Featuredদুনিয়া জুড়ে

বাংলাদেশীদের জন্য সৌদি শ্রম বাজার উন্মুক্ত হচ্ছে

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য সৌদির শ্রম বাজারে আবারও আসছে সুবাতাস। দীর্ঘদিন বন্ধের পর খুলতে যাচ্ছে বাংলাদেশের জন্য বৃহত্তম এই শ্রম বাজারটি। বলা হয়েছে, দেশটিতে অবস্থানরত অবৈধ বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য সৌদি সরকারের দেওয়া অ্যামনেস্টির মেয়াদ শেষ হলেই সেদেশে আবার প্রবেশ করবে নতুন বাংলাদেশি কর্মী। তবে এবার বাংলাদেশ থেকে দক্ষ শ্রমিক নিতে চায় সৌদি আরব। আর এর প্রথম ধাপে গৃহকর্মী ও গাড়ি চালক নিতে আগ্রহী তারা। এছাড়া পরিচ্ছন্নতাকর্মীও নেবে দেশটি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় বেশ আশাবাদী। সৌদির শ্রম বাজার বন্ধের পর থেকে বাজারটি উন্মুক্ত করতে সরকারিভাবে নানা প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সৌদি সফরকালে বাংলাদেশিদের জন্য শ্রম বাজার উন্মুক্ত করতে সেদেশের সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছিলেন। এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনও কয়েকবার সৌদি সফর করে একই অনুরোধ জানিয়েছিলেন। ২০১১ সালের এপ্রিলে সৌদি আরবে বেসরকারি নিয়োগকর্তাদের সংগঠন ‘সৌদি ন্যাশনাল রিক্রুটমেন্ট কমিটির সভাপতির নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দলও বাংলাদেশ সফর করেন। এসবের ধারাবাহিকতায় সৌদির শ্রম বাজার আবার উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ সচিব ড. জাফর আহমেদ জানান, সৌদি সরকার নতুন করে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেবে। এটা শ্রম বাজারের জন্য বিরাট এক সুখবর। আমাদের দীর্ঘ দিনের প্রচেষ্টার পর বাজারটি আবার খুলতে যাচ্ছে। তিনি বলেন, শুরুতেই গৃহকর্মী ও গাড়ি চালক নিলেও ধীরে ধীরে অন্যান্য পেশার কর্মীও নেবে সৌদি। আমরা তাদের চাহিদা মোতাবেক দক্ষ শ্রমিক পাঠাবো। ড. জাফর আরও বলেন, আমাদের শ্রমিকদের করা অপরাধের জন্যই বিরাট বিরাট বাজার বন্ধ হয়ে যায়। দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়। এজন্য দেশের বৃহত্তর স্বার্থে সেখানে যাওয়া শ্রমিকদের দেশটির আইন-কানুন মেনে চলা উচিত।

তবে এ বিষয়ে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির (বায়রা) মহাসচিব আলী হায়দার চৌধুরী জানান, সৌদি আরব সামান্য কিছু কর্মী নিতে চেয়েছে। এর মানে এই নয় যে বাজার উন্মুক্ত হলো। এটা তাদের অনেক আগের চাহিদা। এক কথায় পুরোনো প্রস্তাব। কবে নাগাদ পুরো বাজার খুলবে সেটি এখনই বলা মুশকিল। বিষয়টি অনেক কিছুর উপর নির্ভর করে। তিনি আরও বলেন, তবে বায়রা চায় দ্রুত সৌদিসহ বাংলাদেশি শ্রমকিদের জন্য বন্ধ হওয়া সকল বাজার উন্মুক্ত হোক।

এদিকে বাজার খোলার এই সুযোগে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত বাংলাদেশিরা যাতে সেখানে থেকে যেতে না পারে এ বিষয়ে ঢাকার সৌদি দূতাবাসকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে নতুন কর্মীদের প্রয়োজনীয় শিক্ষা ও সংশ্লিষ্ট কাজে দক্ষতার শর্ত দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে।

এরই মধ্যে বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগে সৌদি সরকারের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সুপারিশ করেছে সৌদি মন্ত্রিপরিষদ প্যানেল। দেশটির শ্রম মন্ত্রণালয় বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়টি ইতোপূর্বে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেও দেখেছে।

সৌদি আরব ২০০৯ সালের শেষের দিকে এসে বাংলাদেশি কর্মী নেওয়া একেবারে কমিয়ে দেয়। এমনকি দেশটিতে অবস্থানরত বাংলাদেশের নাগরিকদের কাজের জন্য নতুন ভিসা, আকামা নবায়ন ও পরিবর্তনও বন্ধ করা হয়।

 

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close