Featuredলন্ডন থেকে

শেষ হলো মুসলিম-অমুসলিম মিলন মেলা জিপিউ ২০১৩

সুমন আহমেদ, জিপিউ ২০১৩ লন্ডন এক্সেল থেকে: পৃথিবী জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মুসলিম প্রেমীরা জড়ো হয়েছিলেন টেমস নদীর তীর ঘেষা বৃহৎ সেন্টার লন্ডন এক্সেলে। এখানে দুই দিন ব্যাপি আয়োজন করা হয় মুসলিম-অমুসলিমসহ পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষাভাষি লোকেদের মুসলিম জাতির জীবন ও মুসলিম ধর্ম সম্পর্কে সমগ্র ধারণা দিতে এক ফ্যাসটিভেল। যার নাম গ্লোবাল পিস এন্ড ইউনিটি। এক নামেযার অর্থ হলো শান্তির ছায়ায় আসো একত্রে।

রোবাবার আয়োজিত এক প্রেস কনফারেন্সে এই ফ্যাসটিভালের চেয়ারম্যান জানাব মোহাম্মদ আলী হারাত বলেন, তিনি আনন্দিত ৯মবার এই আয়োজন করতে পেরেছেন বলে। উপস্থিত প্রেসের সকল সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানান উপস্থিত হবার জন্য। এবং সুন্দরভাবে বিশ্ববাসীর কাছে এই প্যাসটিভালের আয়োজনকে তুলে ধরতে অনরোধ জানান।

শনিবার সকাল ১০.৩০ মিনিটে শুরু হওয়া এই ফ্যাসটিভেল যোগ দেন বিশ্বের কয়েক হাজার বিভিন্ন ভাষাভাষি মুসলিম-অমুসলিম নারী-পুরুষসহ পরিবার সদস্যরা। এক ছায়ার তলে এসো এই আহবানে সাড়া দিতে তাদের সবার এই আন্দঘন আগমন। লন্ডন ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন দেশ দেশ মুসলিম স্কলার্সরা আসেন তাদের বক্তব্য তুলে ধরতে। কয়েক হাজার মানুষ এসময় অধির আগ্রহে বক্তব্যে শুনতে দেখা যায়।

এসময় একদল তরুন মুসলিম যুবককে দেখা যায়, বাইরে ডিএলআর ষ্টেশনে দাড়িয়ে একটি হলুদ রংয়ের ছোট কাগজ এগিয়ে দিতে। যার মধ্যে লেখা ছিলো-সাবধান! জিপিউ হারাম! নারী-পুরুষের এরকম অবাধ মেলামেশা হারাম। বিরত থাকো এরকম কুফরী কাজ থেকে। জিপিউ সবাইকে একত্র করছে। যেখানে পুলিশ, মুসলমানদের বিরোধী লোক, ভিন্ন ধর্মাবলম্বী প্রশাসসের লোকসহ বিভিন্ন লোককে তারা দাওয়াত করেছে। এটা মুসলিমম ধর্মের পরিপন্থি। এটা রোখে দাড়াও! শরীয়া মোতাবেক জিহাদে নামো।

উপস্থিত কয়েক হাজার মানুষের উপস্থিতিতে  স্টলগুলো মানুষের ভিড় দেখা যায়, যারমধ্যে চ্যারিটি সংগঠনগুলো স্বতশ্ফূর্ত আয়োজনে মানুষের কাছে টানে। এ সময় চ্যারিটি সংগঠনগুলো অনেক ডনেশন সংগ্রহ করেছে বলে জানা যায়। খাবার স্টলগুলোতেও প্রচুর ভিড় ছিলো। বাচ্চাদের উপিস্থিতি চোড়ে পড়ার মতো। খেলাধুলার আয়োজনে তারা খুবইভাবে অংশগ্রহণ করে। বিপুল উপস্থিতিতে জিপিউ২০১৩ শেষ হয় রোববার রাত ৯টায়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close