Featuredব্রিকলেন টু জিন্দাবাজার

রহস্যজটে আর্বতিত সিলেটের স্বর্ণের মার্কেটে ডাকাতির ঘটনা

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সিলেটে স্বর্ণের মার্কেটে ডাকাতির ঘটনার এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো কূল-কিনারা খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ। শুধু পুলিশের রদবদল আর সন্দেহজনক আটক ও রিমান্ডে নেওয়া আনার মধ্যে চলছে পুলিশের কার্যক্রম। এ ব্যাপারে ব্যবসায়ীরাও কোনো বক্তব্য দিচ্ছেন না। তারা ঘটনার মূল রহস্য বের করতে পুলিশের দিকে চেয়ে আছেন।  আগামী রোববার ডাকাতির কবলে পড়া মার্কেটের সামনে মানববন্ধন করবেনব্যবসায়ীরা।

ডাকাতির রহস্য উদঘাটনে পুলিশ ২৪ ঘণ্টার যে  আল্টিমেটাম দিয়েছিলো তাও পেরিয়ে গেছে। তবে প্রধানমন্ত্রীর সিলেট সফরকে কেন্দ্র করে শহরের ব্যবসায়ীরা আন্দোলন শিথিল রেখেছেন। অপরদিকে ডাকাতির শিকার হওয়া দোকান ও দোকান মালিককে ঘিরে নতুন রহস্যের জট বেঁধেছে।

প্রসঙ্গত: গত ৪ সেপ্টেম্বর বুধবার সন্ধ্যারাতে নগরীর জিন্দাবাজার নেহার মার্কেটে বোমা ফাটিয়ে স্বর্ণের দোকানে লুটপাট চালায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় ডাকাতদের গুলিতে মার্কেটের নৈশপ্রহরী নিহত ও ব্যবসায়ীসহ চারজন আহত হন। পূণ্যভূমি সিলেটে এ রকম গুলি ও ককটেল ফাটিয়ে দোকানপাট লুটের ঘটনা আর কখনো ঘটেনি। ডাকাতির ঘটনায় গতকাল পর্যন্ত পুলিশ সন্দেহভাজন হিসেবে কবীর আহমদ ওরফে হেরোইন কবীর (৩৫) ও আবদুল জলিল ওরফে ফোকড়া জলিল (৩৩), ছাত্রদল নেতা নাহিদুল ইসলাম নাহিদ ওরফে কালা নাহিদ, ডাকাত ওমর আলী, দুলাল আহমদ, ও মানিক নামে যুবলীগের এক নেতাকে আটক করে জেলাহাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। পরে তাদের প্রত্যেকের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।

পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি না হয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, আমাদের তদন্ত কাজ অব্যাহত আছে। তদন্ত শেষ হওয়ার আগে কিছু বলতে পারছি না। আমরা খতিয়ে দেখছি ডাকাতি হয়েছে একটি মাত্র দোকানে। কিন্তু তান্ডব হয়েছে পুরো মার্কেটে। একটি মাত্র দোকান কেন ডাকাতের টার্গেট হলো-সেই বিষয়টি নিয়ে তদন্ত কাজ এগুচ্ছে। এতে তারা কিছু ক্লু পেতে শুরু করেছেন বলে দাবি করেছে পুলিশের একটি সূত্র। ওই সূত্র আরো জানায়, দোকান মালিককে বার বার জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাকে পর্যবেক্ষণের মধ্যে রাখা হয়েছে। তার কাছ থেকেই শেষ পর্যন্ত মূল ঘটনা জানা যেতে পারে বলে দাবি পুলিশের।

নাম প্রকাশ না শর্তে পুলিশ সূত্র জানায়, ওই দোকানের সঙ্গে কোনো সিন্ডিকেটের যোগাযোগ থাকতে পারে। যে সিন্ডিকেট অবৈধ স্বর্ণ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। ওই ব্যবসার লেনদেন ও চালানে সমস্যা হওয়ায় দোকান মালিক টার্ট হন। আর এর সঙ্গে একটি রাজনৈতিক দলের ক্যাডারাও জড়িত বলে তারা আপাত তথ্য পেয়েছেন। তবে তদন্ত কাজের স্বার্থে এর বাইরে জানানো যাচ্ছে না বলে জানায় সূত্র।

এর আগে সিলেটে সফরকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতও  একটি মাত্র স্বর্ণের মার্কেটে ডাকাতির ঘটনাকে রহস্যজনক বলে মন্তব্য করেছিলেন। পুলিশ সেই সূত্র ধরেই তদন্ত কাজ অব্যহত রেখেছে বলে জানা গেছে।

 

 

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close