এশিয়া জুড়ে

এয়ার এশিয়ার বিমান নিখোঁজ: বিধ্বস্ত হয়েছে বলে ধারণা

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ইন্দোনেশিয়া থেকে সিঙ্গাপুরগামী এয়ার এশিয়ার একটি উড়োজাহাজ আজ রোববার নিখোঁজ হয়েছে। উড়োজাহাজটিতে ১৬২ জন আরোহী ছিলেন বলে জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার পরিবহন মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জে এ বারাতা। খবর এএফপি, বিবিসির।

এদিকে, এয়ার এশিয়ার নিখোঁজ বিমানটি ইন্দোনেশিয়ার বেলিটাং দ্বীপে বিধ্বস্ত হয়েছে। ভারতের সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে এ কথা জানানো হয়েছে। তবে ইন্দোনেশিয়া সরকার ও বিমান কোম্পানির পক্ষ থেকে এখনো বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়নি। টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, এয়ার এশিয়ার বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে। এর ধ্বংসাবশেষ পূর্ব ইন্দোনেশিয়া বেলিটাং দ্বীপে খুঁজে পাওয়া গেছে। সরকারিভাবে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়নি।

বিমানটির উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রেখেছে ইন্দোনেশিয়া। মালয়েশিয়াভিত্তিক স্বল্পমূল্যের বিমান পরিবহণ সংস্থা এয়ার এশিয়া। রোববার সকালের দিকে ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা থেকে সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পর কিউজেড-৮৫০১ নম্বর ফ্লাইটের বিমানটি যোগাযোগ নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

ইন্দোনেশিয়ার পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের হাদি মোস্তফা নামের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার আগে বিমানটি অন্য একটি রুটের দিকে যাচ্ছিল। কালিমানতান ও বেলিটাং উপদ্বীপের মাঝামাঝি কোনো এলাকায় কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে বিমানটির যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। ওই বিমানে ১৬২ জন যাত্রী ছিলেন। জাকার্তা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়, এয়ার এশিয়ার ওই বিমান ইন্দোনেশিয়ার সুরাবায়া শহর থেকে সিঙ্গাপুরে যাওয়ার সময় স্থানীয় সময় সকাল ৬টা ১৭ মিনিটে জাকার্তা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

জাভা সাগরের ওপরে থাকার সময় নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে উড়োজাহাজটির যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। ইন্দোনেশিয়ার নিয়ন্ত্রণকক্ষের কর্মকর্তা হাদি মোস্তফা জানান, জাভা ও কালিমান্টান দ্বীপের মধ্যবর্তী ওই জায়গায় বিমানটির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে বিমানটি নির্ধারিত পথে ছিল না। ওই সময় আকাশ মেঘলা ছিল। টাইমস অব ইন্ডিয়ার অনলাইনের খবরে জানানো হয়, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব দিকের বেলিটাং দ্বীপে উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়েছে। সেখানে উড়োজাহাজের ধ্বংসাবশেষ দেখতে পাওয়া গেছে। তবে কর্তৃপক্ষ নিশ্চিতভাবে কিছু জানায়নি।

ইন্দোনেশিয়ার পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের আরেক কর্মকর্তা জানান, বিমানটিতে ১৫৫ জন যাত্রী ছিলেন। তাদের মধ্যে একজন সিঙ্গাপুরি, একজন মালয়েশীয়, একজন ব্রিটিশ, তিনজন কোরীয় এবং ১৪৯ জন ইন্দোনেশীয় নাগরিক ছিলেন। চলতি বছরে এর আগে মালয়েশিয়া এয়ারলাইনসের দুটি যাত্রীবাহী বিমান ভূপতিত হয়। মার্চে জাকার্তা থেকে বেইজিংগামী মালয়েশিয়া এয়ারলাইনসের এমএইচ-৩৭০ নম্বর ফ্লাইটের বিমানটিতে ২৩৯ জন যাত্রী নিয়ে নিখোঁজ হয়, যার এখনো কোনো খোঁজ মেলেনি।

এরপর জুলাইয়ে নেদারল্যান্ডসের রাজধানী আর্মস্টারডাম থেকে কুয়ালালামপুরগামী একই বিমান সংস্থার এমএইচ-১৭ ফ্লাইটের বিমানটি ইউক্রেনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় বিধ্বস্ত হয়। এতে বিমানটির ২৯৮ আরোহীর সবাই নিহত হন। তবে এয়ার এশিয়ার এই প্রথম কোনো বিমান দুর্ঘটনায় পড়ল।

ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব জাভার সুবাবায়া এলাকার জুয়ানদা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় ভোর পাঁচটা ২০ মিনিটে উড়োজাহাজটি ছেড়ে আসে। এয়ার এশিয়ার কিউজেড ৮৫০১ ফ্লাইটটি সকাল সাড়ে আটটায় সিঙ্গাপুরে পৌঁছানোর কথা ছিল। মালয়েশিয়ার এয়ার এশিয়া এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ জানায়, নিখোঁজ উড়োজাহাজটির সন্ধান ও উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে। আরোহীরা কোন অবস্থায় আছেন, সে ব্যাপারে এখনো কিছু জানা যায়নি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close