Featuredরাজনীতি

অবশেষে নির্বাচনকালীন সরকার বিষয়ে সংলাপে রাজি হলো বিএনপি

শীর্ষবিন্দু নিউজ: বিএনপি নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সংলাপে বসতে রাজি বলে জানিয়েছেন বিএনপির মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় মির্জা ফকরুল এই মন্তব্য করেন।

নির্দলীয় সরকারের দাবিতে আন্দোলনরত বিএনপি এর আগে আলোচনার কথা বললেও নিজেদের অবস্থানে ছাড় না দেয়ার কথা বলে আসছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে টেলিফোন আলাপেও খালেদা জিয়া নির্দলীয় সরকারের দাবি মানার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এরপর বিভিন্ন সভায় এমনকি গত বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আলোচনা সভায়ও বিএনপি চেয়ারপারসন নির্দলীয় সরকার দাবির আন্দোলনে কোনো আপস না করার কথা বলেছিলেন। তার দুই দিন পর যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিষয়ক সহকারী মন্ত্রী নিশা দেশাই বিশওয়ালের ঢাকায় আসার কয়েক ঘণ্টা আগে প্রেসক্লাবের আলোচনা অনুষ্ঠানে ফখরুল নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সংলাপের উদ্যোগ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সংসদে অথবা সংসদের বাইরে আলোচনার জন্য বিরোধী দলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছিলেন অনির্বাচিতদের হাতে ক্ষমতা ছাড়তে নারাজ আওয়ামী লীগের নেতারা। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনে নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বিলোপের পর থেকে ওই পদ্ধতি পুনর্বহালের দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপি। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচিত সরকার অর্থাৎ তাদের অধীনেই নির্বাচনের কথা বলে আসছিল। দুই প্রধান দলের পাল্টাপাল্টি অবস্থানে সমঝোতার জন্য জাতিসংঘসহ বিভিন্ন মহলের আহ্বানের মধ্যে গত মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দেন এবং তাতে বিএনপিকে অংশ নেয়ার আহ্বান জানান।

সর্বদলীয় সরকার গঠনের জন্য প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রীদের পদত্যাগপত্র জমা নেয়ার পর ফখরুল বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করলেই সঙ্কটের সমাধান আসবে। সংলাপ না হওয়ার জন্য পরস্পরকে দায়ী করে দুই পক্ষের বক্তব্যের মধ্যে শুক্রবার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন,তিনি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদককে টেলিফোন করেও পাচ্ছেন না। সংলাপে বিএনপির আন্তরিকতার নজির হিসেবে ফখরুলের এই বক্তব্য আসার পর সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, তিনি মির্জা ফখরুলের কোনো ফোনকল পাননি।

টেলিফোন নিয়ে ফখরুলের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় আশরাফ সংলাপের বিষয়ে বিরোধী দলের আন্তরিকতা নিয়ে ফের প্রশ্ন তোলেন। গতকাল প্রেসক্লাবে ওনার নেত্রী খালেদা জিয়া বলেছেন, আলোচনার কোনো সুযোগ নেই। উনি (ফখরুল) আগে উনার নেত্রীর সঙ্গে কথা বলুক। উনার নেত্রী যদি বলে আলোচনার সুযোগ আছে, তাহলে আলোচনা করা যাবে। তার প্রতিক্রিয়ায় প্রেসক্লাবের আলোচনা সভায় ফখরুল বলেন, আমি বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়ার অনুমোদন নিয়ে বলছি, সঙ্কট সমাধানে আমরা সরকারের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই। সরকারকে বলব, আর সময় নষ্ট করবেন না। মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি না করে সংলাপে বসার উদ্যোগ নিন। সংলাপ নিয়ে সরকার নাটক তৈরি করছে অভিযোগ করে সে পথ ছাড়ার আহ্বান জানিয়ে একতরফা নির্বাচনের দিকে না এগোতে ক্ষমতাসীনদের হুঁশিয়ারও করেন তিনি।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close