Featuredইসলাম থেকে

হজ্জ ও ওমরাহ সম্পর্কিত ৫০টি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর

wpid-1416159746251.jpg

ইসলাম থেকে ডেস্ক:

প্রশ্ন (১) রমযান মাসে ওমরা করার ফযীলত সম্পর্কে কোনো সহীহ হাদীস আছে কি?

উত্তর (১) পরম করুণাময় আল্লাহর নামে শুরু করছি।
হ্যাঁ, রমযান মাসে ওমরা করার ফযীলত সম্পর্কে  নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর থেকে সহীহ হাদীস বর্ণিত আছে। ইমাম মুসলিম তাঁর সহীহতে বর্ণনা করেছেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন:
«عمرة في رمضان تعدل حجة»
‘রমযানের ওমরা একটি হজ্বের সমান’।
অন্য বর্ণনায় ‘রমযানের ওমরা আমার সাথে হজ্ব করার সমান’।


প্রশ্ন (২) মক্কা শরীফে রমযানের সিয়াম সাধনার ব্যাপারে কোনো সহীহ হাদীস পাওয়া যায় কি? অধিক পরিমাণে তাওয়াফের ফযীলত সম্পর্কেও সহীহ হাদীস আছে কি?

উত্তর (২): প্রশ্নটির প্রথম অংশ সম্পর্কে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে কোনো সহীহ হাদীস মক্কায় রোযা রাখার ফযীলত সম্পর্কে নেই। তবে নামাযের ন্যায় মক্কায় সিয়াম সাধনার ফযীলত সম্পর্কে যঈফ (দুর্বল) হাদীস রয়েছে।
আর অধিক তাওয়াফের বিষয়টি হলো যেহেতু তাওয়াফ করা নেক কাজসমূহের অন্যতম। আর নেককাজ অধিক পরিমাণে করাও উত্তম। আল্লাহ তা‘আলা বলেন-
﴿وَتَزَوَّدُواْ فَإِنَّ خَيۡرَ ٱلزَّادِ ٱلتَّقۡوَىٰۖ﴾ [البقرة: ١٩٧]
“তোমরা পাথেয় অবলম্বন কর। আর নিশ্চয় উত্তম পাথেয় হলো তাকওয়া।” [সূরা আল-বাকারাহ: ১৯৭] কিন্তু যখন মওসুমের সময় হয় হজ্বের মওসুম অথবা ওমরার মওসুম তখন সাধারণ মানুষের অধিক পরিমাণে তাওয়াফ করা উচিত নয়, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর অনুকরণে। কেননা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হজ্বের ক্ষেত্রে তাওয়াফে হজ্ব, তাওয়াফে কুদুম, তাওয়াফে ইফাদাহ ও বিদায়ী তাওয়াফ ব্যতীত অন্য কোনো তাওয়াফ করেন নি। আর এটা হলো তাওয়াফকারীদের জন্য স্বাচ্ছন্দে তাওয়াফের সুযোগ তৈরী করে দেওয়ার জন্য।

প্রশ্ন (৩): হজ্ব ও ওমরার উদ্দেশ্যে গমনকারীর সঙ্গে হারাম খেলা-ধুলার সামগ্রী সঙ্গে নেওয়ার হুকুম কি?

উত্তর (৩): হারাম যন্ত্রসামগ্রী বহন করা, যখন মানুষ সেগুলো ব্যবহার করবে নিশ্চয় তা অপরাধ। আর অপরাধ বা গুনাহ বার বার করা কবীরা গুনাহে পরিণত হয়। আর যখন সেটা হজ্ব বা ওমরার ইহরাম করার পর হবে, তখন তা অধিক গুনাহের কারণ। কেননা মহান আল্লাহ বলেন-
﴿ فَمَن فَرَضَ فِيهِنَّ ٱلۡحَجَّ فَلَا رَفَثَ وَلَا فُسُوقَ وَلَا جِدَالَ فِي ٱلۡحَجِّۗ ١٩٧ ﴾ [البقرة: ١٩٧]
‘‘যে ব্যক্তি হজ্ব করা নির্ধারণ করবে, তবে সেখানে কোনো অশ্লীলতা, ফুসুকী, ঝগড়া-বিবাদ নেই।” [সূরা আল-বাকারাহ: ১৯৭]
অতএব, প্রত্যেক মুসলিমের কর্তব্য হলো হজ্ব ও ওমরাহ গমনে বা প্রত্যাবর্তনে অথবা উভয়ের মধ্যে হারাম বা আল্লাহ কর্তৃক নিষিদ্ধ বস্ত থেকে বিরত থাকা।


প্রশ্ন (৪) কখন ইজতেবা হবে? এটা কি মিকাত হতে হবে অথবা তাওয়াফে কুদুম এর শুরুতে হবে?
তাওয়াফের দু‘রাকাত সালাত আদায়ের পূর্বে না পরে কাঁধ ও ঘাড়ের মধ্যবর্তী স্থান ঢেকে রাখবে? ইজতেবা কি শুধু তাওয়াফে না তাওয়াফ ও সা‘ঈ উভয়টাতে? আর ইজতেবা তরককারীর বিধান কি?

