Featuredদুনিয়া জুড়ে

বিশ্ব রফতানি মেলা ২০২০: দুবাইয়ে উত্তেজনা তোলপাড়

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: বিশ্বের কোন দেশ বিশ্ব রফতানী মেলা-২০২০-এর আয়োজক হবে, এ নিয়ে ভোটাভুটির আয়োজন করা হয়েছে। বুধবার এর ফলাফল জানা যাবে। বিশ্ব রফতানী মেলা-২০২০ আয়োজনে আগ্রহী দেশসমূহের নগরীগুলো হচ্ছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই, রাশিয়ার ইয়েফাতোরিনবার্গ, তুরস্কের ইঝমির এবং ব্রাজিলের সাও পাওলো। দুবাইয়ের শাসকদের দাবি, দুবাইয়ে ২২ লাখ মানুষের বসবাস, যার অধিকাংশই বিদেশী। তাই দুবাই বিশ্ব রফতানী প্রদর্শনী বা মেলা আয়োজনের জন্য উপযুক্ত নগরী।

দুবাই কর্তৃপক্ষ জানায়, বিশ্ব রফতানী মেলা আয়োজক হওয়ার সুযোগ পেলে দুবাইয়ের নির্মাণাধীন বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিমান বন্দর আল-মকতুম ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট এবং ব্যস্ততম জেবেল আলী সমুদ্র বন্দরের নিকটে একটি গোটা নগরী গড়ে তোলা হবে। প্রদর্শনী প্যাভিলিয়নের চারদিকে গড়ে তোলা হবে একটি বিশ্ববিদ্যালয়, যা এই প্রদর্শনীর আয়োজন করবে। তাদের মতে, এ ছাড়া এই নগরীতে রয়েছে বিশ্বের সর্বোচ্চ ভনন বুর্জ খলিফা। কোন্ নগরী এই রফতানী মেলার আয়োজন করবে, তা ঘোষনার আগেই দুবাই নগরীতে চলছে এর প্রস্তুতি। এ জন্য ব্যয় করা হচ্ছে বিপুল অর্থ।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের অর্থমন্ত্রী সুলতান আল মানসুরি বলেন, এক্সপো  জয়  অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক হবে। আমরা এটা নিশ্চিত করছি যে, এতে কোন অর্থনৈতিক বুদ্বুদ বা অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হবে না। দুবাই কর্তৃপক্ষের মতে, দুবাই ভৌগলিক ভাবে ইওরোপ ও এশিয়ার সংযোগ স্থল। দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশীদ বলেন, আমরা ২০২০ সালে বিশ্বকে আমন্ত্রণ জানাতে প্রস্তুত এবং বিশ্বের ইতিহাসের এ ধরনের বৃহত্তম অনুষ্ঠনের আয়োজন করতে  সম্পূর্ণ সক্ষম।

গত ওয়ার্ল্ড এক্সপো অর্থাৎ বিশ্ব রফতানী মেলা ২০১০ সালে চীনের সাংহাই নগরীতে অনুষ্ঠিত হয়। এর  এর মাধ্যমে চীন আধুনিক শিল্প শক্তি হিসেবে সাফল্যের সাথে নিজেকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়।
২০০০ সালে জার্মানীর হ্যানোভারে অনুষ্ঠিত বিশ্ব রফতানী মেলায় দর্শক সমাগম তেমন না হওয়ায় জার্মানীর ১০০ কোটি ডলার ক্ষতি হয়। তবে দুবাই কর্তৃপক্ষের হিসাব অনুযায়ী, একটি  সফল এক্সপো-২০২০, ২০১৫ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে প্রায় ২ লাখ কোটি টাকা আয়ে সক্ষম হবে, যা নগরীর মোট জিডিপি’র ২৪ শতাংশ। তাদের মতে, এর আয়োজনে ব্যয় হবে মোট সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকা। তারা মনে করেন আমিরাতের বাইরে থেকে প্রায় ১ কোটি ৭৫ লাখ দর্শনার্থী আসবে দুবাইয়ে ৬ মাস ব্যাপী এক্সপো বা রফতানি মেলায়।

লক্ষণীয় যে, ৪২ বছর আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতের একত্রীকরণের পর থেকে আরব উপদ্বীপের একটি নির্জন কোণে অবস্থিত দুবাই অঞ্চলটি বিশ্বের একটি  বাণিজ্য কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠে।  এর আবাসিক সম্পত্তি বিশ্বের সেরা ধনীদের কাছে অত্যন্ত আকর্ষণীয় বস্তু হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। স্বদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে সিরিয়া, লিবিয়া ও মিশরীয় বিত্তবান বিনিয়োগকারীরা নিরাপদ স্থান হিসেবে দুবাইয়ে বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করছেন।

আঞ্চলিক অস্থিরতার সাথে অর্থনৈতিক সংকট থেকে উত্তরণের প্রত্যাশায় দুবাইয়ে আবাসন সম্পত্তির মূল্য গত বছর থেকে প্রায় ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেতে দেখা যাচ্ছে। এটা বিশ্বে মূল্যের ক্ষেত্রে বছরের পর বছর সর্বোচ্চ গড় বৃদ্ধি। এর কিছু কিছু এলাকায় এই হার ৪০ শতাংশেরও বেশী। অবশ্য অনেকে দুবাই রফতানী মেলার আয়োজক হলে মেলায় আশানুরূপ দর্শনার্থী সমাগম ও তাদের ব্যয় প্রত্যাশিত হবে কিনা, এ ব্যাপারে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close