Featuredঅন্য পত্রিকা থেকে

যুক্তরাজ্যের শোকেস ফেয়ারে যাচ্ছে জকিগঞ্জ সরকারি স্কুল

সাব্বির আহমদ: স্কুলে লেখাপড়ার পাশাপাশি একটি বাগানও আছে। যে বাগানে শিক্ষার্থীরা কাজ করে ফসল উৎপাদন করছে। তাদের উৎপাদিত টমেটো ও বেগুন আবার নিজেরাই সংগ্রহ করছে শিক্ষার্থীরা। এরপর সেগুলো বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের এমন কাজ নিয়ে এ বছরের জুলাইয়ে যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত হবে এডুকেশন ২০২০ শোকেস ফেয়ার। পাঁচ মহাদেশের পাঁচটি স্কুল এতে অংশ নেবে। এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে যাচ্ছে এই স্কুলটি।
অংশ গ্রহণকারী স্কুলগুলো তাদের নিজস্ব উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন করবে এতে। কমনওয়েলথের সহযোগিতায় ব্রিটিশ কাউন্সিলের মাধ্যমে এডুকেশন ২০২০ শোকেস ফেয়ারের চলছে এখন ক্ষণ গণনা। নিজ দেশের জলবায়ু উপযোগী ফসল উৎপাদন নিয়ে  গত কয়েকমাস থেকে স্কুলগুলো পারষ্পরিক যোগাযোগ করেছে। প্রত্যেক স্কুলের বাগান থেকে নিজ দেশের আবহাওয়া অনুয়ায়ী ফসল উৎপাদন করে তা প্রদর্শনী ও পরিবেশ ও জলবায়ু সম্পর্কে সচেতন করতেই এই উদ্যোগ।

ব্রিটিশ কাউন্সিলের কানেকটিং ক্লাসরুম প্রজেক্টের অধীনে এই শোকেস ফেয়ারে যেতে প্রস্তুতি নিয়েছে জকিগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের কানেকটিং ক্লাসরুমের অ্যাম্বাসেডর লিটন চন্দ্র দেবনাথ বাংলানিউজকে জানান, স্কুলের শিক্ষার্থীরা তাদের উদ্ভাবনী কাজের একটি অংশ হিসেবে জুলাইয়ে শোকেস ফেয়ারের জন্য বাগান তৈরী করেছে। বাগানের পরিচর্যা ও ফসল উৎপাদন করে জুলাইয়ে তারা যুক্তরাজ্যে তা প্রদর্শন করবে।

তিনি জানান, এশিয়া মহাদেশের মধ্যে শুধুমাত্র জকিগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় এবং অন্য চারটি মহাদেশ থেকে এভাবে আরও চারটি স্কুল তাদের উদ্ভাবনী কাজ নিয়ে এতে অংশ নিচ্ছে। লিটন চন্দ্র দেনবনাথ আরও জানান, পর্যায়ক্রমে প্রতিটি মহাদেশে মেলাটি আয়োজনের জন্য ফান্ড দেবে কমনওয়েথ। তবে প্রথমবারের মত বাংলাদেশ থেকে জকিগঞ্জ সরকারি স্কুল এই মেলায় যাচ্ছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close