জাতীয়

শহীদ মিনারে ভাষা সেনাপতি মতিনকে শেষ শ্রদ্ধা: রাষ্ট্রীয় মর্যাদা না দেয়ায় ক্ষোভ

নিউজ ডেস্ক: ভাষা আন্দোলনের অগ্রনায়ক আবদুল মতিনকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেয়া হয়নি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, রাষ্ট্রীয় প্রটোকলের অভাবে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেয়া সম্ভব হয়নি। বৃহস্পতিবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আবদুল মতিনের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলা ভাষার ইতিহাসের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে তার নাম। পরিচিতি পেয়েছিলেন ভাষা মতিন নামে। বুধবার অবসান হয় ভাষা আন্দোলনের সেই অন্যতম সংগঠক আব্দুল মতিনের ৮৮ বছরের বর্ণিল জীবনের। আজ বেলা ১২টার পর মতিনের মরদেহ বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল থেকে নেওয়া হয় ঢাকা মেডিক্যালের সামনে আমতলায়, যেখানে ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি ছাত্র-জনতার মিছিলে পাকিস্তানি শাসকদের নির্দেশে গুলি চালিয়েছিল পুলিশ।

ভাষা সৈনিক হওয়া সত্ত্বেও কেন তিনি রাষ্ট্রীয় মর্যদা পাননি এর উত্তরে নাসিম বলেন, রাষ্ট্রীয় প্রটোকলের অভাব ছিল। তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেয়া না হলেও প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী এবং সরকারের পক্ষ থেকে সম্মান জানানো হয়েছে। নাসিম বলেন, ভাষা সৈনিক মতিন রাষ্ট্রের সম্পদ। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে সব আন্দোলনে মতিনের অবদান রাষ্ট্র ও জনগণ ভুলবে না। তিনি আরও বলেন, সরকার ভাষা মতিনের জন্য সব করেছে। কোনো অভিযোগ সত্য নয়।

সেখান থেকে তার কফিন নিয়ে আসা হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। ফুলে ফুলে মোড়ানো অ্যাম্বুলেন্সের পাশ দিয়ে হেঁটে শহীদ মিনারে পৌঁছান তার রাজনৈতিক সহকর্মীরা। তার আগেই বিপুল সংখ্যক মানুষ জড়ো হন আজীবন সংগ্রামী আবদুল মতিনকে শ্রদ্ধা জানাতে। প্রথমে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যালের পক্ষ থেকে এবং এরপর ব্যারিস্টার রফিক-উল হকসহ কয়েকজন আইনজীবী এই ভাষা সৈনিকের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পক্ষে ফুল দেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ও দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ উল আলম লেনিন।

এরপর নানা-শ্রেণী পেশার মানুষ শ্রদ্ধা জানান তার প্রতি। দুপুর পৌনে দুইটার দিকে আবদুল মতিনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপাধ্যক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়। লাইফ সাপোর্টে দেয়ার আগে নিজের চোখ সন্ধানীকে দেয়ার ঘোষণা দেন আবদুল মতিন। এছাড়া শিক্ষার্থীদের গবেষণার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ  হাসপাতালকে মরণোত্তর দেহ দান করার ঘোষণা দিয়ে যান তিনি।

ওদিকে, আবদুল মতিনকে রাষ্ট্রীয় সম্মান না দেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শহীদ মিনারে আবদুল মতিনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে এ ধরনের ব্যক্তিদের মৃত্যুতে সবসময় রাষ্ট্রীয় সম্মান দেয়া হয়েছে। সরকার কেন আবদুল মতিনকে রাষ্ট্রীয় সম্মান দেয়নি তা বোধগম্য নয়। এ সময় সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপি নেতা ড. আব্দুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, আ স ম হান্নান শাহ, নজরুল ইসলাম খান, শহিদ উদ্দিন চৌধুরী অ্যানি, হাবীন-উন নবী খান সোহেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close