Featuredঅন্য পত্রিকা থেকে

হাজার কোটি টাকা ব্যয় আসছে ১২০টি রেলকোচ

মফিজুল সাদিক: এক হাজার ১৫ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয়ে শিগগিরই রেলপথে যোগ হতে যাচ্ছে ১২০টি নতুন ব্রডগেজ যাত্রীবাহী কোচ। ইতোমধ্যে পরিকল্পনা কমিশনে বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য ১২০টি ব্রডগেজ যাত্রীবাহী ক্যারেজ সংগ্রহ শীর্ষক প্রকল্পের ওপর প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, প্রকল্পের ওপর ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে পিইসি সভা। তাই শিগগিরই প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রস্তাব করা হবে বলে বাংলানিউজকে জানিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো.মঞ্জুরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, ইতোমধ্যে প্রকল্পের ওপর পিইসি সভা অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে। আমরা আশা করছি খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য একনেক সভায় প্রস্তাব করা হবে।

তিনি জানান, প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে এক হাজার ১৫ কোটি ২৯ লাখ টাকা। প্রকল্পের মাধ্যমে ১২০টি কোচ রেলপথে যোগ হলে উন্নত যাত্রীসেবা নিশ্চিত করা যাবে। রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, আধুনিক নিরাপদ ও মানসম্পন্ন যাত্রীবাহী ক্যারেজ (কোচ) পরিচালনা করে উন্নত যাত্রীসেবার এক নতুন দিগন্তের সূচনা করা হবে। পুরাতন ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ক্যারেজ প্রতিস্থাপন করা হবে। এছাড়া, প্রকল্পের মাধ্যমে যাত্রীবাহী কোচের স্বল্পতা দূর করা হবে- যেন যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা রেলস্টেশনে কোচের জন্য অপেক্ষা করতে না হয়।

এক কথায় যাত্রী ভোগান্তি দূর করা ও রেলপথে নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে বড় ব্যয়ে এ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। পরিকল্পনা কমিশনে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবিত প্রকল্পে দেখা গেছে, এক হাজার ১৫ কোটি ২৯ লাখ টাকার মধ্যে বড় অংকের টাকা আসবে ভারতীয় ডলার ক্রেডিট লাইন (এলওসি) থেকে। এলওসি’র পরিমাণ প্রায় ৭৩৯ কোটি ৮০ লাখ টাকা, এর মধ্যে ২০০ কোটি টাকাই অনুদান। বাকি ৫৩৯ কোটি টাকা শতকরা ১ ভাগ হারে সুদ পরিশোধ করতে হবে ১৫ বছরের মধ্যেই। প্রকল্পে সরকারি অর্থায়ন ২৭৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

কোচগুলো সংগ্রহের ক্রয় পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে রেলওয়ের এক প্রতিনিধি বাংলানিউজকে জানান, স্টেইনলেস স্টিল বডি ও অত্যাধুনিক বগির কোচগুলো ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের রেলওয়ে কোচ ফ্যাক্টরি (আরসিএফ) থেকে তৈরি করা হবে। আর চেন্নাইয়ের ইন্টারভাল কোচ ফ্যাক্টরি (আইসিএফ) ও ভারত আর্থ মোভার্স লিমিটেড (বিইএমএল) থেকে রেলওয়ের বিজি কোচ তৈরি করা হবে

যদিও প্রথমে প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল জানুয়ারি ২০১৪ থেকে জুন ২০১৭ সাল পর্যন্ত প্রস্তাব করায় এটি প্রণয়নের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে পরিকল্পনা কমিশন। পরে বাস্তবতার নিরিখে প্রকল্পের বাস্তবায়ন মেয়াদকাল জুলাই ২০১৪ থেকে ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত সময় নির্ধারণের বিষয়ে রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং পরিকল্পনা কমিশন মতৈক্যে পৌঁছে।

কোচের ব্যয় প্রসঙ্গে রেলওয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বাংলানিউজকে জানান, এডিবি’র অর্থায়নে গৃহীত ১০০টি মিটারগেজ এবং ৫০টি ব্রডগেজ স্টেইনলেস স্টিল প্যাসেঞ্জার সংগ্রহ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নির্ধারিত কোচের ব্যয়ের সঙ্গে মিল রেখে কোচ কেনা হবে। এছাড়া, ইতঃপুর্বে চীন থেকে ২০০৫ সালে ৫০টি এমজি কোচের মূল্যের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে প্রস্তাবিত ১২০টি কোচ কেনা হবে। তিনি আরও জানান, প্রকল্পের আওতায় সংগৃহীতব্য কোচসমূহ স্টেইনলেস স্টিল বডি ও ফিয়াট বগি দ্বারা তৈরি করা হবে। এর ফলে ব্রডগেজ কোচের ক্ষেত্রে দেড় গুণ বেশি দাম বিবেচনা করা হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close