জাতীয়

স্থানীয় সরকারের সকল নির্বাচন দলীয়ভাবে: মন্ত্রীসভায় আইন অনুমোদন

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: স্থানীয় সরকার নির্বাচন (সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, ইউপি) সংশোধন আইন অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রীসভা। এতে মেয়র, চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য পদে দলীয় মনোনয়ন ও প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থীও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবে।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে স্থানীয় সরকারের পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের সংশোধন আইন একযোগে অনুমোদন করা হয়। এসব আইন হচ্ছে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) সংশোধন আইন-২০১৫, উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন ২০১৫, জেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন ২০১৫, স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) সংশোধন আইন ২০১৫ ও স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) সংশোধন আইন, ২০১৫।

এখন স্থানীয় সরকারের মেয়াদ পাঁচ বছর। মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পর কোনো কারণে নির্বাচন না হলে আগের জনপ্রতিনিধিরাই ক্ষমতায় থাকেন। কিন্তু সংশোধিত আইন অনুযায়ী পাঁচ বছরের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পর নির্বাচন না হলেও জনপ্রতিনিধি দায়িত্বে থাকতে পারবেন না। তাঁর পরিবর্তে প্রশাসক নিয়োগ দেওয়া হবে। আগে শুধু সিটি করপোরেশন আইনে প্রশাসক নিয়োগের বিধান ছিল।

আইনটি চূড়ান্ত হলে স্থানীয় সরকার নির্বাচন হবে দলীয় মনোনয়নের ভিত্তিতে। ইসিতে নিবন্ধিত সকল রাজনৈতিক দল এসব নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে অংশ নিতে পারবে। মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোশাররফ হোসাইন ভূঁইয়া আইন অনুমোদনের বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান।

মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোশাররফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের দেশেও এ বিষয়টি নিয়ে অনেক দিন ধরে আলোচনা হচ্ছিল। পৌরসভা নির্বাচন আগামী মাসে হওয়ার সম্ভাবনা থাকায় স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) সংশোধন আইন এখন অধ্যাদেশ আকারে জারি হবে। পরে সংসদ অধিবেশনে এটি আইন আকারে পাস হবে। স্থানীয় সরকারের বাকি চারটি সংশোধনীও সংসদে আইন আকারে পাস হবে।

দলীয় মোড়কে স্থানীয় সরকার নির্বাচন করার উদ্যোগের সমালোচনা করেছে বিএনপি। দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সরকার জাতীয় নির্বাচন দাবিকে পাশকাটানোর জন্য এ ধরণের উদ্যোগ নিয়েছে।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close