অর্থনীতি

চালের দাম বেড়েছে শতকরা ১৯ টাকা

শীর্ষবিন্দু নিউজ: এক বছরের ব্যবধানে দেশে সব ধরনের চালের দাম ১৩ থেকে ১৯ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে বলে টিসিবির হিসাবে বলা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মাঝারি মানের চালের দাম। এরপরেই রয়েছে সরু ও মোটা চালের দাম বাড়ার হার।  

সরকারের বাণিজ্যিক সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসেবে, গত বছর ২৩ মে’র তুলনায় এবছরের ২৩ মে তে সরু চালের দাম বেড়েছে ১৭ শতাংশ। সরু চাল বলতে সাধারণতে নাজিরশাইল ও মিনিকেট চাল বোঝায়। একবছর আগে এসব চাল প্রতি কেজি ৩৪ থেকে ৪৮ টাকায় কেনা গেলেও এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫৬ টাকা কেজি দরে।

মাঝারি মানের চালের দাম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি ১৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ। এসব চালের মধ্যে লতা, পায়জাম, বিআর ২৮ ইত্যাদি রয়েছে। একবছর আগে ৩৪ থেকে ৩৬ টাকা কেজি দরে এসব চাল কেনা গেলেও বর্তমানে তা কিনতে হচ্ছে ৩৯ থেকে ৪৪ টাকায়। আর মোটা চালের দাম বেড়েছে ১২ দশমিক ৯০ শতাংশ। এসব চালের মধ্যে স্বর্ণা, চায়না ইরি ইত্যাদি রয়েছে। 

কারওয়ান বাজারের চাল ব্যবসায়ী আবু বকর সিদ্দিক বলেন, সরকার মিল মালিকদের কাছ থেকে বেশি দামে চাল কেনায়, ব্যবসায়ীরাও বেশি দামে কিনতে বাধ্য হচ্ছে। যে কারণে খুচরা পর্যায়ে দাম বেশি পড়ছে। এছাড়া হরতাল, অবরোধের সময় পরিবহন খরচ বেড়েছিল। নির্বাচনের পর সেটা কিছুটা কমেছে, কিন্তু তুলনামূলকভাবে এখনো বেশি।

চলতি অর্থবছরে মোট তিন কোটি ৫৯ লাখ টন খাদ্য (তিন কোটি ৪৬ লাখ টন চাল এবং ১৩ লাখ টন গম) উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। গত অর্থবছরের চেয়ে এটা ২ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি। এছাড়া চলতি বছরে প্রায় ৪৮ লাখ হেক্টর জমিতে এক কোটি ৯০ লাখ টন বোরো উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল। অনুকূল আবহাওয়া থাকায় এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।। অপরদিকে খাদ্য অধিদপ্তর চলতি বোরো মৌসুমে ৩১ টাকা দরে ১০ লাখ টন চাল সংগ্রহের কাজ শুরু করেছে। আগামী ৩১ অগাস্ট পর্যন্ত চাল কেনা চলবে।

এদিকে দেশে সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত বোরো ধান কাটা শেষে নতুন ধানের চাল বাজারে এলেও চালের দাম কমার কোন লক্ষণ নেই। গত এক বছরে চালের দাম এতোটা চড়লেও এসময়ে ধান উৎপাদনে খরচ ততোটা বাড়েনি বলে জানিয়েছেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। তারা বলছেন, এই সময়ে ধান উৎপাদনের অন্যতম উপাদান বীজ, সার, কীটনাশক ও সেচ খরচ বাড়েনি। আবার অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বেড়েছে, অর্থাৎ বাজারে সরবরাহ বেড়েছে দেশের এই প্রধান ভোগ্যপণ্যের। অথচ দাম বেড়েছে চালের।

তবে চালের দাম বাড়ার পিছনে যুক্তি রয়েছে ব্যবসায়ীদের। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে দেশে যে রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা দেয়-টানা হরতাল, অবরোধ, জ্বালাও পোড়াওয়ের ঘটনা ঘটে; সেই সময় পরিবহন খরচ প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে যায়। আবার অন্যান্য পণ্যের দামও কিছুটা বাড়ে, যা পরে আর কমেনি।

চাল ব্যবসায়ী কুষ্টিয়ার রশিদ এগ্রো’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুর রশিদ বলেন, চালের দাম বিভিন্ন কারণেই বেড়েছে। আমন উৎপাদন কম হয়েছে। আবার বোরোতে মোটা ধানের চাষ কম হয়েছে। এছাড়া বছরব্যাপী নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যে সময় পার করতে হয়েছে সবাইকে। এসব কিছুরই প্রভাব পড়েছে বাজারে। তবে বর্তমানে যে দামে বিভিন্ন জাতের চাল বিক্রি হচ্ছে এর চেয়ে আর দাম বাড়বে না।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close