Featuredঅন্য পত্রিকা থেকে

সিলেটের ৪ কারাগারে বাড়ছে বন্দি

ওয়েছ খসরু: বন্দির চাপ সইতে পারছে না সিলেটের কারাগারগুলো। ধারণক্ষমতার কয়েকগুণ বেশি বন্দি নিয়ে টালমাটাল সিলেট বিভাগের ৪ কারাগার। সবক’টিতেই ‘ঠাঁই নাই ঠাঁই নাই’ অবস্থা। সিলেট বিভাগের চার কারাগার মিলিয়ে যেখানে ২ হাজার ১৭৫ বন্দি থাকার কথা সেখানে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারেই রয়েছে এর চেয়ে বেশি বন্দি। আর চার কারাগার মিলিয়ে মোট বন্দির সংখ্যা ৪ হাজার ১৯৪ জন।

রাজনৈতিক অস্থিরতা আর আদালতের বার্ষিক ছুটির কারণে ফেলে আসা বছরের শেষলগ্ন থেকে কারাগারগুলোতে বন্দি বাড়তে থাকে হু হু করে। সিলেট রেঞ্জের হিসেবে সিলেট বিভাগে প্রতিদিন গড়ে বন্দি হচ্ছে ১১২ জন। আর এর সঙ্গে সিলেট মেট্রোপুলিশের হিসাব যোগ করলে সে সংখ্যা দেড় শ’ ছাড়িয়ে যাবে। জায়গা নেই, তারপরও ঢুকাতে হচ্ছে অপরাধীদের। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত সময়ে শুধুমাত্র সিলেট জেলা থেকেই পুলিশ আটক করেছে ৩৭ জনকে। বন্দি বাড়লেও কারাগারের নিরাপত্তা ও রক্ষীর সংখ্যা থেকে যাচ্ছে আগের মতোই। বন্দির চাপে কারাশৃঙ্খলা ভেঙে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। অসন্তোষ থেকে ঘটছে ছোটখাট দুর্ঘটনাও।

সিলেট বিভাগের চার জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি বন্দি ধারণক্ষমতা সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের। ১ হাজার ২১০ জন বন্দি ধারণক্ষমতার বিপরীতে এ কারাগারকে সামলাতে হচ্ছে এর প্রায় দ্বিগুণ সংখ্যক বন্দি। বর্তমানে সিলেটের এ কারাগারটিতে বন্দি আছেন ২ হাজার ২৩০ জন। রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে সিলেট বিভাগের প্রধান এ কারাগারটিতে বন্দির সংখ্যা শুধুই বাড়ছে। এখান থেকে প্রতিদিন বেরিয়ে আসছেন ১৫/২০ জন। আর নাম লেখাচ্ছেন ২৫ থেকে ৩০ জন করে। অবস্থা সবচেয়ে খারাপ সুনামগঞ্জ জেলা কারাগারে। বর্তমানে কারাগারটিতে যত বন্দি রয়েছে এর সিকিভাগও ধারণের ক্ষমতা নেই এর। এ কারাগারে ধারণক্ষমতা যেখানে ১৪৯ জন সেখানে বন্দি আছে ৪ গুণেরও বেশি।

কারা সূত্রের তথ্যমতে, কারাগারে বর্তমানে বন্দির সংখ্যা ৬১২। প্রতিদিনই একজন দু’জন করে সংখ্যা বাড়ছে। কারাগার থেকে গড়ে প্রতিদিন ৭/৮ জন বের হচ্ছেন বিপরীতে বন্দি তালিকায় যুক্ত হচ্ছে আরো ৮ থেকে ১০টি নাম। সুনামগঞ্জের মতো ভয়াবহ অবস্থা না হলেও মৌলভীবাজার জেলা কারাগারেও বন্দির সংখ্যা উপচে পড়ার মতোই। এ জেলার কারাগারে ধারণ ক্ষমতার দ্বিগুণেরও বেশি লোক বন্দি জীবনযাপন করছে। জেলা কারা সূত্রে জানা গেছে, এখানে বন্দি ধারণের ক্ষমতা ৩১৬ জন হলেও আছে ৬৪৫ জন। ধারণক্ষমতা আর বন্দির সংখ্যার তফাৎ বাড়ছে প্রতিদিনই। প্রতিদিন এখান থেকে ১০/১২ জনের মুক্তি মিললেও ঢুকছেন এর চেয়ে ৫/৭ জন করে বেশি।

সিলেটের অন্যান্য কারাগারের তুলনায় বন্দি ধারণের দিক দিয়ে ভালো অবস্থাতেই আছে হবিগঞ্জ জেলা কারাগার। তারপরও এ কারাগারে বন্দির সংখ্যা ধারণক্ষমতার দেড় গুণের কাছাকাছি। হবিগঞ্জ জেলা কারাগারের তথ্য অনুসারে কারাগারের বন্দি ধারণক্ষমতা ৫০০। বর্তমানে বন্দি আছে ৭০৭ জন। প্রতিদিন বন্দি বাড়ছে এ কারাগারেও। গড়ে ১০/১২ জনের কারামুক্তি হলেও তাদের শূন্যস্থান পূরণ করে বাড়তি যোগ হচ্ছে আরো ২/৩ জন।

বাড়তি বন্দি থাকায় প্রাপ্য সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বন্দিরা। এ কারণে বন্দিদের মধ্যে প্রায়ই ক্ষোভ-অসন্তোষের সৃষ্টি হয়। এর সূত্র ধরে অনেক সময় অনাকাঙিক্ষত পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়। ২০১৩ সালের ২০শে মে  সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিরা এক সুবেদারকে দুই ঘণ্টা জিম্মি করে রাখে। তাকে উদ্ধার করতে গেলে বন্দিদের সঙ্গে কারারক্ষীদের সংঘর্ষ হয়। আহত হন ৬ কারারক্ষী। প্রাপ্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েই মূলত বন্দিরা এ কাণ্ড ঘটিয়েছিল।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close