জাতীয়

বাংলাদেশের অপার সম্ভাবনা সমুদ্র সম্পদকে কাজে লাগানোর আহ্বান

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: সমুদ্র সম্পদের অপার সম্ভাবনাকে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নকে নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জন্য তিনি সমুদ্র সম্পদকে কাজে লাগাতে সবার প্রতি আহ্বান জানান। সোমবার সকাল ১১টায় রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ইন্টারন্যানাশলাল ওয়ার্কশপ: ব্লু-ইকোনমি শীর্ষক দুদিনব্যাপী আন্তর্জাতি কর্মশালা উদ্বোধনের সময় তিনি এ আহ্বান জানান।

বাংলাদেশসহ ২০টি দেশ এই কর্মশালায় অংশ নিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সম্পূর্ণ একক প্রচেষ্টায় দুই দিনব্যাপী এ কর্মশালাটি আয়োজন করা হয়েছে। তিনি বলেন, ভূকেন্দ্রিক উন্নয়নের পাশাপাশি সমুদ্রভিত্তিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড আমাদের সামনে খুলে দিতে পারে উন্নয়নের নতুন দিগন্ত। এই ক্ষেত্রে সমুদ্র সম্পদের অপার সম্ভাবনাকে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নকে নিশ্চিত করতে হবে।

কর্মশালার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। কর্মশালায় আরো উপস্থিত ছিলেন- অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, মৎস্য মন্ত্রী সাইফুল হক, নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান প্রমুখ। দুদিনব্যাপী আন্তর্জাতিক কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সুইডেন, নেদারল্যান্ডস, ফিলিপাইনস, থাইল্যান্ড, ওমান, ভারত, ইরান, কেনিয়া, তাঞ্জানিয়া, মরিশাস, চীন, জাপান, কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, সিসেল, বাংলাদেশ।

সমুদ্র নিয়ে কর্মকাণ্ডের সবই আওয়ামী লীগের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার পর ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু সমুদ্র বিষয়ে আইন প্রণয়ন করেন। আর ১৯৮২ সালে সমুদ্রবিষয়ক কনভেশনে বঙ্গবন্ধু প্রণীত আইনের মূল বিষয়গুলো অর্ন্তভুক্ত করা হয়।

তিনি বলেন, বিগত ৪০ বছরে মায়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ সমাধানে আর কোনো সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। এমনকি ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ২১ বছরে এ নিয়ে কোনো সরকার কোনো পদক্ষেপও নেয়নি। আওয়ামী লীগ সরকারই সমুদ্র বিষয়ে যত সমস্যা হয়েছে, তার সমাধান করেছে। বাংলাদেশের বৈদেশিক বাণিজ্য সমুদ্রনির্ভর উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পুরোটাই সমুদ্রনির্ভর। এ কারণে প্রায় ১৩০ বিলিয়ন ডলারের জিডিপি নিয়ে বাংলাদেশ অর্থনীতির জিডিপির আকার বিশ্বে ৪৪তম। রফতানি আয় বার্ষিক ৩০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। আর বৈদেশিক বাণিজ্য ৬৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে।

তিনি বলেন, সমুদ্রের পাণিজসম্পদকে কাজে লাগিয়ে ওষুধশিল্পের ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব। সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি হওয়ায় বাংলাদেশের সমুদ্র সম্পদ আহরণে আর কোনো বাধা থাকলো না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারত ও মায়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিষ্পত্তি হওয়ার ফলে বাধাহীনভাবে সমুদ্র থেকে সম্পদ আহরণ করা যাবে। সমুদ্র বিষয়ে বিশেষজ্ঞ তৈরির জন্য ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সমুদ্রবিজ্ঞান বিষয়ে পাঠদান করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমানে প্রতিবছর ৬০০-৮০০ মেরিন ক্যাডেট দেশে-বিদেশে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী জানান, সমুদ্র বিষয়ে গবেষণার জন্য কক্সবাজারের রামুতে গড়ে উঠেছে প্রথম সমুদ্র বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close