রাজনীতি

সিলেট ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন

শীর্ষবিন্দু নিউজ: সিলেট এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন করে দিয়েছেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। মঙ্গলবার রাতে তার গুলশানের কার্যালয়ে এই দুই জেলার নেতাদের নিয়ে তিনি বৈঠক করেন। রাত সোয়া নয়টায় শুরু হওয়া বৈঠক শেষ হয় রাত সারে এগারোটায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির নতুন কমিটির আহবাকের দায়িত্ব পেয়েছেন হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি এবং সদস্য সচিব জহিরুল হক খোকন।  এবং সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়কের দায়িত্ব পেয়েছেন অ্যাডভোকেট নুরুল হক। বৈঠকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপির দফতরের দায়িত্বে থাকা যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, শমসের মুবিন চৌধুরী, সালাহউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এবং সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি এম ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাকসিনা রুশদীর লোনা, সহ-সভাপতি বিল্লাল হোসেন সেলিম, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুল গফফার, সিলেট সদর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক একে এম তারেক কালাম ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট হারুন অর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক নাসির উদ্দিন আহমেদ, সদর থানা বিএনপির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামল, পৌর বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলামসহ প্রায় দুই শতাধিক তৃণমূল নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্র জানায়, আগামী এক মাসের মধ্যে দুই জেলার পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সূত্র আরো জানায়, দুই জেলার নেতাদের সমঝোতার মাধ্যমে কমিটি গঠন করা সম্ভপর না হলে কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন করতে হবে। অপর একটি সূত্র জানায়, সিলেটের নতুন আহবায়ক কমিটিতে অধিকাংশ কর্মীরা অসন্তোষ রয়েছেন। এটি দল পুনর্গঠনের প্রক্রিয়ার অংশ বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির সদস্য রফিক সিকদার বলেন, সংগঠনকে গতিশীল করতে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী একমাসের মধ্যে এই কমিটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবে। উপস্থিত নেতাকর্মীদের কথা শেষে সমাপনি বক্তব্য বিএনপি প্রধান খালেদা জিয়া বলেন, বর্তমান অবৈধ ও জনবিছিন্ন শাসক গোষ্ঠীর পতন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

বর্তমান সরকারের যে কোনো সময় পতন ঘটবে বলেও মন্তব্য করেন খালেদা। তিনি বলেন, দেশবাসীর পাশাপাশি বিদেশি কোনো রাষ্ট্রই বর্তমান অবৈধ স্বৈরচারী সরকারের উপর আস্থা নেই। এমনকি তাদেরকে কেউ বৈধ সরকার হিসেবে স্বীকৃতিও দেয়নি। মঙ্গলবার রাত ৯টা ৫ মিনিট থেকে প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে সিলেট ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে বিএনপি’র চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, আমাদের সামনে চলার সময় অত্যন্ত কঠিন। তাই ঘরে বসে মোবাইল ফোনে আন্দোলনের নির্দেশ দেয় এমন নেতা নয়, আগামীতে মাঠে থেকে আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিতে সক্ষম এমন তরুণদেরকে নেতৃত্বে দেখতে চাই। মত বিনিময়ের তৃণমূল সূত্র জানায়, আমরা টাকা পয়সা চাই না। তবে আন্দোলন সংগ্রাম করতে গিয়ে যদি কোনো আইনী লড়াইয়ের প্রয়োজন পড়ে তখন যেন  দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা আমাদের মতো তৃণমূলের প্রতি নজর রাখে সে বিষয়ে মাননীয় নেত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করেছি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close