উত্তর (৪): ইজতেবা হলো, তাওয়াফকারী কর্তৃক তার ডান কাঁধ বের করে রাখা এবং ইহরামের চাঁদরের উভয় পাশ বাম কাঁধের উপর রাখা। আর এটি তাওয়াফে কুদুমে সুন্নাত, ওয়াজিব নয়। ফলে কেউ যদি  তা না করে তাহলে কোনো অসুবিধা নেই। আর এটা শুধু তাওয়াফেই করার বিধান রয়েছে। অতঃপর যখন তাওয়াফ সম্পন্ন হবে, তখন তাওয়াফের দু’রাকাত সালাত আদায় করার পূর্বে উভয় ঘাড় ঢেকে দিবে। আর ইজতেবা সাত চক্করের সব কয়টিতেই হবে। রমল এর বিপরীত। কেননা রমল হবে  প্রথম তিন চক্করে মাত্র।


প্রশ্ন (৫): যমযমের পানি পানের ফযীলত সম্পর্কে সহীহ হাদীস রয়েছে কি? সেগুলো কি? আর যমযমের পানি পান করার সময় কোন দো‘আর বিধান আছে কি? যমযমের পানি বহন করে দেশে নিয়ে যাওয়া বৈধ কি? অপবিত্রতা ও জানাবাত দুরীকরণে যমযমের পানি ব্যবহার বৈধ কি?

উত্তর (৫) : যমযমের পানি সম্পর্কে বর্ণিত হাদীসসমূহ হতে  যা জানতে পেরেছি তন্মধ্যে উত্তমটি হচ্ছে নিম্নোক্ত হাদীস,
«ماء زمزم لما شرب له»
“যমযমের পানি যে জন্য পান করা হয় সেটার কাজে লাগে”।
আর যমযমের পানি পান করার সময় দো‘আর কোনো সহীহ হাদীস আমার মনে আসছে না। কিন্তু তাতেও অন্যান্য পানি পানের নিয়ম মেনে চলতে হবে। অর্থাৎ পানি পানের সময় শুরুতে তাসমিয়া এবং শেষে হামদালাহ বলবে। অর্থাৎ তুমি পান করার সময় বলবে বিসমিল্লাহ এবং পান শেষে বলবে আল-হামদুলিল্লাহ।
আর সেটা বহন করে মক্কার বাইরে নিয়ে যাওয়াতে কোনো অসুবিধা নেই। কেননা পূর্বে এ ধরণের কাজ হয়েছিল। তাছাড়া এ সম্পর্কিত হাদীসটি
«ماء زمزم لما شرب له»
“যমযমের পানি যে জন্য পান করা হয় সেটার কাজে লাগে” তা মক্কায় পান করা এবং মক্কার বাহিরে পান করা উভয়কে অন্তর্ভুক্ত করে।
আর আপবিত্রতা ও জানাবত বা বড় নাপাকী জানাগত দূর করাও এর দ্বারা বৈধ।


প্রশ্ন (৬) হিজরে ইসমাঈলের মধ্যে প্রবেশকারী তথা ডান পাশে হিজরে ইসমাঈল ও বামে কাবাকে রেখে তাওয়াফের বিধান কি?

উত্তর (৬): প্রশ্নকারী কর্তৃক কাবার সে অংশকে হিজরে ইসমাঈল বা ইসমাইলের পাথর বা হিজর বলে ব্যাখ্যা করা ভুল। কেননা এ অংশটি ইসমাঈলের সাথে সংশ্লিষ্ট নয়। ইসমাঈল এটাকে চিনতেনই না। এ অংশটি কুরাইশরা যখন কাবা নির্মাণের ইচ্ছা পোষণ করেছিল সে সময়ে বাইরে রেখে দেওয়া হয়। কারণ তারা এর প্রথম ভিত্তি ইবরাহীমের নির্মাণের আদলে নির্মাণ করার জন্য পর্যাপ্ত মালামাল সংগ্রহ করতে পারে নি, ফলে এ অবস্থায় স্থানটিকে তারা ঘিরে রেখেছে। এজন্য এটাকে হিজর বলে। অনুরূপভাবে এটাকে হাতীমও বলা হয়। কেননা এটা কাবার চূর্ণ অংশ। আর তার অধিকাংশ স্থান কাবার অংশ। এর উপর ভিত্তি করে বলা যায়, যখন কোনো মানুষ তাওয়াফের সময় এটার ভিতর দিয়ে প্রবেশ করে বিপরীত দিকের দরজা দিয়ে বের হলো নিশ্চয় তার চক্করটি পূর্ণ করল না। কারণ চক্কর হতে হলে অবশ্যই তাকে কা‘বা ও হাতীম উভয়টিকে চক্করের ভিতরে রেখে তা করতে হবে। অতএব, যদি কেউ কোনো তাওয়াফের চক্করে হাতীমের ভিতর দিয়ে প্রবেশ করে অপর দিক দিয়ে পার হলো, তাহলে তার তাওয়াফ সহীহ হবে না। তার কর্তব্য হলো এটাকে পূণরায় করা। তাই যারা হাতীমের ভিতর দিয়ে কোনো চক্কর দিয়ে কা‘বার তাওয়াফ করবে সে তাওয়াফের কারণে যা অর্জিত হওয়ার তার কিছুই অর্জন করবে না, সুতরাং ইহরাম থেকে প্রাথমিক হালাল হওয়ার যে সুবিধা তাওয়াফ করার মাধ্যমে অর্জন করতে পারত সেটার অধিকারী সে হবে না। যখন প্রাথমিক হালাল হওয়া প্রাথমিক তাওয়াফের উপর নির্ভরশীল থাকে। আর নিশ্চয় এক্ষেত্রে আমি পছন্দ করি এ  সংবাদ সরবরাহ করতে যে, যারা হজ্ব ও ওমরা করার ইচ্ছা পোষণ করবে তাদের কর্তব্য হলো হজ্ব ও ওমরা করার পূর্বে উভয়ের আহকামসমূহ সম্পর্কে জ্ঞাত হওয়া যেন এ ধরনের বড় ভুলে পতিত হতে না হয়।


