দুনিয়া জুড়ে

চির বিদায় নিলেন অবিসংবাদিত নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট ও বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের প্রবাদপুরুষ ম্যান্ডেলা ২৭ বছরের কারাজীবন থেকে বেরিয়ে বর্ণভেদে রক্তাক্ত দেশটিকে গণতন্ত্রের পথ ধরিয়েছিলেন। ৯৫ বছরের জীবন তিনি উৎসর্গ করেছিলেন সেই সংগ্রামের পথেই। ফুসফুসের সঙ্গে দীর্ঘ লড়াইয়ের ইতি টেনে জীবন-মৃত্যুর সীমারেখা মুছে দিলেন তিনি। বর্ণবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামের ইতিহাসে কিংবদন্তী দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট নেলসন ম্যান্ডেলা বৃহস্পতিবার জোহানেসবার্গে তার বাড়িতে মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা।

৯৫ বছর বয়সী ম্যান্ডেলা জোহানেসবার্গের হাউটন শহরতলিতে নিজ বাড়িতে বিশেষ ব্যবস্থায় নিবিড় চিকিৎসার অধীনে ছিলেন। ফুসফুসে সংক্রমণজনিত অসুস্থতার কারণে প্রিটোরিয়ার মেডিক্লিনিক হাসপাতালে প্রায় তিন মাস চিকিত্সা নেওয়ার পর গত ১ সেপ্টেম্বর বাড়িতে ফেরেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার জাতির জনক হিসেবে খ্যাত ম্যান্ডেলা ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন। এর আগে দীর্ঘ ২৭ বছর কারাভোগ করেন তিনি।

ম্যান্ডেলার জন্ম ১৯১৮ সালে ১৮ জুলাই। দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৯৪৮-এর নির্বাচনে বর্ণবাদবিশ্বাসী ও বিভিন্ন জাতিকে আলাদা করার পক্ষপাতী দল ন্যাশনাল পার্টি জয়লাভ করে। ন্যাশনাল পার্টির ক্ষমতায় আসার প্রেক্ষাপটে ম্যান্ডেলা সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। তিনি আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের ১৯৫২ সালের অসহযোগ আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। ১৯৫৫ সালে জনগণের সম্মেলনে তাঁর ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এখানেই দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের মূল ভিত্তি মুক্তি সনদ প্রণয়ন করেন তিনি।

রাজনৈতিক জীবনের প্রথমভাগে মহাত্মা গান্ধীর দর্শন দ্বারা প্রভাবিত ম্যান্ডেলা শুরু থেকে অহিংস আন্দোলনের পক্ষপাতী ছিলেন। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদী শ্বেতাঙ্গ সরকার ১৯৫৬ সালের ৫ ডিসেম্বর ম্যান্ডেলসহ ১৫০ জন বর্ণবাদবিরোধী কর্মীকে দেশদ্রোহিতার মামলায় গ্রেপ্তার করে। দীর্ঘ পাঁচ বছর মামলা চলার পর তাঁরা নির্দোষ প্রমাণিত হন। ১৯৬১ সালে এএনসির সশস্ত্র সংগঠনের নেতৃত্ব নেন ম্যান্ডেলা। বর্ণবাদী সরকার ও তার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে অন্তর্ঘাতী ও চোরাগোপ্তা হামলার পরিকল্পনা ও সমন্বয় করেন। এতে বর্ণবাদী সরকার পিছু না হটলে প্রয়োজনবোধে গেরিলা যুদ্ধে যাওয়ারও পরিকল্পনা নেন।

১৯৬২ সালের ৫ আগস্ট ম্যান্ডেলাকে গ্রেপ্তার করে সরকার। টানা ২৭ বছর বর্ণবাদী সরকারের কারাগারে বন্দী ছিলেন তিনি। এরই মধ্যে দীর্ঘ সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন ম্যান্ডেলার সহযোদ্ধারা। নানা দমন-পীড়ন আর নির্যাতনের বিরুদ্ধে অবিচল থেকে সারা বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের কাছে শ্রদ্ধার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছেন নিজেকে। ১৯৯০ সালের ২ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ আফ্রিকার তত্কালীন প্রেসিডেন্ট এফ ডব্লিউ ক্লার্ক আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসসহ অন্যান্য বর্ণবাদবিরোধী সংগঠনের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন। ম্যান্ডেলা মুক্তি পান ১৯৯০ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি।

বর্ণবাদ অবসানের লক্ষ্যে সরকারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যান ম্যান্ডেলা। শান্তি আলোচনা ফলপ্রসূ হওয়ার পর ১৯৯৪ সালে দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সব বর্ণের মানুষের অংশগ্রহণে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। গণতান্ত্রিকভাবে প্রথম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন ম্যান্ডেলা। হলেন দেশটির প্রথম কৃঞ্চাঙ্গ রাষ্ট্রপতি। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৯ পর্যন্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকা সরকারের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় অবদান রাখার জন্য নেলসন ম্যান্ডেলা এবং এফ ডব্লিউ ডি ক্লার্ক ১৯৯৩ সালের নোবেল শান্তি পুরস্কার পান।

টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট জুমা বলেন, পূর্ণ রাষ্ট্রীয় সম্মানে তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া হবে। তিনি জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দেন। প্রিয় দেশবাসী, আমাদের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট, আমাদের সবার প্রিয় নেলসন রোলিহ্লাহ্লা ম্যান্ডেলা চলে গেছেন, বলেন জুমা। নিজের বাড়িতেই শান্তিপূর্ণভাবে তিনি মারা গেছেন। জুমার ওই ঘোষণার পরপরই বিশ্বের সব প্রান্ত থেকে একের পর এক শোক বার্তা আসতে শুরু করে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেন, এই পৃথিবীতে আমরা যাদের সঙ্গে সময় কাটিয়েছি, তাদের মধ্যে সবচেয়ে প্রভাবশালী ও সবেচেয়ে সাহসিদের একজন, সত্যিকারের একজন ভাল মানুষকে আমরা হারালাম। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বলেন, ম্যান্ডেলা ছিলেন আমাদের সময়ের মহানায়ক। পৃথিবীর এক আলোকবর্তিকা আজ নিভে গেল।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close