জাতীয়

সাকা চৌধুরী ও মুজাহিদের বিরুদ্ধে মৃত্যু পরোয়ানা জারি

 

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: একাত্তরের বদরপ্রধান আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ও মুক্তিযুদ্ধকালীন চট্টগ্রামের ত্রাস সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর যুদ্ধাপরাধের দণ্ড কার্যকরের জন্য মৃত্যু পরোয়ানা জারি হয়েছে। সর্বোচ্চ আদালত বুধবার এ দুই যুদ্ধাপরাধীর আপিল মামলার রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশের পর বৃহস্পতিবার সকালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তিন বিচারক তাদের মৃত্যু পরোয়ানায় সই করেন।

সম্প্রতি পুনর্গঠিত একমাত্র ট্রাইব্যুনালে চেয়ারম্যান হিসাবে রয়েছেন বিচারপতি মো. আনোয়ারুল হক। অন্য দুন হলেন- বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম, বিচারপতি মোহাম্মদ সোহরাওয়ার্দী। ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার শহীদুল আলম ঝিনুক এখন এই পরোয়ানায় সই করবেন। লাল সালুতে মোড়া এই মৃত্যু পরোয়ানা এরপর নিয়ে যাওয়া হবে কারাগারে; আসামিদের তা পড়ে শোনানো হবে।

আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের আপিলের রায়টি ১৯১ পৃষ্ঠার। অন্যদিকে, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আপিলের রায় ২১৭ পৃষ্ঠার। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে আসামীপক্ষ রায় পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন (রিভিউ) দায়ের করতে পারবেন। রিভিউ আবেদন নিষ্পত্তির পর রায় বহাল থাকলে দ-প্রাপ্ত ব্যক্তির প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমা চাওয়ার পথ খোলা থাকবে। তারা ক্ষমা প্রার্থনা করলে ওই আবেদন নিষ্পত্তির পর দণ্ড কার্যকর হবে।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের বিরুদ্ধে মৃত্যুদন্ডের রায় ঘোষণা করেছিল গত ১৬ই জুন। বেঞ্চের অন্য সদস্যরা ছিলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এবং বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। একই বেঞ্চ গত ২৯শে জুলাই সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে মৃত্যুদন্ডের রায় ঘোষণা করে।

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে সাংবাদিক, শিক্ষকসহ বুদ্ধিজীবী হত্যা এবং সাম্প্রদায়িক হত্যা-নির্যাতনের দায়ে ২০১৩ সালের ১৭ই জুলাই মুজাহিদকে মৃত্যুদ- দিয়েছিল আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। এ রায়ের বিরুদ্ধে তিনি আপিল দায়ের করলে আপিলেও তার মৃত্যুদ- বহাল থাকে।

অন্যদিকে, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল রায় দিয়েছিল ২০১৩ সালের ১লা অক্টোবর। প্রসিকিউশনের আনা ২৩টি অভিযোগের মধ্যে নয়টিতে তিনি ট্রাইব্যুনালে দোষী সাব্যস্ত হন। এরমধ্যে চারটি অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

৬৭ বছর বয়সী মুজাহিদ বর্তমানে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন, আর ৬৬ বছর বয়সী সালাউদ্দিন আছেন কাশিমপুর কারাগারে।

 

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close