প্রশ্ন (৭): কা‘বা ঘরের গেলাপে ঝুলে থাকা বা সেটার উপর ঝুঁকে পড়ার হুকুম কি?

উত্তর (৭): কা‘বা ঘরের ঢেকে থাকা গেলাপে ঝুলে থাকা বা ইহার উপর ঝুঁকে পড়ার শরী‘আতের কোনো ভিত্তি নেই। আর এ কারণে যখন ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু-কে দেখলেন যে, তিনি কা‘বা ঘর তাওয়াফ করছেন, আর এর চারকোণ স্পর্শ করছেন তখন তিনি বর্ণনা করেন, স্পর্শ করাটা শুধু হাজারে আসওয়াদ ও রুকনে ইয়ামানীর সাথে নির্দিষ্ট। অতঃপর মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু তাকে বললেন, “এ ঘরের কোনো কিছুই পরিত্যাজ্য নয়” তখন ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু জবাব দিলেন ‘‘নিশ্চয় তোমাদের জন্য রাসূলের জীবনে রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে ডান পার্শ্বস্থিত দু‘কোণ (রুকনে ইয়ামানী ও হাজারে আসওয়াদ) ব্যতীত অন্য কিছু স্পর্শ করেন নি। অতঃপর মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহুমার বক্তব্য মেনে নেন।


প্রশ্ন (৮): তাওয়াফের দু‘রাকাআত সালাত আদায়ের স্থান আমাদের জন্য নির্দিষ্ট করে বলুন।

উত্তর (৮): তাওয়াফের দু‘রাকা‘আত সালাত আদায়ের সুন্নাত নিয়ম হলো, মাকামে ইবরাহিমের পেছনে এমনভাবে দাঁড়াবে যেন মাকামে ইবরাহিম তার ও বায়তুল্লাহর মাঝে থাকে। আর যদি মাকামে ইবরাহিম নিকটবর্তী হয় তবে তা উত্তম। যদি তা সহজ না হয় তবে এ দু‘রাকআত সালাত মাকামে ইবরাহীমের দূরবর্তী কোন স্থান থেকে আদায় করলেও জায়েয হবে। তবে গুরুত্বপূর্ণ কথা হলো মাকামে ইবরাহীমকে কা‘বা ও তার মাঝে রাখবে। আর সেটাও যদি সহজ না হয় তাহলে মসজিদে হারামের যে কোনো স্থান থেকে দু‘রাক‘আত সালাত আদায় করা যাবে। এতে কোনো অসুবিধা নেই।


প্রশ্ন (৯): তাওয়াফে কুদুমের প্রথম তিন চক্করে রমল করা কি পুরুষের জন্য নির্দিষ্ট? রমল কি সকল চক্করে করবে? না কিছু সংখ্যক চক্কর করলে চলবে?

উত্তর (৯): রমল পুরুষের জন্য নির্দিষ্ট। মহিলাদের ক্ষেত্রে বাইতুল্লাহর তাওয়াফে রমল করা সুন্নাত হয়, অনুরূপভাবে তাদের জন্য সা‘য়ীর ক্ষেত্রে দুটি নিদর্শনের মাঝে দৌড় দেওয়াও সুন্নাত নয়।
আর পুরুষদের জন্য তাওয়াফের সময় রমল করা কেবল প্রথম তিন চক্করের সাথে নির্দিষ্ট। এ তিন চক্করে রমল করা হাজরে আসওয়াদ থেকে শুরু করে আবার হাজরে আসওয়াদ পর্যন্ত পুরো স্থান জুড়েই করতে হবে। কেননা বিদায় হজ্জে নবী সাল্লাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এমনটি করেছেন।
অবশ্য উমরাতুল কাযাতে সাহাবায়ে কিরাম কেবল হাজরে আসওয়াদ হতে রুকনে ইয়ামানী পর্যন্ত রমল করেছিলেন, বাকী রুকনে ইয়ামানী থেকে হাজরে আসওয়াদ এ দু’ কোণের মাঝে সাহাবায়ে কিরাম স্বাভাবিকভাবে হেটে চলেছিলেন। এটা করেছিলেন কুরাঈশদের ক্রোধকে জাগ্রত করার জন্য; কারণ কুরাঈশরা ছিল কাবার উত্তর দিকে। অতঃপর যখন সাহাবাগণ তাদের থেকে আড়ালে যেতেন তখন তারা সাধারণভাবে চলতেন। কিন্তু রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিদায় হজ্জের সময় প্রথম তিন চক্করে পুরো চক্করেই রমল করেছেন। (অর্থাৎ উমরাতুল কাযার মত কেবল হাজরে আসওয়াদ থেকে রুকনে ইয়ামানী পর্যন্ত করেই ক্ষান্ত হননি। তাই বিদায় হজ্বের রাসূলের আমল হিসেবে প্রথম তিন চক্করের পুরোটাতেই রমল করতে হবে)


প্রশ্ন (১০): তাওয়াফ বা সা‘ঈর সময় দু’ বা ততোধিক ব্যক্তির মাঝে জ্ঞানগর্ভ আলোচনায় রত হওয়ার বিধান কি?

