এশিয়া জুড়ে

এয়ার এশিয়ার বিধ্বস্ত বিমানের বড় দুটি অংশের সন্ধান সমুদ্রতলে

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: এয়ার এশিয়ার বিধ্বস্ত বিমানের বড় দুটি অংশ সাগরের তলে সন্ধান পেয়েছেন উদ্ধারকর্মীর। এগুলোর ছবি তুলতে পানির নিচে যন্ত্র পাঠানো হচ্ছে। শনিবার ইন্দোনেশিয়ার শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা এসব কথা জানিয়েছেন।

গত রোববার সকালে ইন্দোনেশিয়ার সুরাবায়া থেকে সিঙ্গাপুরে যাওয়ার পথে কিউজেড-৮৫০১ ফ্লাইটটি ১৬২ আরোহী নিয়ে নিখোঁজ হয়। এর দুই দিন পর জাভা সাগরে বিমানটির ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায়। দুর্ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিমানের ৩০ যাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বিমানের বাকি যাত্রীরা আর বেঁচে নেই বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত শুক্রবার গভীর রাতে বোর্নিও দ্বীপের কাছাকাছি ইন্দোনেশিয়ার জাভা সাগরে ব্যাপক তল্লাশি চালানোর সময় সাগরের তলদেশে বড় বস্তুর সন্ধান মিলেছে। সেখানে বিমানের নিহত আরো যাত্রীর লাশ ও ব্ল্যাক বক্সের সন্ধান মিলতে পারে। ব্ল্যাক বক্স পাওয়া গেলে বিমানটির বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ জানা যাবে।

বিমান উদ্ধারকারী দলের প্রধান বামবাং সোলিসতিও শনিবার বলেন, পানির নিচে বিশাল বস্তু সনাক্ত করেছে ইন্দোনেশীয় নৌবাহিনীর জাহাজ সোনার। বিষয়টি আরো নিশ্চিত হতে সমুদ্র তলদেশে যন্ত্র পাঠানো হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, গত রাতে আমরা বিমানের তেলের ট্যাংকার এবং বিমানের বড় দুটি অংশের সন্ধান পেয়েছি। আমি নিশ্চিত করতে পারি, এটি বিধ্বস্ত এয়ারএশিয়া বিমানের অংশ। সনাক্ত বস্তুটির ব্যাপারে আরো নিশ্চিত হতে পানির নিচে যন্ত্র (রোভ) পাঠানো হচ্ছে। বস্তুটি আসলে কী সেই বিষয়টি নিদিষ্ট করবে ও ছবি তুলবে এটি।

সোলিসতিও জানান, যেখানে বিমানের বিশাল অংশের সন্ধান পাওয়া গেছে, সেখানে লাশ উদ্ধারে ডুবুরি পাঠানো হয়েছে। কিছুক্ষণের মধ্যে পানির নিচে নামবে উদ্ধারকারী দল। যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর দুটি উদ্ধারকারী জাহাজও সেখান হাজির হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close