অন্য পত্রিকা থেকে

সেজান, ম্যাংগোলি, প্রাণে যাচ্ছিল ফরমালিন মেশানো পাল্প

নিউজ ডেস্ক: এবার শুধু আম বা ফলেই নয়, আমের জুস বানানোর পাল্পেও ফরমালিন পাওয়া গেছে রাজধানীতে চলা ফরমালিন বিরোধী অভিযানে। বৃহস্পতিবার বিকেলে সেজান, ম্যাংগোলি ও প্রাণ কোম্পানিতে সরবরাহের জন্য ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়ার সময় ডেমরায় ১৪ হাজার লিটার ফরমালিন মেশানো আমের পাল্প, ১১২ ড্রাম আমের প্লামপিং জুসসহ একটি ট্রাক আটক করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ ঘটনায় সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান কুষ্টিয়া ভেগান অ্যাগ্রো লিমিটেডকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। কুষ্টিয়া ভেগান অ্যাগ্রো থেকে বহন করা ফরমালিন মিশ্রিত এ সব পাল্প ও আমের জুস নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইলের এএসটি বেভারেজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হচ্ছিল। সেখান থেকে এ সব জুস সেজান, ম্যাংগোলি ও প্রাণসহ বিভিন্ন কোম্পানিতে পাঠানো হতো বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে, পাল্প আটকের পর ডেমরার সুলতানা কামাল সেতুর পশ্চিম পাড়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের চেকপোস্টে এ ম্যাঙ্গো জুসের পাল্প ধ্বংস করা হয়। এ বিষয়ে ডেমরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জহিরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ‘ফরমালিন মুক্ত চেকপোস্ট’-এ বিএসটিআইএয়ের প্রতিনিধি  ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারকের উপস্থিতিতে বিভিন্ন ফলবাহী যানবাহনে তল্লাশির সময় পাল্পবাহী ট্রাকটিতে (যশোর ট-১১-২১৬০) তল্লাশি করা হয়।

এ সময় ওই ট্রাকের মধ্যে থাকা ১৪ হাজার লিটার আমের পাল্প, ১১২ ড্রাম আমের প্লামপিং জুসের নমুনা সংগ্রহ করে তাৎক্ষণিকভাবে পরীক্ষা করা হয়। এতে ওই আমের প্লামপিং জুস থেকে ১৩৪.৮২ মাত্রার ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক শিলু রায়ের নির্দেশে  প্লামপিং আমের জুস ধ্বংস করা হয় ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানটিকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ বিষয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক শিলু রায় জানান, ফরমালিন মিশ্রিত এ সব আমের প্লামপিং জুস কুষ্টিয়া ভেগান অ্যাগ্রো লিমিটেড থেকে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইলের এএসটি বেভারেজ নামে একটি প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হচ্ছিল। ডেমরা থানার অপারেশন অফিসার মতলুবুল আলম বাংলানিউজকে জানান, আটক আমের প্লামপিং জুসগুলো এএসটি বেভারেজ থেকে সেজান, ম্যাংগোলি, প্রাণসহ নামকরা বিভিন্ন কোম্পানিতে সরবরাহ করা হতো।

এদিকে, এর আগে সকাল নয়টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ কানসাট থেকে আসা (ঢাকা মেট্রো ট-১৬-৪২৪৭) একটি ট্রাকের ৫০৬ ঝুড়ি আম ও দিনাজপুর থেকে আসা (ঢাকা মেট্রো ড-১১-২০৬৮) একটি ট্রাকের ১১২ ঝুড়ি লিচুতে ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়। এ সময় পরীক্ষায় আমে ১২.৮৮ এবং লিচুতে ১.৩৭ মাত্রায় ফরমালিন পাওয়া যায়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক কাজী মাহবুব উর রহমানের নির্দেশে ২৫০ মণ আম ও এক লাখ ১২ হাজার পিস লিচু রাস্তার পাশে ফেলে বুলডোজারের মাধ্যমে ধ্বংস করা হয়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close