উত্তর (১০): তাওয়াফ বা সা‘ঈর সময় জ্ঞান সংক্রান্ত আলোচনায় কোনো অসুবিধা নেই। আর এতে তাওয়াফ ও সা‘ঈ নষ্ট হয় না। কিন্তু উত্তম হলো, সেময়ে মানুষকে যিকিরে মশগুল করা। কেননা তাওয়াফ ও সা‘ঈর সময় শেষ হয়ে আসছে। আর আলোচনা করা অন্য সময়ে সুযোগ আছে। তবে তাওয়াফ ও সা‘ঈর মাঝে যদি আকস্মিক কোনো প্রশ্নের উদ্ভব হয় তখন সেটা (জ্ঞানগর্ভ আলোচনা) দ্বারা কোনো কিছু নষ্ট হবে না; যদি না প্রশ্নকারী অনেক বেশী প্রশ্ন করে বসেন। আর এ কারণে আমরা বলব তাওয়াফ ও সা‘ঈর মধ্যে কোনো প্রশ্নকারী প্রশ্ন করলে তাকে অবসর হওয়া পর্যন্ত তুমি অপেক্ষা কর বললেও কোনো মানুষের জন্য দোষ নেই। এটা এ কারণে যে, যেন ব্যক্তি এ সময়টা যিকিরে অতিবাহিত করতে পারে।


প্রশ্ন (১১): তাওয়াফ ও সা‘ঈর প্রত্যেক চক্করে কোনো নির্দিষ্ট দো‘আ আবশ্যক করে নেয়ার বিধান কি? তাওয়াফের ভেতর কোনো নারী বা পুরুষ উচ্চস্বরে কিছু দো‘আর আবৃত্তি করা যে উচ্চস্বর নামাজী ও তাওয়াফকারী এবং অন্যান্যদের জন্য বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এর বিধান কি?

উত্তর (১১): এখানে প্রত্যেক চক্করে নির্দিষ্ট কোনো দো‘আ নেই। বরং প্রত্যেক চক্করের জন্য দো‘আ নির্দিষ্ট করা বিদ‘আত। কেননা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে এমন বর্ণনা আসে নি। হজরে আসওয়াদ স্পর্শ করার সময় তাকবীর (আল্লাহু আকবার) বলা আর হজরে আসওয়াদ ও রুকনে ইয়ামানীর মাঝে
﴿رَبَّنَآ ءَاتِنَا فِي ٱلدُّنۡيَا حَسَنَةٗ وَفِي ٱلۡأٓخِرَةِ حَسَنَةٗ وَقِنَا عَذَابَ ٱلنَّارِ ٢٠١ ﴾ [البقرة: ٢٠١]
বলা বর্ণিত আছে। আর অবশিষ্ট স্থানে সাধারণ যিকির ও কুরআন তেলাওয়াত। আর দো‘আ এক চক্করে একটি নির্দিষ্ট করে অন্য চক্করে অপরটি এমন নয়। কোনো ব্যক্তি দো‘আ পড়বে, তার পেছনে অথবা ডানে অথবা বামে অনেক লোক তা অনুসরণ করবে সাহাবীগণের আমল থেকে এমনটির ভিত্তি নেই। অপরদিকে উচ্চস্বরে পড়া যেহেতু এতে তাওয়াফকারীদের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে ও কষ্টের কারণ হয় সেহেতু এটা নিষিদ্ধ। কেননা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবীদের লক্ষ্য করে বলেছেন, যখন তিনি সাহাবায়ে কিরামের কারও কারও দ্বারা উচ্চস্বরে মসজিদে কুরআন পাঠ করতে শুনতে পেলেন তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, “তোমরা কুরআনের ক্ষেত্রে একে অন্যের উপর উচ্চস্বরে পাঠ করো না।” অথবা তিনি বললেন: “কিরআত পাঠের ক্ষেত্রে।” অনুরূপভাবে আমরা সেসব তাওয়াফকারীদের বলব যে তোমরা মানুষের উপর উচ্চস্বরে বলবে না তাহলে তাদেরকে তোমরা কষ্ট দিবে। বরং প্রত্যেকে পছন্দমত দো‘আ করবে।
এ জন্যই এটা বলা যায় যে, যদি এ সকল তাওয়াফ পরিচালনাকারী মানুষদেরকে এটা বলতে উদ্বুদ্ধ করা যায় যে, তোমরা তাওয়াফ করো আর হাজরে আসওয়াদ স্পর্শের সময় তাকবীর বলো। তোমরা হাজরে আসওয়াদ ও রুকনে ইয়ামানীর মাঝে বলবে:
﴿رَبَّنَآ ءَاتِنَا فِي ٱلدُّنۡيَا حَسَنَةٗ وَفِي ٱلۡأٓخِرَةِ حَسَنَةٗ وَقِنَا عَذَابَ ٱلنَّارِ ٢٠١ ﴾ [البقرة: ٢٠١]
এবং তাওয়াফের অবশিষ্ট সময়ে তোমরা ইচ্ছামত দো‘আ কর, যিকর কর এবং কুরআন পাঠ কর। আর লোকেরা যদি তাদের অনুসরণ করতো তবে তা কতই না উত্তম ও উপকারী কাজ বলে বিবেচিত হতো। কেননা এভাবে করলে প্রত্যেক মানুষ তার প্রয়োজন অনুযায়ী তার রবের নিকট সে ভাষায় দো‘আ করতে সমর্থ হতো যে ভাষা সে বুঝে। পক্ষান্তরে আজকাল তাওয়াফ পরিচালনাকারীগণ যেসব দো‘আ পড়ে থাকেন সে সব দো‘আ সম্পর্কে তাদের অনুগামীরা কিছুই জানেন না। যদি তাওয়াফ পরিচালনাকারীদের পেছনে যারা চলে তাদেরকে তাদের পরিচালনাকারী কি দো‘আ করেছে সেটা সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় তাহলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে তারা তা বলতে সমর্থ হবে না। বস্তুত যে দো‘আর অর্থ মানুষ জানে তা দিয়ে দো‘আ করা তালকীনের (অন্যের মাধ্যমে শুনে পড়া) মাধ্যমে করা দো‘আ থেকে অনেক বেশী উপকারী।


