Featuredআইন আদালত

অপরাধের শাস্তি

ফজলে আজিম: যারা বিধ্বংসী কাজে জড়িত থাকে, তারা বেশিরভাগই জানেন না, আইনে তাদের জন্য কী কী শাস্তির বিধান রয়েছে। এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানাচ্ছেন রাজারবাগ ডিটেকটিভ ট্রেইনিং স্কুল (ডিটিএস)-এর ইন্সট্রাকটর মো. আফজাল হোসেন।

বিস্ফোরক দ্রব্য দিয়ে ক্ষতি করা বা জনমনে ভীতি তৈরি করা আইনের চোখে অবশ্যই সাংঘাতিক অপরাধ। সমাজের স্বার্থান্বেষী মহল শিশু, কিশোর, দরিদ্র যুবক বা ধনীর বখে যাওয়া সন্তানকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ককটেল বা অন্যকোনো বিস্ফোরকদ্রব্য জনসম্মুখে নিক্ষেপ করার কাজে ব্যবহার করে। তারা জানেই না, বোমাবাজি বা ভাংচুরের জন্য নিজের মূল্যবান জীবন জেলখানার অন্ধকার কোঠরে নিক্ষেপ করে দিচ্ছে।

বিপজ্জনক বিস্ফোরক নিক্ষেপ করার শাস্তি

বিস্ফোরক উপাদানাবলী আইন ২০০২-এর ৩ ধারায় বলা হয়েছে, যে কোনো ব্যক্তি বেআইনিভাবে বিপজ্জনক কোনো বিস্ফোরক দ্রব্যের বিস্ফোরণ ঘটায়, তা হলে ওই ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড অথবা ১০ বছরের কারাদণ্ড হবে। তবে এই শাস্তি কোনোভাবেই ৫ বছরের কম হবে না।

এই ধারার একটি বিশেষ দিক হল, নিক্ষিপ্ত বোমায় কোনো ব্যক্তির বা সম্পত্তির ক্ষতি হোক বা না হোক, নিক্ষেপকারী ব্যক্তি উক্ত দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও ক্ষতিসাধন করা

কেউ যদি কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের যানবাহনে অগ্নিসংযোগ বা ভাংচুর বা অন্য কোনোভাবে ক্ষতিসাধন করে তাহলে সেই ব্যক্তি আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুত বিচার আইন) ধারা ৪ মোতাবেক অপরাধে সাব্যস্ত হবেন। এই অপরাধের জন্য তার সর্বোচ্চ ৫ বছর ও সর্বনিম্ন ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন। আর অতিরিক্ত ক্ষতিসাধন করার জন্য অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।

এক্ষেত্রে ক্ষতিসাধনকারী ব্যক্তি নগদ অর্থদণ্ড পরিশোধে ব্যর্থ হলে তার ব্যক্তিগত সম্পত্তি থেকে তা আটক করা হবে।

সহায়তাকারীর শাস্তি

কোনো ব্যক্তি যদি উল্লেখিত যে কোনো অপরাধে সহায়তা করেন তাহলে সহায়তাকারী ব্যক্তিও অপরাধীর ন্যায় অনুরূপ দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

রাস্তায় কাঠ, গাছ ফেলে বা রাস্তা কেটে বা অন্য কোনোভাবে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলে সর্বোচ্চ ৫ বছর সশ্রম কারাদণ্ড, সর্বনিম্ন ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

অন্যান্য সন্ত্রাসী কার্যক্রম

রাস্তায় অবরোধ, অগ্নিসংযোগ, ভাংচুরের মাধ্যমে জনগণ বা জনসাধারণের মধ্যে আতংক সৃষ্টি করলে বা জননিরাপত্তা বিঘ্নিত করলে এবং এই উদ্দেশ্যে বিস্ফোরক দ্রব্য বা দাহ্য পদার্থ নিজ দখলে রাখলে সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০২-এর ৬(২) ধারা মোতাবেক সেই ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বা অনুর্ধ্ব ২০ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

এ ধরনের অপরাধে সর্বনিম্ন শাস্তি ৪ বছর মেয়াদী সশ্রম কারাদণ্ড। এছাড়া অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।


 বিস্ফোরক দ্রব্য নিজ দখলে রাখা

অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্যে কোনো ব্যক্তি যদি নিজ দখলে বা নিজ হেফাজতে নিজ বাসাবাড়িতে বা অন্য কোথাও বিস্ফোরক পদার্থ রাখেন তাহলে সেই ব্যক্তি বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইনের ৫ ধারা মোতাবেক সর্বোচ্চ ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও সর্বনিম্ন ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

এ ধরনের অপরাধে জননিরাপত্তার সার্থে সরকার বাদী হয়ে মামলা করেন।

আইনের এইসব বেড়াজালে জড়ালে অপরাধী ও তার পরিবারকে প্রচুর ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এ ভোগান্তির চেয়ে সশ্রম কারাদণ্ড অনেক ভালো হলেও আইনে সে ফাঁক নেই।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close