Featuredঘর মন জানালা

দাম্পত্যের সুখ আপনার হাতে

সুখী সংসার সবারই কাম্য। অনেকে বিয়ে করেন নিজের পছন্দের মানুষকে, আবার অনেকে পারিবারিক আয়োজনে। পছন্দের মানুষকে পেয়ে যে আপনার দাম্পত্য জীবন সুখে কাটবে নাও হতে পারে, আবার পারিবারিক আয়োজনে বিয়ে করলে সুখে কাটাতে পারেন বিবাহিত জীবন। প্রেম বা পরিবারিক আয়োজনে বিয়ে যেটিই হোক না কেন দাম্পত্য জীবন সুখে রাখার চাবি-কাঠি কিন্তু আপনার হাতে। সংসারে শান্তিতে মেলে মানসিক প্রশান্তি।

সংসার সুখের হয় রমণীর গুণে’ এ প্রবাদের দিন শেষ, দুজনরই থাকতে হবে গুণ। এক হাতে যেমন তালি বাজে না, তেমনি একার গুণে সংসারে সুখ আসে না। ভাবছেন, প্রিয় বা প্রিয়তমার মন জয় করব কীভাবে? উপায় সহজ। বাড়তি টাকা পয়সা নয়, বাড়তি সময় জুটালেই চলবে।

পাঠক চলুন জেনে নেই উপায়গুলো-

আপনার সঙ্গীকে বলবেন, আমি তোমাকে ভালোবাসি। অন্ততপক্ষে সপ্তাহে ১০ বার এ তিন শব্দ আপনাকে আপনার সঙ্গীকে শোনাতে হবে।

প্রিয়তম বা প্রিয়তমাকে অন্ততপক্ষে সপ্তাহে ১০ বার চুমু দেবেন আর ৭ বার জড়িয়ে ধরুন বা আলিঙ্গন করুন। শুধু আলিঙ্গনে সীমিত রাখলেই হবে না, প্রতি সপ্তাহ তিনবার শারীরিক সম্পর্কে জড়াতে হবে। তবে উভয়ের সম্মতি থাকতে হবে। জোর করে প্রিয়তম বা প্রিয়তমার সম্মতি আদায় করা অনিষ্টকর।

সঙ্গীর সঙ্গে কখনও প্রতারণার আশ্রয় নেবেন না। দুজন দুজনকে সম্মান করবেন, সহযোগিতা করবেন। আর যদি কখনও ভুল করে ফেলেন তাহলে অবশ্যই দুঃখিত বলেন। ক্ষমা চাওয়া ও করার মাঝে সম্মান বাড়ে, কমে না। এতে আপনার ভালোবাসা আরও গাঢ় হবে।

আমারই তো স্ত্রী বা স্বামী। বাড়তি আর কী দেবো? এ কথা মাথায় আনবেন না। দেওয়া-নেওয়ার অনেক কিছু রয়েছে। হয়তো কোথাও বেরুতে গেছেন, আপনার স্বামী বা স্ত্রীর জন্য অবশ্যই কিছু আনবেন হোক না ‍তা কমদামী কিছু। হতে হবে উদারমনা। কোনো সিদ্ধান্ত নিতে গেলে দুজনকে দুজনার কথা ভাবতে হবে। কোনো বিষয়ে মতের মিল না হলে তা  সোজা-সাপটা বলে দেবেন, আপনি কী চান, কেন চান। তবে মনে রাখবেন, আপনার চাওয়াও যেমন, আছে তেমনি আপনার সঙ্গীরও আছে।

আপনার সঙ্গীর কোনো আচরণে আপনি আহত হয়েছেন, তাই বলে অন্যের কাছে তার সমালোচনা কখনই করবেন না। এতে আপনার প্রতি তার তার শ্রদ্ধাবোধ কমে যাবে। সংসার দুজনের, কারও একার নয়। তাই সংসারের দায়িত্ব দুজনকে সামলাতে হবে সমানভাবে। রান্না-বান্নার কাছে সহায়তা করতে হবে একে অপরকে। এতে দু’জনরই সময় যেমন বাঁচবে, তেমনি বাড়বে দু’জনের সময় কাঁটানোর সুযোগ।

বাড়িতে-অফিসে কাজ করতে করতে একঘেঁয়েমি ধরে যায়। তাই প্রয়োজন খানিকটা অবকাশ। তাই প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে অন্ততপক্ষে বছরে দুবার ঘুরে আসুনে সুন্দর কোথাও থেকে। দাম্পত্য সুখের এসব পরামর্শ কোনো মনোবিজ্ঞানী বা সম্পর্ক বিশেষজ্ঞের দেওয়া হয়। বাস্তব অভিজ্ঞতার আলোকে উঠে উসেছে এসব পরামর্শ।

যুক্তরাষ্ট্রের এক হাজার দম্পত্তি দিয়েছেন পরামর্শগুলো। ওয়ানপোল.কম নামের একটি ওয়েবসাইটভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ৩০ জানুয়ারি থেকে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে এ গবেষণা চালানো হয়েছে। ওয়ানপোল.কমের এক মুখপাত্র জানান, যেকেউ বিয়ে করতে পারেন কিন্তু বিয়েকে সুখী করতে হলে অনেক প্রতিশ্রুতি ও প্রচেষ্টা চালাতে হয়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close