প্রশ্ন (১২): হজরে আসওয়াদ ও রুকণে ইয়ামানীর মধ্যকার তাওয়াফকারীর জন্য শরীয়াতসম্মত দো‘আ কি?

উত্তর (১২): শরীয়ত সম্মত দো‘আ হলো:
﴿رَبَّنَآ ءَاتِنَا فِي ٱلدُّنۡيَا حَسَنَةٗ وَفِي ٱلۡأٓخِرَةِ حَسَنَةٗ وَقِنَا عَذَابَ ٱلنَّارِ ٢٠١ ﴾ [البقرة: ٢٠١]
অপরদিকে দো‘আকে পরিপূর্ণ করার জন্য
«وأدخلنا الجنة مع الأبرار»
বলা অতঃপর এটার কোনো ভিত্তি নেই। অনুরূপভাবে
«يا عزيز يا غفار يارب العالمين»
বলাও কোনো ভিত্তি নেই। বরং যখন পরিবেশ এমন হয়ে যায় মানুষ আয়াতটি অর্থাৎ
﴿ رَبَّنَآ ءَاتِنَا فِي ٱلدُّنۡيَا حَسَنَةٗ وَفِي ٱلۡأٓخِرَةِ حَسَنَةٗ وَقِنَا عَذَابَ ٱلنَّارِ ٢٠١ ﴾ [البقرة: ٢٠١]
পড়া শেষ হয়েছে অথচ তাওয়াফস্থলে ভিড়ের কারণে হাজরে আসওয়াদ পর্যন্ত পৌঁছতে পারে নি, তাহলে সে হাজরে আসওয়াদের কাছে পৌঁছা পর্যন্ত বার বার এ দো‘আটি পুনরাবৃত্তি করতে থাকবে।


প্রশ্ন (১৩): মুলতাযামে অবস্থানের হুকুম কি? যদি সেটা শরীয়াতসম্মত হয় তাহলে সেক্ষেত্রে কোন দো‘আ পাঠ করা মুস্তাহাব। কা‘বার কোন স্থানটি মুলতাযামের জন্য নির্দিষ্ট।

উত্তর (১৩): মুলতাযামে অবস্থান সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে সহীহ কোনো সুন্নাত বর্ণিত হয়নি। কিন্তু তা ছিল সাহাবীগণের আমল। আর সেখানে যা ইচ্ছা তা প্রার্থনা করবে। মুলতাযামের স্থান হলো হাজরে আসওয়াদ ও কা‘বার দরজার মধ্যবর্তী স্থান।


প্রশ্ন ১৪: সাফা ও মারওয়ার শরীয়তসম্মত দো‘আ ও যিকির কি? দো‘আ ও তাকবীর বলার সময় কি হাত উঠাতে হবে? আর তার পদ্ধতি কি? সাফা ও মারওয়া পাহাড়ের উপর আরোহনের বৈধ  পরিমাণ কতটুকু? মহিলারা বা তাদের সঙ্গী মহিলার দুটি সবুজ নিদর্শনের মাঝে (সাফা ও মারওয়ার) দ্রুত পথ চলবে কি? সা‘ঈর সময় শরী‘আতসম্মত কোনো দো‘আ আছে কি? দুটি সবুজ নিদর্শনের মাঝে দ্রুত পথ চলার হিকমত কি?

