গ্যালারী থেকে

যেভাবে ফাইনালে আর্জেন্টিনা-জার্মানি

ওয়াল্ড কাপ ডেস্ক: তিনদিন পরেই পর্দা নামছে ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্বের আসর বিশ্বকাপের বিশতম আসরের। বাকি কেবল দু’টো ম্যাচ, ফাইনাল আর তৃতীয় স্থান নির্ধারণী। ফাইনালে খেলছে ২৪ বছর পর আর্জেন্টিনা এবং তিন বারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী লড়াই হবে হলুদাভ ব্রাজিল আর কমলার নেদারল্যান্ডসের মধ্যে। ৩২টি দলের অংশগ্রহণে এ বিশ্বকাপের গত ৬২ ম্যাচ সাক্ষী হয়েছে অনেক ঘটনা আর অঘটনের। সবকিছু ছাপিয়েই এখন সবার নজর মারাকানা স্টেডিয়ামের দিকে, আগামী ১৩ জুলাই এ মাঠেই যে লড়বে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা আর মুলার-ক্লোসাদের জার্মানি।

পেছন ফিরে দেখা যাচ্ছে, বিশ্বকাপের এবারের আসরে গ্রুপ পর্বেই বিদায় নিতে হয়েছে গত আসরেরই চ্যাম্পিয়ন স্পেন, তিনবারের চ্যাম্পিয়ন ইতালি, ১৯৬৬ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে। নকআউটে বিদায় নিতে হয় আরেক চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়েকেও। এ বিশ্বকাপে উত্থান ঘটে কোস্টারিকা-কলম্বিয়ার মতো অপেক্ষাকৃত দুর্বল দু’টি দলের। দু’টি দলই অনেক বাঘা বাঘা দলকে কাবু করে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলে। গ্রুপ পর্বে দু’একটি অঘটন ঘটলেও উল্লেখযোগ্য ঘটনা ছিল, ২৪ জুন ইতালি-উরগুয়ের ম্যাচে লুইস সুয়ারেজের কামড়কাণ্ড। ঘটনাটি এবারের বিশ্বকাপের এখন পর্যন্ত একমাত্র কেলেঙ্কারি। যদিও এ ঘটনায় সুয়ারেজকে চার মাসের জন্য সবধরনের ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ করেছে ফিফা।

এ বিশ্বকাপের আরেকটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা, ব্রাজিলের পোস্টারবয় খ্যাত নেইমারের বিশ্বকাপ মিশন শেষ হওয়া। কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়ার জুনিগারের রাফ ট্যাকলে মেরুদণ্ডের তৃতীয় কশেরুকায় আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন নেইমার। এছাড়া, ইনজুরির কারণে সেমিফাইনাল মিস করেন আর্জেন্টিনার অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়াও। প্রথম সেমিফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে ৭-১ গোলে ব্রাজিলের বিধ্বস্ত হয়ে বিশ্বকাপ  থেকে বিদায় নেওয়ার ঘটনাও ছিল উল্লেখযোগ্য। এ পর্যায়ে চোখ বুলানো যাক দুই ফাইনালিস্টের দুর্গম পথ পাড়ি দেওয়ার দিকে।

বিশ্বকাপে ‘এফ’ গ্রুপভুক্ত হয়ে খেলতে আসে আর্জেন্টিনা। তাদের গ্রুপের অপর তিন দল ছিল- বসনিয়া-হার্জেগোভিনা, ইরান ও আফ্রিকান সুপার ঈগল নাইজেরিয়া। ১৫ জুন প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া বসনিয়ার বিপক্ষে মাঠে নেমে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে দু’বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। ওই ম্যাচে ২-১ গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আর্জেন্টাইনরা। দ্বিতীয় ম্যাচে একমাত্র গোলে জয় পায় ইরানের বিপক্ষে। আর গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে নাইজেরিয়ার বিপক্ষে ৩-২ গোলে জয় নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউট পর্বে ওঠে আর্জেন্টিনা।

১ জুলাই নকআউটে দলটি মুখোমুখি হয় গ্রুপ ই’র রানারআপ সুইজারল্যান্ডের। অতিরিক্ত সময়ের একমাত্র গোলে জয় পেয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে আর্জেন্টাইনরা। ৫ জুলাই কোয়ার্টার ফাইনালে বেলজিয়ামকে ১-০ গোলে হারিয়ে নিশ্চিত করে সেমিফাইনাল। আর বুধবার রাতে সেমিফাইনালে পেনাল্টি শুটআউটে ৪-২ গোলে নেদারল্যান্ডসকে বিদায় দিয়ে দুই যুগ পর ফাইনালে ওঠে লিওনেল মেসি-অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া-গঞ্জালো হিগুয়েন-সার্জিও রোমেরো-সার্জিও আগুয়েরোদের আর্জেন্টিনা।

ইউরোপীয় জায়ান্ট জার্মানির বিশ্বকাপ শুরু এবং একইসঙ্গে ফাইনালে ওঠার দৃশ্যপট দুর্দান্ত। গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পর্তুগালকে ৪-০ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে দলটি। দ্বিতীয় ম্যাচে ঘানার সঙ্গে ড্র দলটির বিশ্বকাপের বাকি ম্যাচগুলোর ভবিষ্যৎ পারফরম্যান্স নিয়ে চিন্তায় পড়ে বিশ্বজুড়ে ভক্ত-সমর্থকরা। আবার তৃতীয় ম্যাচেও অপেক্ষাকৃত দুর্বল যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে একমাত্র গোলে জয় নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউট পর্বে ওঠে তিন বারের চ্যাম্পিয়নরা।

৩০ জুন নকআউটে এইচ গ্রুপের রানারআপ আলজেরিয়ার সঙ্গে নির্ধারিত সময়ে গোলশূন্য থাকে জার্মানরা। অতিরিক্ত সময়ে ২-১ গোলে জয়ের মাধ্যমে কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠে তারা। ৪ জুলাই সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে একমাত্র গোলে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে জার্মানরা। আর মঙ্গলবার রাতে স্বাগতিক ব্রাজিলকে ৭-১ গোলে বিধ্বস্ত করে চর্তুথবারের মতো শিরোপা জয়ের প্রত্যাশায় ফাইনাল নিশ্চিত করে জার্মানরা। আগামী ১৩ জুলাই রিওডি জেনিরোর মারাকানা স্টেডিয়ামে ফাইনালে লড়বে এ দু’দল। তার আগে,  ১২ জুলাই ব্রাসিলিয়ার এস্তাদিও নাসিওনাল স্টেডিয়ামে তৃতীয় স্থান নির্ধারণীতে মুখোমুখি হবে ব্রাজিল-নেদারল্যান্ডস।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close