আরববিশ্ব জুড়ে

সেই ব্রিটিশ তরুণীরা আইএস ক্যাম্প থেকে পালিয়েছে

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: চলতি বছরের ফেব্রয়ারি মাসে পূর্ব লন্ডনের বাঙালি অধ্যুষিত বেথনাল গ্রিন থেকে আইএস জঙ্গিদের সাথে যোগ দিতে সিরিয়া পালিয়ে যাওয়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত তরুণীরা ব্রিটেন ফেরার উদ্দেশ্যে আইএসআইএল এর ক্যাম্প থেকে পালিয়েছে। পালিয়ে আসা বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত তরুণী খাদিজা সুলতানা ও শামিমা বেগমের সাথে তাদের সহযাত্রী আদিজা আবেজও রয়েছে বলে জানা গেছে।

মসুল আই নামের একটি ব্লগের পোস্টিংয়ে এমনটিই ধারণা করছেন একজন ইরাকি ব্লগার, যিনি বসবাস করছেন ইরাকি শহর মসুলে। তিন ব্রিটিশ তরুণী, যারা আইএসআইএল’র জঙ্গিদের বিয়ে করেছিলো, প্রতিটি চেক পয়েন্টে তাদের হন্যে হয়ে খুঁজছে আইএসআইএল, এই তিন তরুণী লন্ডনের সেই স্কুলগার্ল, যারা চলতি বছর ফেব্রয়ারি মাসে আইএস জঙ্গিদের সাথে যোগ দিতে সিরিয়া পালিয়ে এসেছিলো

এমনটিই ধারণা হচ্ছে, এমন তথ্য দিয়ে ইন্ডিপেন্ডেন্ট হিস্টোরিয়ান দাবিদার ছদ্মনামের ঐ ব্লগার ৫ই মে পোস্ট দেন মসুল আইএ। অনুমান নির্ভর এই খবরটি ৫ই মে মসুল আই’এ পোস্ট করা হলেও ১২ মে আরেকটি ফলোআপ পোস্টে ব্লগার জানান আইএসআইএল ক্যাম্প থেকে পালিয়ে যাওয়া তরুণীরা গত ফেব্রয়ারি মাসে ব্রিটেন থেকে পালিয়ে আসা ঐ তিন তরুণী কি না তা অবশ্য এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তিনি বলেন, আমাদের কাছে এখন পর্যন্ত আর কোন তথ্য নেই, নতুন তথ্য পাওয়ার সাথে সাথে তা পোস্ট দেয়া হবে।

এদিকে তিন তরুণীর পালিয়ে আসার এই তথ্যসম্বলিত ব্লগটি ব্রিটিশ মিডিয়ার দৃষ্টিগোচর হলে এটি নিয়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। আইটিভি’র গুড মর্নিং ব্রিটেন অনুষ্ঠানে পালিয়ে যাওয়া তরুণীদের বিষয়ে প্রশ্ন করলে হোম সেক্রেটারি থেরেসা মে বলেন, ব্রিটেনে ফেরত আসার বিষয়টি পর্যায়ক্রমে বিবেচনা করা হবে।

তিনি বলেন, নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে আইএস’র সাথে যোগ দিয়েছেন এমন কিছু ব্রিটিশ নাগরিক আবার দেশে ফেরত আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তারা যে ধারণা নিয়ে সেখানে গিয়েছিলেন, ‘বাস্তবতা সেই ধারণার মত নয়’ এটি তারা বুঝতে পেরেছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্রিটিশ ফরেন অফিসের একজন মুখপাত্র জানান, রিপোর্টটি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে, বিষয়টি দেখছি আমরা।

উল্লেখ্য, পূর্ব লন্ডনের বাঙ্গালি অধ্যুষিত বেথনাল গ্রিন একাডেমির তিন ছাত্রী খাদিজা, শামীমা ও আদিজা চলতি বছরের ফেব্রয়ারিতে আইএস এর সাথে যোগ দিতে তুরস্ক হয়ে সিরিয়া পালিয়ে যায়। এদের দুজনের বয়স ১৫ ও একজনের ১৬ বছর। তিন জনের মধ্যে খাদিজা ও শামীমা বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত। তিন স্কুল ছাত্রী তুরস্ক সীমান্ত অতিক্রম করে সিরিয়ায় ঢোকে এবং ধারণা করা হয় সিরিয়া’র রাক্কা শহরে বসবাস করছিলো তারা। এ পর্যন্ত প্রায় ৬শ’ ব্রিটিশ নাগরিক আইএস জঙ্গিদের সাথে যোগ দিতে সিরিয়া ও ইরাক গমন করেছে বলে ব্রিটিশ গোয়েন্দাদের ধারণা। এর মধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভুতদের সংখ্যাও উল্লেখযোগ্য।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close