উত্তর ১৪: এ প্রশ্নটি বিভিন্ন দিক অন্তর্ভুক্ত করে। তার উত্তর হলো, কোনো মানুষ যখন সাফা-মারওয়ার সা‘ঈ শুরু করবে তখন তার শুরুতে যখন সাফা পাহাড়ের নিকটবর্তী হবে তখন সে আল্লাহর বাণী পাঠ করবে:
﴿ ۞إِنَّ ٱلصَّفَا وَٱلۡمَرۡوَةَ مِن شَعَآئِرِ ٱللَّهِۖ  ﴾ [البقرة: ١٥٨]
আমি শুরু করছি যা দ্বারা আল্লাহ শুরু করেছেন, (অর্থাৎ আল্লাহ সাফা পাহাড়ের কথা আগে বলেছেন তাই আমি আগে সাফা পাহাড়ে উঠব) তারপর সাফা পাহাড়ে আরোহণ করবে যেন কা‘বা দেখতে পায় অতঃপর দু হাত উত্তোলন করবে যেমনিভাবে দো‘আর মধ্যে উত্তোলন করা হয় ও তাকবীর বলবে। আর নিম্নের যিকিরটি পাঠ করবে:
«لا إله إلا الله وحده لا شريك له له الملك وله الحمد وهو على كل شيء قدير لا إله إلا الله وحده، أنجز وعده، ونصر عبده، وهزم الأحزاب وحده»
অতঃপর যে যা ইচ্ছা তা দো‘আ করবে, তারপর দ্বিতীয়বার পূর্বের যিকিরটি পড়বে আর ইচ্ছামাফিক দো‘আ করবে, অতঃপর তৃতীয়বারও সে যিকিরটি পাঠ করবে। অতঃপর পদব্রজে চলতে অবতরণ করবে সবুজ চিহ্নিত খুঁটির দিকে। অতঃপর যখন সবুজ নিদর্শনে পৌছাবে তখন অপর নিদর্শনে যাওয়ার উদ্দেশ্যে দ্রুত হাঁটবে। অতঃপর সাধারণভাবে হাঁটবে; কিন্তু মহিলাগণ ব্যতীত, তারা এখানে দ্রুত পথ চলবে না। অনুরূপভাবে যারা মহিলাদের সঙ্গী সাথী, তারাও মহিলাদের দেখে শুনে রাখা ও হিফাযত করার লক্ষ্যে দু’ নিদর্শনের মাঝে দ্রুত চলবে না। আর যখন মারওয়ায় পৌঁছুবে তখন (﴿ ۞إِنَّ ٱلصَّفَا وَٱلۡمَرۡوَةَ مِن شَعَآئِرِ ٱللَّهِۖ﴾ [البقرة: ١٥٨]   )  এ আয়াতাংশটি পাঠ করবে না। অনুরূপভাবে দ্বিতীয় বার ও পরবর্তী কোনো বার যখন সাফা পাহাড়ে যাবে তখনও (﴿ ۞إِنَّ ٱلصَّفَا وَٱلۡمَرۡوَةَ مِن شَعَآئِرِ ٱللَّهِۖ ﴾ [البقرة: ١٥٨]  )  আয়াতটি পাঠ করবে না; কেননা এমনটি বর্ণিত হয়নি। সা‘ঈর মধ্যে হাজী সাহেব যা ইচ্ছা তা আল্লাহ কাছে প্রার্থনা করবে। আর কেউ যদি পছন্দ করে তবে সে যেন কুরআন তিলাওয়াত করে ও আল্লাহর যিকির করবে, তাসবীহ পড়ে, তাহলীল ও তাকবীর বলে। অতঃপর যখন মারওয়াতে পৌঁছাবে এবং তাতে আরোহণ করবে তখন সাফা পাহাড়ের উপর যা করেছে তা করবে।
অপরদিকে সাফা পাহাড়ে আরোহনের পরিমাণ হলো এমন পরিমাণ উপরে উঠা যেন কা‘বা দেখা যায়। আর এটা আরোহনের সর্বনিম্ন পরিমাণ। আরোহণ হওয়া সুন্নাত, ওয়াজিব নয়। ওয়াজিব হলো সাফা ও মারওয়ার মধ্যে (সা‘ঈ) অন্তর্ভুক্ত থাকা। দু’ নিদর্শনের মাঝে সা‘ঈর হিকমত হলো, রাসূলের সুন্নাতের অনুসরণ ও ইসমাঈলের মায়ের উপত্যাকায় অবতরণের অবস্থা স্মরণ করা। আর সেটি ছিল দু’ নিদর্শনের মধ্যবর্তী স্থান। তিনি যখন উপত্যকায় দ্রুত নামতেন তখন তার সন্তান ইসমাইলের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করতেন। সহীহ বুখারীতে এ সম্পর্কে দীর্ঘ কাহিনী বর্ণিত হয়েছে।


প্রশ্ন (১৫): সা‘ঈ শেষে মারওয়াতে চুল কর্তন করা জায়েয কি? মাথা মুন্ডণ করা অথবা মাথার কিছু অংশের চুল কর্তন করার হুকুম কি? আর যে মাথা টাক অথবা মুণ্ডিত সে কি করবে? সা‘ঈ ও তাওয়াফকারী সা‘ঈ এবং তাওয়াফের মাঝে ক্লান্ত হয়ে পড়লে বিশ্রাম নেয়া জায়েয কি? মাথা মুণ্ডন ও চুল কর্তনের মাঝে কোনটি উত্তম দলীলসহ বলুন।

