অন্য পত্রিকা থেকে

সাবওয়ের স্যান্ডউইচে আস্ত ইঁদুর

নিউজ ডেস্ক: ‘ফুড সেফটি’ নিয়ে সবচেয়ে বেশি গলা ফাটায় আমেরিকানরা। ফুড সেফটি বা খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা এফডিএর নামডাক দুনিয়াজোড়া। এফডিএর অনুমোদন ছাড়া সেদেশে খাদ্যদ্রব্যের ব্যবসা করার সুযোগ নেই।

কিন্তু যতো নিয়ম ততোই নাকি লঙ্ঘন। মানে বজ্র আঁটুনি যতো, ফস্কা গেঁড়োও নাকি ততো! নইলে কি আর স্যান্ডউইচের মধ্যে পাওয়া যায় আস্ত একটা মরা ইঁদুর! হ্যাঁ, তেমনটাই ঘটেছে সেদেশের এক নামিদামি সাবওয়ে রেস্তোরাঁয়।

গত ৬ অক্টোবর ম্যাট জোনস ও জে আর্মস্টেড নামের দুই ভদ্রলোক ওরেগন অঙ্গরাজ্যের লিংকনসিটির সাবওয়ে রেস্তোরাঁয় গিয়েছিলেন খানাপিনা করতে। জে আর্মস্টেড রেস্তোরাঁয় ঢুকে একটা ইতালিয়ান স্যান্ডউইচের অর্ডার দেন।

যথারীতি অর্ডার মোতাবেক স্যান্ডউইচটা তাদের টেবিলে সার্ভও করা হলো। কিন্তু যখন তারা দুই বন্ধু তা খেতে গেলেন তখনই তাদের চোখে পড়লো স্যান্ডউইচের ভেতরে একটা আস্ত মরা ইঁদুর।

ম্যাট জোনস সঙ্গে সঙ্গে এর ছবি তুলে ফেললেন। বেলা তখন দুপুর ২টা। খবর পেয়ে সেখানকার স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ছুটে এলেন। তারা তদন্তে নামলেন।

তাৎক্ষণিক তদন্তের পর সিদ্ধান্তে এলেন এটা রেস্তোরাঁকর্মীদের কাজ নয়। এক থার্ড পার্টি সাপ্লায়ারের কাছ থেকে কেনা পালংশাকের একটা প্যাকেজের ভেতর এটা দুর্ঘটনাক্রমে চলে এসেছে।

কিন্তু তা হয়তো এলো। কিন্তু স্যান্ডউইচটা যখন তৈরি করা হলো তখন রেস্তোরাঁর লোকেরা পালং শাক স্যান্ডউইচের মধ্যে ভরার সময় দেখলো না সেখানে একটা মরা ইঁদুর? আপাতত এ-প্রশ্নের জবাব মিলছে না।

জোনস এরই মধ্যে মরা ইঁদুরের ছবিসহ সেই স্যান্ডউইচের ছবি আপলোড করেছেন ফেসবুকে। আর এ ঘটনায় প্রতিবেদন করেছে ইউএসএ টুডে, এবিসি নিউজ। একটা শিরোনাম: ‘Dead Mouse Found in Subway Sandwich in Oregon’

‘আমার জীবনে দেখা সবচে মজার জিনিস এটা কিন্তু একইসঙ্গে তা সবচে নোংরা জিনিসও’—এভাবেই নিজের অনুভূতি প্রকাশ করলেন জোনস। “It’s the funniest thing I’ve ever seen, but it’s also the most disgusting.”

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close