অন্য পত্রিকা থেকে

যুক্তরাজ্য বিএনপির কমিটি বিড়ম্বনা

নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাজ্য বিএনপির নবগঠিত কমিটিনিয়ে সৃষ্ট জটিলতা ও অচলাবস্থায় ক্ষুব্ধ বিএনপিরসিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। কমিটি গঠননিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদেরঅনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা স্বজনপ্রীতি এবং আর্থিকলেনদেনের অভিযোগ ও প্রমাণাদি তারেক রহমানেরটেবিলে যাবার পর তিনি ক্ষুব্ধ মনোভাব ব্যক্ত করেছেন।

বিএনপির ভাবমূর্তি রক্ষার্থে ক্ষুব্ধ তারেক রহমান দলের সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদকে ডেকে নিয়েতিরস্কারের পাশাপাশি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর শেষে তাকে পদত্যাগের ইঙ্গিত দিয়েছেন। শেষ মুহুর্তে তারেক রহমানের মনোভাবের কোনো পরিবর্তন না হলে শীঘ্রই পদ হারাচ্ছেন কয়ছর এম আহমদ।

নতুন সাধারণ সম্পাদক পদে তারেক রহমানের উপস্থিতিতে কাউন্সিলের মাধ্যমে একজনকে নির্বাচিত করার পরিকল্পনা রয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারেক রহমানের ঘনিষ্ট একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র এই প্রতিবেদককে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

যুক্তরাজ্য বিএনপির নবগঠিত কমিটি ঘোষণার পরনেতা কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে। কমিটিতে স্থান হয়নি অনেক যোগ্য, সক্রিয় ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীর। কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের এলাকা জগন্নাথপুরের ২২ জনকে পদ দেয়া হয়েছে। আর সুনামগঞ্জ জেলা বিবেচনায় নিলে এই সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৭ জনে। বিগত দিনের আন্দোলন সংগ্রামে যারা কঠোর পরিশ্রম করেছেন তাদের অনেককে এবারের কমিটিতে স্থান দেয়া হয়নি। ছাত্রদল থেকে উঠে আসা অনেক যোগ্য নেতৃত্বকে এবার অবমূল্যায়ন করে ভালো কোনো দায়িত্বে দেয়া হয়নি ।

গত ১৯ মে এম এ মালেককে সভাপতি এবং কয়সর এম আহমদকে সাধারন সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণার পর ১০১ সদস্য বিশিষ্টপূর্ণাঙ্গ কমিটি করে দেবার জন্য তারেক রহমান সভাপতি-সম্পাদককে দায়িত্ব দেন। পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে নেতাকর্মীরা আশায় বুক বেঁধে ছিলেন। সবাই ভেবেছিলেন এবার হয়তো একটি ভালো কমিটি হবে। তবে দীর্ঘ প্রতিক্ষারপর অবশেষে যে কমিটি এলো তাতে হতাশ হয়েছেনত্যাগী ও নিবেদিত প্রাণ নেতাকর্মীরা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এমআহমেদের হস্তক্ষেপে শেষ মুহুর্তে এবারের কমিটিতে নেতাকর্মীদের আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটেনি। এবারের কমিটিতে সবচেয়ে বিতর্কিত বিষয়টি হলো ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদ দেয়া। যিনি কখনোই সরকার বিরোধী কোনো আন্দোলন সংগ্রাম বা মিছিল সমাবেশে যোগ দেননি, যিনি আইন পেশা ও টেসকোর চাকুরী নিয়েই ব্যস্ত থাকেন তাকে এমন পদায়ন নানা বির্তর্কের সৃষ্টি করেছে।

বর্তমান কমিটিতে স্থান পাননি সাবেক কমিটির সহসভাপতি তৈমুছ আলী, আক্তার হোমেন টুটুল, তাজুল ইসলাম, আহমদ আলী, মুজিবুর রহমান মুজিব, সহ সাধারণ সম্পাদক হেলাল নাসিমুজ্জামান, লিটন আফিন্দীসহ অনেক সম্পাদকীয় পদধারী। সাবেক কমিটির সক্রিয় দুই নেতা প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ চৌধুরী, সহ সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রদল নেতা এডভোকেট তাহির রায়হান চৌধুরী পাবেলকে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। এছাড়া তরুণ সংগঠকআবেদ রাজা, নুরুল ইসলাম, করিম উদ্দিন, সাদিক মিয়া, এডভোকেট খলিলুর রহমান, মিসবাহুজ্জামান সোহেল, টিপু আহমেদ, আব্দুল বাছিত বাদশার মতো নেতাদেরও সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে ।

