দুনিয়া জুড়ে

রেকর্ড গড়লো ইতিহাদ এয়ারওয়েজ

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সংযুক্ত আরব আমিরাতের জাতীয় এয়ারলাইনস ইতিহাদ এয়ারওয়েজ ২০১৩ সালে সর্বোচ্চ যাত্রী ও কার্গো ভলিউম পরিবহনের মাধ্যমে আগের সব রেকর্ড ভেঙেছে। গত বছর প্রায় ১২ মিলিয়ন লোক ইতিহাদ এয়ারওয়েজে ভ্রমণ করে, যা ২০১২ সালের তুলনায় প্রায় ১৬ শতাংশ বেশি।

গত বছর ইতিহাদ এয়ারওয়েজ আটটি এয়ারবাস (চারটি এ৩২০, একটি এ৩২১, দুটি এ৩৩০-২০০ ও একটি এ৩৩০ ফ্রাইটার) এবং আটটি বোয়িং এয়ারক্রাফট (ছয়টি ৭৭৭-৩০০ইআর  ও দুটি ৭৭৭ ফ্রাইটারস) ডেলিভারি নেয়। এছাড়াও ই এয়ারলাইনে ইজারা করা ৭৪৭-৮ ফ্রাইটার অর্ন্তভূক্ত রয়েছে। বর্তমানে ৮৯টি এয়ারক্রাফ্ট নিয়ে গঠিত এই এয়ারলাইনটির গড় বয়স মাত্র ৫.২ বছর।

এবারও ব্যস্ততম রুট ছিল থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংকক। এ রুটে ৭ লাখ ৪২ হাজার ৭৫৯ জন যাত্রী। আর দ্বিতীয় ব্যস্ততম রুট ছিল ম্যানিলা। যার যাত্রী সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৬৮। এছাড়াও লন্ডন, জেদ্দা ও প্যারিসে যাত্রী সংখ্যা ছিল যথাক্রমে- ৫ লাখ ৪৪ হাজার ৫৬৪, ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৬৫১ এবং ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৯৬৯জন। আবুধাবি এয়ারপোর্টের মাধ্যমে ১৬.৪ মিলিয়নের বেশি যাত্রী ২০১৩ সালে ভ্রমণ করে, যার ৭৩ শতাংশ ছিল ইতিহাদ এয়ারওয়েজের যাত্রী। ইতিহাদ এয়ারওয়েজ এবং এর ইকুইটি অ্যালায়েন্স পার্টনারদের সম্মিলিত যাত্রী সংখ্যা ছিল ৭৯ শতাংশ।

ইতিহাদ এয়ারওয়েজের সভাপতি এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেমস হোগান বলেন, ২০১৩ সালে নতুন রেকর্ড গড়ার মধ্য দিয়ে আমাদের স্ট্র্যাটেজিক পরিকল্পনার ক্রমাগত সাফল্য প্রতিফলিত হয়েছে। আর এই পরিকল্পনা মূলত তিনটি স্তম্ভের উপর গুরুত্ব দিয়ে গ্রহণ করা হয়েছিল। সেগুলো হলো- অর্গানিক নেটওয়ার্ক বৃদ্ধি, অংশীদারদের সঙ্গে কোড শেয়ার ও অন্যান্য বিমান পরিবহন সংস্থায় ন্যূনতম ইকুইটি বিনিয়োগ।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close