উত্তর (১৫): যখন মানুষ সা‘ঈ থেকে অবসর হয় এবং তা ওমরার সা‘ঈ হয় তখন নিশ্চয় সে মাথা মুণ্ডন করবে অথবা চুল কর্তন করবে। তবে মাথা মুণ্ডন উত্তম। কেননা এটা আল্লাহকে সম্মান দেখানোর খুব নিকটবর্তী। আর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মাথা মুণ্ডনকারীদের জন্য তিনবার আর চুল কর্তনকারীর জন্য একবার দো‘আ করেছেন।
আর যে মাথায় টাক অথবা যে মাথা সাম্প্রতিককালে মুণ্ডন করা হয়েছে তার থেকে মাথা মুণ্ডন অথবা চুল কর্তন করা রহিত হয়ে গেছে; কেননা তার মাথায় চুল নেই। আর এটা টাকের বিধান হওয়ার ব্যাপারটি তো স্পষ্টই; কারণ টাক মাথায় কোন চুল গঁজায় না। কিন্তু যার মাথার চুল মুণ্ডন করা হয়েছে তার জন্য আবশ্যক হচ্ছে কিছু চুল গজানো পর্যন্ত অপেক্ষা করা তারপর মুণ্ডন করা।
অপরদিকে মাথার কিছু অংশ মুণ্ডন করা অথবা মাথার কিছু অংশে কর্তন করা জায়েয নেই। কেননা আল্লাহ তা‘আলা বলেন ﴿ مُحَلِّقِينَ رُءُوسَكُمۡ وَمُقَصِّرِينَ  ٢٧ ﴾ [الفتح: ٢٧]    “তোমাদের মাথাসমূহকে মুণ্ডন করা অবস্থায় এবং চুল ছাঁটা অবস্থায়”, তাহলে অবশ্যই সমস্ত মাথা মুণ্ডন করতে হবে অথবা সমস্ত চুল থেকে কর্তন করতে হবে। আর উত্তমভাবে ও ব্যাপকভাবে যা চুল কর্তন করে থাকে তা হচ্ছে বর্তমানে সাধারণত মানুষ চুল কর্তন করার জন্য যে সব মেশিন ব্যবহার করে থাকে তা। কেননা এতে ব্যাপকভাবে এবং সুন্দরভাবে চুল কর্তন অর্জিত হয়। কেঁছি দিয়ে কাটার চেয়েও তা উত্তম। আর আমরা যে চুল মুণ্ডনের কথা বলেছি তা কেবল পুরষদের জন্য। অপরদিকে নারীগণের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র সামান্য অংশ কর্তন করাই বিধিসম্মত।
আর যখন তাওয়াফকারী অথবা সা‘ঈকারী ক্লান্ত হয় ও বসে পড়ে তখন তাতে কোনো ক্ষতি নেই। কিন্তু সে দীর্ঘসময় ধরে বসে থাকবে না বরং সে অল্প সময় বসবে; যাতে তার শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক হয়ে আসে এবং তার পেশী প্রশান্ত হয়, তারপর আবার চলা শুরু করবে; তারপর যদি তার দ্বিতীয়বার কোনো বৈঠকের প্রয়োজন হয় তবে কোনো অসুবিধা নেই, অনুরূপ তৃতীয় অথবা চতুর্থবার বসাতেও কোনো সমস্যা নেই।


প্রশ্ন ১৬: হারামের মধ্যে ইমামের নিকটবর্তী দাঁড়ানো নাকি উপর তলাসমূহে দাঁড়ানো? আমরা প্রত্যক্ষ করি যে, মাতাফের প্রথম কাতারের জন্য অনেকেই প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয় আযানের অর্ধঘন্টা পূর্বে বা তারও অধিক আগে, এ ব্যাপারে আপনার কী অভিমত? এভাবে তাদের প্রথম কাতারে বসার দ্বারা তাওয়াফকারীদের স্থান সংকীর্ণ হয়ে যায়।

জবাব ১৬: কোনো সন্দেহ নেই যে, মাসজিদে হারাম বা অন্যান্য মাসজিদে ইমামের কাছাকাছি দাঁড়ানো দূরে দাঁড়ানো থেকে উত্তম। আর যারা কা‘বার পাশে বসে থেকে সালাতের অপেক্ষা করতে থাকে নিশ্চয় তাদের কোনো অধিকার নেই সেখানে বসার। তাওয়াফকারীগণ সে স্থানের অধিক মুখাপেক্ষী। কেননা তাওয়াফকারীদের জন্য সে স্থান জরুরী। অতএব, সেটা সংকীর্ণ হয়ে যাওয়া তাদের অধিকার নষ্ট করা ও তাদের ক্ষতির কারণ। বরং মানুষ অপেক্ষা করবে তারপর যখন ইমাম এসে যাবে তখন প্রত্যেকে তার নিজ নিজ স্থানে কাতারবন্দী হবে।


প্রশ্ন (১৭): রমযানে তারাবীহ এর সালাতে মুক্তাদীগণ ইমামের অনুসরণের জন্য কুরআন শরীফ বহন করার বিধান কি?