কোনো জোনাল কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে যুক্তরাজ্য বিএনপিতে পদ না দেয়ার নির্দেশনা থাকলেও সাতটি জোনের নয়জনকে যুক্তরাজ্য বিএনপিতে পদ দেয়া হয়েছে, যা শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশনার পরিপন্থী। অপরদিকে লন্ডনে সাংগঠনিকভাবে দক্ষ অনেক নেতা থাকা সত্ত্বে লুটনের বাসিন্দা শামীম আহমেদকে করা হয়েছে লন্ডনের (অঞ্চল-১ এর ) সাংগঠনিক সম্পাদক। যা রীতিমত হাস্যকর।

কমিটি ঘোষনার পরপরই হতাশ হয়ে কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেকভিপি ও যুক্তরাজ্য বিএনপির দুইবারের আইন বিষয়ক সম্পাদক সলিসিটর বিপব পোদ্দার। পরে ৩ আগষ্ট জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক ও যুক্তরাজ্য বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এমএ কাদির এক সাংবাদিক সম্মেলন করে কয়ছর এমআহমদের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা ও দলকে কুক্ষিগতকরার অভিযোগ করেন।

কয়সর এম আহমদকে বিএনপি’র সুবিধাভোগী উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে এমএ কাদির বলেন, কয়সর এম আহমদ ও তার পরিবারের সদস্যদের ব্যবসা বাণিজ্য সবই হচ্ছে আওয়ামীলীগের সাথে। বাংলাদেশ ছাড়াও যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ নেতা, অনলাইন পত্রিকার সম্পাদক ও ব্লগার সুশান্ত দাস গুপ্তেরসাথে কয়ছরের ব্যবসা রয়েছে। এই সুশান্ত দাসদেশনায়ককে নিয়ে সবচেয়ে বেশী কাল্পনিক প্রচারণা চালায়।

এছাড়া মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর বিধবা স্ত্রীকে নিয়েও সে অপপ্রচার চালিয়ে জিয়া পরিবারকে হেয় করার চেষ্টা করেছে। এম এ কাদির আওয়ামীলীগের সাথে গোপন আতাতকারী, দেশনায়ক তারেক রহমান ও শহীদ জিয়াউর রহমানের পরিবারের প্রতি কুৎসা রটনাকারী আওয়ামী ব্লগার সুশান্ত দাশ গুপ্তের ব্যবসায়িক পার্টনার কয়ছর এম আহমদকে দল থেকে বহিস্কারের দাবি জানান।

এম এ কাদিরের সংবাদ সম্মেলনের পর ৭ আগষ্ট অপরএক সংবাদ সম্মেলনে সাবেক যুবদল নেতা ও যুক্তরাজ্যবিএনপি নেতা আশরাফুল ইসলাম হীরা নবগঠিককমিটিতে অযোগ্যদের স্থান দেয়া ও ত্যাগী নেতাকর্মীদেরবঞ্চিত ও অবমূল্যায়নের জন্য বর্তমান সভাপতি ওসাধারণ সম্পাদককে দায়ী করেন। তিনি নবগঠিত কমিটিবাতিল ও যথাযথ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠনের জন্য দেশনায়ক তারেক রহমানের প্রতি আহ্বান জানান।

এদিকে, ১২ আগষ্ট যুক্তরাজ্য বিএনপির একটি সভা পদ বঞ্চিত বিদ্রোহী বিএনপি নেতাকর্মীদের প্রতিবাদে পন্ডহয়। বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা তখন বিএনপি অফিসের চেয়ার-টেবিলও ভাংচুর করে। এ নিয়ে নতুন কমিটি এবং পদ বঞ্চিত নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close