Featuredঅর্থনীতি

২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে বাজেটে বিদেশি সহায়তা লাগবে না

আসিফ সাখাওয়াত কল্লোল: আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে জাতীয় বাজেট প্রণয়নে বাংলাদেশের কোনও বিদেশি অার্থিক সহায়তা লাগবে না বলে মনে করছে বিশ্বব্যাংক। আর এ কারণে অাগামী অর্থবছর থেকে বাংলাদেশকে দেওয়া বিশ্বব্যাংকের নিয়মিত অর্থ সহায়তার বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

সম্প্রতি সরকারের একটি অভ্যন্তরীণ সূত্রে সংস্থাটির এমন ভাবনার কথা জানা গেছে। তবে অাগামী এপ্রিলে ওয়াশিংটন ডিসিতে বিশ্বব্যাংক ও অান্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (অাইএমএফ) মধ্যে বৈঠকে বিষয়টির চূড়ান্ত হবে বলে অাশা করা হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের অর্থ বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে অামাদের একটি দীর্ঘ বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে অাগামী অর্থবছরে বাজেট সহায়তা নিয়ে তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। কিন্তু বৈঠক শেষে তারা নিরপেক্ষ ভাবেই জানান, অাগামী অর্থবছরে বাংলাদেশের অার কোনও অতিরিক্ত বাজেট সহায়তা লাগবে না।’

অর্থ বিভাগের এক সূত্রে জানা গেছে, সরকার এখন অাগামী অর্থবছরের জন্য বিশ্বব্যাংকের ৫০ কোটি ডলারের অার্থিক সহায়তা ছাড়াই ৭৭ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার ঘাটতিসহ মোট ২ লাখ ৯১ হাজার ৬০০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তুত করতে চলেছে। নিজস্ব পুঁজিতেই এই বাজেট প্রণয়ন করতে কোনও সমস্যা হবে না বলেও মনে করছে অর্থ বিভাগ।

অবশ্য অর্থ বিভাগের অারেকটি সূত্র জানায়, সরকার এখন চাইছে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে বিশ্বব্যাংকের সহায়তা নিশ্চিত করতে। এ বিষয়ে সংস্থাটির অাগামী বসন্তকালীন অধিবেশনেই সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

গত বছর মে মাসে বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের নির্বাহী পরিচালক এমএন প্রসাদের সঙ্গে বৈঠকের পর অর্থমন্ত্রী অাবুল মাল অাব্দুল মুহিত ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে, সরকার বৈশ্বিক ঋণদাতাদের কাছ থেকে ৫০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা চাইতে পারে।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘বিশ্বব্যাংক ও অাইএমএফ-এর বসন্তকালীন বৈঠকে এ নিয়ে অালোচনা হতে পারে। তিনি আরও জানান, গত অর্থবছরে বাংলাদেশ বিশ্ব ব্যাংকের কাছ থেকে উন্নয়ন সহায়তা হিসেবে ২৭০ কোটি ডলার পেয়েছিল। বর্তমান অর্থবছরে এই সহায়তা ২০০ কোটি ডলার পাওয়া যাবে বলেও জানান তিনি।

বিষয়টি নিয়ে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘আগামী অর্থ বছরের জন্য অামাদের বাজেট সহায়তা দরকার হলেও বিশ্ব ব্যাংক এখনও এ বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব দেখায়নি।’ তিনি আরও জানান, অবরোধ হরতাল সত্ত্বেও গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ১৬ শতাংশ বেশি রাজস্ব অাদায়ে সক্ষম হয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close