উত্তর (১৭) উপর্যুক্ত উদ্দেশ্যে কুরআন শরীফ বহন করা সুন্নাহের বিপরীত। আর তা কয়েক দিক থেকেই:
প্রথমত: এভাবে দন্ডায়মানের সময় মানুষের ডান হাত বাম হাতের উপর রাখা ছুটে যায়।
দ্বিতীয়ত: কুরআন বহন করা অধিক নড়াচড়ার দিকে নিয়ে যায় যার কোনো প্রয়োজন নেই; যেমন কুরআন খোলা, বন্ধ করা, বগলের নিচে রাখা ও পকেটে রাখা ইত্যাদি।
তৃতীয়ত: কুরআন বহন মুসল্লীকে অনেক নড়াচড়ায় ব্যস্ত রাখে।
চতুর্থত: এতে মুসল্লীর দৃষ্টি সিজদার স্থান থেকে নষ্ট হয়। আর অধিকাংশ আলেমের মতে সিজদার স্থানের প্রতি দৃষ্টি দেয়া সুন্নাত এবং উত্তম।
পঞ্চমত: মুসল্লী এতে ভুলে থাকে যে সে সালাতে আছে যখন সে যে সালাতে আছে সেটার জন্য হৃদয় জাগ্রত না থাকে। অন্যদিকে  মুসল্লীর যখন সালাতে খুশু অবলম্বন করবে, ডান হাত বাম হাতের উপর রাখবে, দৃষ্টিকে সিজদার স্থানের দিকে নিবন্ধ রাখবে, নিশ্চয় এটা অধিক পরিমাণে হৃদয়কে জাগ্রত রাখে যে সে সালাতে আছে এবং সে একজন ইমামের পিছনে রয়েছে।


প্রশ্ন (১৮): যখন কোনো মহিলা হজ্ব বা ওমরা করার ইচ্ছা করবে অথচ তিনি ঋতুবর্তী বা নিফাসবর্তী, তখন কি করবে? আর ইহরাম করার পর অথবা তাওয়াফ শেষে যদি কেউ হায়েযপ্রাপ্ত হয় তার বিধান কি?

উত্তর (১৮): যখন কোনো মহিলা ওমরা অথবা হজ্ব করার জন্য মীকাত দিয়ে অতিক্রম করে অথচ সে নিফাসবর্তী অথবা হায়েযপ্রাপ্তা, তখন নিফাস ও হায়েয থেকে পবিত্রা নারীগণ যা করে সেও তাই করবে। অর্থাৎ গোসল করবে কিন্তু অতিরিক্ত কাপড় দ্বারা রক্তক্ষরণ বন্ধ রাখবে এবং ইহরাম করবে, অতঃপর যখন পবিত্রা হবে তখন তাওয়াফ করবে, সা‘ঈ করবে ও চুল কর্তন করবে এবং ওমরা সম্পন্ন করবে। অপরদিকে যখন ইহরাম করার পর এবং তাওয়াফের পূর্বে হায়েযপ্রাপ্তা হবে অথবা নিফাসবর্তী হবে তখন সে পবিত্র হওয়া পর্যন্ত ইহরামের উপর অবশিষ্ট থাকবে। অতঃপর তাওয়াফ করবে, সা‘ঈ করবে এবং চুল কর্তন করবে।
আর যখন তাওয়াফের পর ঋতুবর্তী হবে তখন সে তার ওমরাহ কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে। কারণ এতে তার কোনো ক্ষতি নেই। কেননা তাওয়াফের পর অপবিত্রতা ও ঋতু হতে পবিত্র থাকার কোনো শর্ত নেই।


প্রশ্ন (১৯): ঋতুবর্তী নারীদের জন্য মসজিদ হারামে প্রবেশ করা বৈধ কি? আর যখন নারী তাওয়াফরত অবস্থায় অনুভব করবে যে তার ঋতুর রক্ত পড়তে যাচ্ছে তখন সে কি করবে?

উত্তর (১৯): ঋতুবর্তী নারীর জন্য মসজিদে হারামে প্রবেশ করা বৈধ নয়, তবে পার হয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্য থাকলে সেটা ভিন্ন কথা। তাওয়াফের জন্য তার অবস্থান অথবা কুরআন শ্রবণ অথবা তাসবীহ পাঠ বা তাহলীল এসব কিছুর জন্যই মসজিদে হারামে অবস্থান জায়েয নয়।
আর যখন কোন মহিলা তাওয়াফের মধ্যে ঋতুর রক্ত প্রবাহিত হওয়ার অনুভব করবে তখন সে নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তাওয়াফ চালু রাখবে। অতঃপর যখন নিশ্চিত হবে যে, ঋতুর রক্ত বের হচ্ছে তখন পবিত্র হওয়া পর্যন্ত তাওয়াফ থেকে বিরত থাকবে। অতঃপর পবিত্র হলে নতুন করে তাওয়াফ শুরু করবে।


প্রশ্ন (২০) : ই‘তিকাফকারী ব্যতীত অন্যদের জন্য পুরো রমযান মাসের মাসজিদে হারামে স্থান নির্ধারণ করে বালিশ ও বিছানা রেখে নামায পড়ার বিধান কি?

উত্তর (২০): মাসজিদে হারাম অন্যান্য মাসজিদের মত, যে আগে পৌঁছবে সে বসবে। আর কারো জন্য মসজিদের বাইরে বের হওয়ার সময় মসজিদে স্থান রেখে আসা বৈধ নয়।
কিন্তু যদি মসজিদেরই অন্য স্থানে যাবে এবং জনসাধারণের ভিড় থেকে দূরে থাকতে চেষ্টা করে কোনো প্রশস্ত স্থানে বসে, অতঃপর যখন সালাতের সময় নিকটবর্তী হবে তখন সে তার নির্ধারণ করে রেখে যাওয়া স্থানে সালাত পড়তে আসবে,

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close