন

 

 

 

 

 

 

স্বদেশ জুড়ে ডেস্ক: গত ৫ই মে হেফাজতবিরোধী মতিঝিল অভিযান নিয়ে তথ্য বিকৃতির অভিযোগে গ্রেপ্তার ডানপন্থী মানবাধিকার সংগঠন হিসেবে পরিচিত অধিকারের সেক্রেটারি আদিলুর রহমান খান শুভ্রকে গেপ্তার করেছে পুলিশ। আদালতে আদিলুর রহমানকে হাজির করা হলে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ।

তথ্যপ্রযুক্তি আইনে আটক আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের ঘনিষ্ঠ শুভ্রকে শনিবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর রোববার দুপুরে তাকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ১০ দিনের রিমান্ডের আদেবন করা হয় বলে গোয়েন্দা পুলিশের উপ পরিদর্শক আশরাফুল ইসলাম জানান।

কাবা শরিফের গিলাফ পরিবর্তনের ছবিকে ‘যুদ্ধাপরাধী দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মুক্তি দাবিতে ইমামদের মানববন্ধনের ছবি’ হিসেবে প্রকাশকারী মাহমুদুরকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণ হিসেবে দেখিয়ে আসছে অধিকার। অধিকারের অন্য কর্মকর্তাদের বাদ দিয়ে সেক্রেটারিকে কেন গ্রেপ্তার করা হলো জানতে চাইলে মুনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি, আদিলুর রহমানেই প্রতিষ্ঠানটির মূল ব্যক্তি।

আদিলকে আদালতে নেয়ার আগে মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে অধিকারের সেক্রেটারির বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো তুলে ধরেন ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মুনিরুল ইসলাম। তিনি জানান, আরো পাঁচ-ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা খতিয়ে দেখছেন। তবে তাদের পরিচয় তিনি প্রকাশ করেননি। চারদলীয় জোট সরকার আমলের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শুভ্রের বিরুদ্ধে জামায়াত সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে। অধিকারের সেক্রেটারিকে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে তার মুক্তি দাবি করে ইতোমধ্যে বিবৃতি দিয়েছে জামায়াত ও তাদের শরিক দল বিএনপি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র মাসুদর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, মতিঝিল অভিযান নিয়ে বিকৃত তথ্য ও ছবি প্রচারের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে অধিকারের সেক্রেটারিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শাপলা চত্বর থেকে হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের তুলতে গত ৫ মে রাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে অভিযান চালায়, তাতে ৬১ জন নিহত হয় বলে অধিকার এনিয়ে তাদের প্রতিবেদনে উল্লেখ করে। মতিঝিলে গণহত্যা চালানো হয়েছিল বলে বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর নেতারা দাবি করলেও সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, ওই অভিযানে কেউ মারা যাননি। কেউ মারা গেলে তাদের স্বজনরা অন্তত খোঁজ জানতে চাইত।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের পাঠানো ওই চিঠিতে কথিত নিহত ৬১ জনের পূর্ণাঙ্গ পরিচয়, নাম, ঠিকানা চেয়ে বলা হয়, ৫ মে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার কোথাও ১৬ জনের বেশি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া না গেলেও প্রতিবেদনে ৬১ জন নিহত হওয়ার কথা বলা হয়েছে। ফলে ওই রাতে হেফাজতের সমাবেশকে কেন্দ্র করে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী ও হেফাজতের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা নিয়ে ভ্রান্ত ধারণার অবতারণা হয়েছে। এরপর অধিকার মন্ত্রণালয়ে ওই চিঠির জবাব পাঠিয়ে মতিঝিল অভিযান নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠনের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানায়।

পুলিশ কার্যালয়ের ব্রিফিংয়ে মুনিরুল ইসলাম বলেন, “এনজিও হিসাবে নিবন্ধিত অধিকার নামের বেসরকারি প্রতিষ্ঠানটি একটি উদ্দেশ্যমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যাতে দেখা গেছে, ওইদিন (৫ মে) দিনের বেলায় যারা হেফাজতের হামলায় মারা গেছে, তাদের ছবি জড়ো করে ফটোশপের মাধ্যমে তারা রাতের ঘটনা বলে বিকৃত তথ্য উপস্থাপন করেছে। বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় ওই প্রতিবেদন তাদের ওয়েবসাইটেও দেয়া আছে। এতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সরকার তথা রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষূন্ন হয়েছে। ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। এটি তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার ১ ও ২ উপধারায় অপরাধ। অধিকারের ওই প্রতিবেদনের পর সরকারের পক্ষ থেকে অধিকারের কাছে বক্তব্যের সপক্ষে প্রমাণ চেয়ে গত মাসে চিঠি দেয়া হয়।

 

 

 

 

 

 

 

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ।

 

 

কিছুক্ষণের মধ্যে এ বিষয়ে শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

 

অধিকারের পরিচালক নাসির উদ্দিন এলান শনিবার রাতে সাংবাদিকদের জানান, রাত সোয়া ১০টার দিকে গুলশানে বাড়িতে ঢোকার সময় শুভ্রকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল।

 

 

শুভ্রের আগে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে গ্রেপ্তার করা হয় আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে, যিনি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমলে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ছিলেন।

 

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close