জাতীয়

ভারতের কারাগারে নূর হোসেন

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: কলকাতায় গ্রেপ্তার বাংলাদেশের সাত খুনের আসামি নূর হোসেনকে কারাগারে পাঠিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের আদালত। গত ১৪ জুন গ্রেপ্তারের পর অবৈধ অনুপ্রবেশ এবং অবৈধ অস্ত্র রাখার মামলায় তাকে আট দিন হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল ভারতের পুলিশ।

সেই হেফাজতের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর সোমবার তাকে উত্তর চব্বিশ পরগনার মুখ্য হাকিম আদালতে পাঠানো হয়। মুখ্য হাকিম সুমিত্রা রায় আসামি নূর হোসেনকে ১৪ দিনের বিচার বিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দেন। যার অর্থ এই সময়ে আসামি কারাগারে থাকবেন। নূর হোসেনের সঙ্গে গ্রেপ্তার সুমন খান ও অহিদুর রহমান শামীমকেও কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ভারতে গ্রেপ্তার হওয়া নূর হোসেনকে ফেরত পেতে চাইছে বাংলাদেশ। নয়া দিল্লি ইঙ্গিত দিয়েছে, বাংলাদেশ অনুরোধ জানালে তা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা হবে। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর নূর হোসেনের বিরুদ্ধে আরেক কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ সাতজনকে অপহরণের পর হত্যার অভিযোগ রয়েছে। এই মামলার তিনি প্রধান আসামি।

বিচারক সুমিত্রা রায় এই বিষয়ে বলেছেন, নূর হোসেনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর আলোচনাটি তার নজরেও এসেছে। তাকে ফেরত দেয়া হবে কি না, তা পুরোপুরি সরকারের সিদ্ধান্তের বিষয়, তা আদালতের আওতার বিষয় নয় বলেছেন তিনি। গত ২৭ এপ্রিল কাউন্সিলর নজরুল ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজন অপহৃত হওয়ার তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে তাদের লাশ ভেসে ওঠে। অপহরণের পরপরই নজরুলের পরিবারের পক্ষ থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে একটি মামলা করা হয়। মামলার পর অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ মাধ্যমে বক্তব্য দিলেও অপহৃতদের লাশ উদ্ধারের পর লোকচক্ষুর আড়ালে চলে যান নূর হোসেন।

তার সীমান্ত অতিক্রমের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর বাংলাদেশ পুলিশ ইন্টারপোলের শরণ নেয়। এর মধ্যেই গত ১৪ জুন নূর হোসেনকে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের কাছে ধরা পড়েন। নূর হোসেন র‌্যাবকে ৬ কোটি টাকা দিয়ে সাতজনকে হত্যা করিয়েছে বলে নিহত কাউন্সিলর নজরুলের শ্বশুর শহীদুল ইসলামের অভিযোগ। নূর হোসেন ভারতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাকে দ্রুত ফিরিয়ে আনতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন শহীদুল। তা না হলে আন্দোলনের হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

আরও দেখুন...

Close
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close