ইউরোপ জুড়ে

ওডেসা নিরাপত্তা বাহিনীকে দোষলেন ইউক্রেন প্রধানমন্ত্রী

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলের শহর ওডেসাতে একটি ভবনে আগুন ধরে কমপক্ষে ৪০ জন প্রাণ হারায়। এর বেশিরভাগই ছিল রাশিয়াপন্থি। সহিংসতা প্রতিহত করতে ব্যর্থ হওয়ায় ওডেসার নিরাপত্তা বাহিনীকে দোষারোপ করেছেন ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী আর্সেনি ইয়াতসেনিউক। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। ঘটনার পূর্ণ ও স্বতন্ত্র তদন্ত করা হবে বলে ইয়াতসেনিউক বিবিসিকে জানিয়েছেন।

ওডেসা সহিংসতা নিয়ে তিনি বলেন, সহিংসতা বন্ধে কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় আমি ব্যক্তিগতভাবে নিরাপত্তা সেবাদানকারী বাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা প্রয়োগকারী কার্যালয়কে দায়ী করবো। তিনি আরও বলেন, এসব নিরাপত্তা বাহিনী অকার্যকর ও তারা আইন লঙ্ঘন করে। ওডেসা এলাকার পুলিশ প্রধানকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে তিনি জানান। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে প্রসিকিউটরের কার্যালয়। ইয়াতসেনিউক জানান, পুলিশ প্রধান থেকে শুরু করে তাদের সব ডেপুটি ও প্রত্যেক পুলিশ কর্মকর্তার ওপর তদন্ত চালানো হবে।

শুক্রবার ওডেসাতে রাশিয়াপন্থি প্রতিবাদকারীরা ইউক্রেনপন্থীদের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার পর ট্রেড ইউনিয়ন হাউজে অবস্থান নেয়। সেখানে আগুন লেগে আনুমানিক ৪২ জন মারা যায়। অস্থিতিশীলতা উস্কে দেয়ার জন্য রাশিয়া ও রাশিয়াপন্থিদের দায়ী করেছেন ইয়াতসেনিউক। তিনি অভিযোগ করেন, তারা ইউক্রেন ও ইউক্রেনের স্বাধীনতা নিশ্চিহ্ন করার জন্য সত্যিকারের যুদ্ধের নকশা করছেন। ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের শহরগুলোতে অনেক ভবনে রাশিয়াপন্থিদের অবস্থানের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমরা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ হারাইনি। স্থানীয় বাসিন্দাদের ওপর অনেক কিছু নির্ভর করবে। তারা শান্তি ও নিরাপত্তা সমর্থন করে কিনা তার ওপর।

এদিকে স্লোভিয়ানস্ক শহরের চারপাশে অবস্থান নিয়েছে ইউক্রেন বাহিনী। বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাত থেকে উত্তরাঞ্চলের শহরগুলো মুক্ত করতে তারা পরিচালনা করছে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান। রাতে কোস্তিয়ান্তিনিভকা ও মারিউপোলে গোলাগুলি হয়েছে বলে খবর আসে। সেখানে বিদ্রোহীদের একটি তল্লাশি চৌকি ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়। আর ইউক্রেন বাহিনী সরকারি কার্যালয়গুলো পুনরায় দখল করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শনিবার ক্রামাতোরস্ক শহরে ব্যাপক সংঘাত হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন, সেনাবাহিনী সেখানকার একটি টেলিভিশন টাওয়ারের পুনর্দখল নিয়েছে। শহরটিতে কমপক্ষে দু’জন মারা গেছে বলে জানিয়েছে কিয়েভ কর্মকর্তারা। তবে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের প্রতিবেদনে মৃতের সংখ্যা ১০ বলে দাবি করা হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close