জাতীয়

শুরুর আগেই সবার ভোট দেয়া শেষ: গণমাধ্যম নিষিদ্ধ ভোটকেন্দ্রে

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: সকাল সকাল ভোটাররা আসলেন ভোট দিতে। এসে দেখলেন তাদের সবার ভোট দেয়া হয়ে গেছে। ভোটাররা বিক্ষোভ করলেন। তাদের লাঠিপেটা করে সরিয়ে দেয়া হলো। ভোটগ্রহণ না করেই ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হলো। এই ঘটনা ঘটেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বংশালে সুরিটোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২ নম্বর কেন্দ্রে।

প্রিজাইডিং অফিসার শওকত আলী জানান, রিটানিং অফিসারের নির্দেশে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। তবে স্থগিতের কোনো কারণ তিনি জানাতে পারেননি। সকাল ৭ টা থেকে ভোটারা ওই কেন্দ্রের বাইরে লাইনে অপেক্ষা করছিলেন। হঠাৎ কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই এ ধরণের সিদ্ধান্তের ফলে প্রিজাইডিং অফিসারের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করছেন বিক্ষুব্ধ ভোটার ও প্রার্থীরা।

এক পর্যায়ে তারা ভাঙচুর শুরু করলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে।ভোট কেন্দ্রে এমপি মিটিংয়ে! রাজধানীর ধোলাইপাড় উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র। বাইরে স্থানীয় সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার গাড়ি। তার গাড়ি ঘিরে কর্মীদের জটলা। ওই কেন্দ্রের দুই তলার পশ্চিম দিতে যেতে চাইলে গণমাধ্যমকর্মীদের পথ আগলে দাঁড়ান একজন। বলেন ওদিকে যাবেন না।

কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমপি মিটিং-এ ব্যস্ত। কিসের মিটিং জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের দলীয় লোকজনকে নিয়ে মিটিং করছেন। এদিকে একই কেন্দ্রে সকাল নয়টা পর্যন্ত এক ঘণ্টায় ভোট পড়ে ৯টি। এ বিষয়ে সাংবাদিকরা জানান, আগের যেকোন নির্বাচনে সাংবাদিকরা কেন্দ্রের ভেতরের চিত্র দেখানোয় কোনো বিধিনিষেধে পড়েনি বা তাদের পেশাগত কাজে বাধা প্রদান করা হয়নি। পুলিশ এর উত্তরে জানায়, উপর থেকে তাদের কাছে যা নির্দেশনা আছে তা তারা মেনে চলছেন।

ঢাকা সিটি দক্ষিণ ও উত্তরের বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রের ভেতরে গণমাধ্যম কর্মীদের ঢুকতে বাধা দিয়েছে পুলিশ। বিশেষ করে ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিক ও ক্যামেরা নিয়ে কেন্দ্রের ভেতরে প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করছে পুলিশসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে পুলিশ জানায়, ভোট কেন্দ্রের কোনো চিত্র সরাসরি না দেখানোর বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এ বিষয়ে লিখিত কোনো নির্দেশনা আছে কিনা জানতে চাইলে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংশ্লিষ্টরা জানায়, তাদের মৌখিক নির্দেশনা রয়েছে।

জানা যায়, রাজধানীর মিরপুর ১১ নম্বর ওয়ার্ডের বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়, মোহাম্মদপুরের কিশলয় স্কুল, মোহাম্মদপুরের কাদেরিয়া মাদ্রাসা ও বরাব মোহনপুর স্কুল এবং খিলগাঁও এবং গুলশানসহ বেশ কয়েকটি ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে পুলিশের বাধার মুখে পড়েন সাংবাদিকরা। এ সময় ছবি তোলা ও ইলেকট্রনিঙ মিডিয়া নিয়ে কেন্দ্রে ঢুকতে নিষিদ্ধ বলে জানায় পুলিশ।

এদিকে কয়েকটি কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, এ বিষয়টি তাদের নিয়ন্ত্রণে নেই। কেন্দ্রের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ ও বিভিন্ন বাহিনী রয়েছে। তারা এ বিষয়ে ভালো বলতে পারবেন। এ ছাড়া ঢাকা সিটি দক্ষিণ ও উত্তরের বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, কেন্দ্রের ভেতরে সরাসরি সমপ্রচারে বিধিনিষেধ আছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close