অর্থনীতি

কৃষিতে বরাদ্দ থাকছে ১২ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটে তেমন কোনো পরিবর্তন নেই কৃষি খাতে। এবার জাতীয় বাজেটে এ মন্ত্রণালয়ের জন্য ১২ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা প্রাথমিকভাবে বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। বুধবার কৃষি মন্ত্রণালয়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

কৃষি দেশের অন্যতম প্রধান খাত হওয়া সত্ত্বেও চলতি বছর এ মন্ত্রণালয়ের জন্য বাজেট বরাদ্দের আকার বৃদ্ধি না পাওয়ায় সার্বিক কৃষিজ উৎপাদনে প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করছেন ‍বাজেট ও উন্নয়ন বিশেষজ্ঞরা। কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও বীজ উইংয়ের মহাপরিচালক আনোয়ার ফারুক বলেন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ ও গবেষণার দিকে বেশি গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। কৃষি মন্ত্রণালয়ের সব কাজই চলমান। তাই বাজেটের পরিবর্তন তেমনভাবে দেখা যায় না। এটাই স্বাভাবিক।

তিনি জানান, গবেষণার মাধ্যমে নতুন জাত উদ্ভাবনের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে স্বল্পমেয়াদী, ফলন বেশি, প্রতিকূল আবহাওয়া, লবণাক্ততা, খরা ও জলাবদ্ধতা মোকাবিলা করতে সক্ষম এমন জাত উদ্ভাবনের গবেষণায় বরাদ্দ বেশি রাখার বিষয়টি বিবেচনা করা হয়েছে। বাজেটের আকার সম্পর্কে তিনি বলেন, জাতীয় বাজেটের আকারের সঙ্গে কৃষি মন্ত্রণালয়ের বাজেটের আকার ঠিক সেই হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে না এটা ঠিক। তবে কমছে এটা বলা যাবে না।

অতীতের কয়েক বছরের জাতীয় বাজেট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ২০১২-১৩ অর্থবছরের জাতীয় বাজেট মোট আকার ছিল এক লাখ ৯১ হাজার ৭৩৮ কোটি টাকা। এর মধ্য কৃষি মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দ ছিল ১৫ হাজা‍র ১৮৪ কোটি টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে জাতীয় বাজেটের মোট আকার বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকায়। কিন্তু কৃষি মন্ত্রণালয়ের বাজেট কমে হয় ১২ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা হয়। এই ধারাবাহিকতায় ২০১৪-১৫ অর্থবছরেও ‍জাতীয় বাজেটের আকার বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু কৃষি মন্ত্রণালয়ের বাজেট অপরিবর্তিত থাকছে।

বুধবার কৃষি মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৪-১৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কৃষি মন্ত্রণালয়ের মোট বরাদ্দের মধ্যে ভর্তুকিতে ৯ হাজার কোটি টাকা, কৃষি পুনর্বাসন সহায়তায় ৬৭ কোটি টাকা, মেরামত ও সংরক্ষণে ১৫ কোটি টাকা, মোট সম্পদ সংগ্রহ ও ক্রয়ে ৮ কোটি টাকা, অন্যান্যতে  ৪ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। সূত্র জানায়, রাজস্ব বাজেটে অর্থায়নের মাধ্যমে উন্নয়ন কর্মসূচি গত বছরের চেয়ে এ বছর কিছুটা কমছে। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ছিল ২৮০ কোটি টাকা, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ধরা হয়েছে ২২০ কোটি টাকা।

উন্নয়ন প্রকল্পে বাজেটের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ছিল ১ হাজার ৩৩৫ কোটি টাকা, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ধরা হয়েছে ১ হাজার ৪৭৪ কোটি টাকা। কৃষি মন্ত্রণালয়ের বাজেট পর্যালোচনা করে দেখা যাচ্ছে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে গত তিন বছরের চেয়ে এবার আয়ের পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১২-১৩ অর্থবছরে আয় ছিল ৮ কোটি টাকা, ২০১২-১৪ অর্থবছরে ৯ কোটি টাকা। আর ২০১৪-১৫ অর্থবছরে আয় ধরা হয়েছে ১০ কোটি টাকা।

এছাড়া এ মন্ত্রণালয়ের মোট বাজেটের বরাদ্দের মধ্যে বেতন, ভাতা, সরবরাহ সেবা, অবসর ভাতাসহ নানা খরচ রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ ও বাজেট পলিসি পরিচালক ও অধ্যাপক ড. মো. আবু ইউসুফ বলেন, কৃষিতে বাজেটের আকার বৃদ্ধি পাওয়া উচিত। কেননা এটি অনুন্নয়ন খাত। গবেষণা, কৃষকদের ভর্তুকিসহ বিভিন্ন আর্থিক সহযোগিতা দিতে হয় কৃষি মন্ত্রণালয়কে। এ খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি না পেয়ে কৃষকদের ওপর যদি চাপ পরে তাহলে ওই চাপটি কিন্তু গিয়ে পড়বে উৎপাদনের ওপর।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close