ইউরোপ জুড়ে

কো-পাইলটই বিধ্বস্ত করেছেন জার্মান বিমান

আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: ফ্রান্সের আল্পস পর্বতমালায় জার্মানউইংস-এর বিমান বিধ্বস্ত হয়ে দেড় শ’ আরোহীর সবাই নিহত হওয়ার ঘটনায় আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে শোকের বিলাপ চলছে।

ঠিক এ সময়েই ফরাসি এক কৌসুলি ব্রাইস রবিন বলেছেন, ওই বিমানের কো-পাইলট আঁন্দ্রে লুবিটজ ইচ্ছা করে ওই দুর্ঘটনা ঘটিয়েছেন। তিনি যখন এ ঘটনা ঘটান তখন ককপিট থেকে প্রাকৃতিক কাজ সারতে মূল পাইলট ছিলেন বাথরুমে। এ খবর প্রকাশ হওয়ার পর তুমুল হইচই শুরু হয়ে গেছে।

তবে কি উদ্দেশে আঁদ্রে লুবিটজ এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন তা নিয়ে কেউ সঠিক কোন তথ্য জানাতে পারেন নি। ব্রাইস রবিন বলেন, বিমানের মূল পাইলট ককপিট ছেড়ে টয়লেটে গিয়েছিলেন। সে সময় তার পক্ষে বিমানের নিয়ন্ত্রণ নেয়া সম্ভব ছিল না। এই ফাঁকে বিমানের কো-পাইলট আঁদ্রে লুবিটজ ইচ্ছা করে দ্রুত বিমানটি নিচু করে চালানো শুরু করেন।

এর ফলে বিমানটি আল্পস পর্বতমালায় বিধ্বস্ত হয়। পাইলট বাথরুম থেকে ফিরে দ্রুত ককপিটের দরজায় ধাক্কা মারেন। কিন্তু দরজা খোলা হয়নি। এয়ার কন্ট্রোলের কোন কলে সাড়া দেননি কো-পাইলট। এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে বিমানটির উদ্ধার করা ভয়েস রেকর্ডার বা ব্লাক বক্স পরীক্ষা করে।

রবিন আরও বলেন, কো-পাইলটের উদ্দেশ্যই ছিল বিমানটি ধ্বংস করা। উদ্ধার করা ব্ল্যাকবক্সে কো-পাইলটের কোন কথাই শোনা যায় নি। শুধু কো-পাইলটের স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাসের শব্দ শোনা গেছে। মূল পাইলট ককপিট ছেড়ে চলে যাবার পর থেকে পিনপতন নীরবতা বিরাজ করছিল তাতে। একেবারে শেষ মুহুর্তে শোনা যাচ্ছিল বিধ্বস্ত হবার আগ মুহুর্তে অ্যালার্ম বেজে উঠছে। এখানে উল্লেখ্য, লুবিটজের বয়স ২৮ বছর। তিনি বিমান চালানো বিষয়ে কড়া প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। কোন অঘটন ছাড়া তিনি শতভাগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close