যুক্তরাজ্য জুড়ে

এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে ১২ জনের জেলদন্ড দিয়েছে ব্রাডফোর্ড আদালত

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের কিজলিতে এক অসহায় কিশোরীকে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানীর অভিযোগে ১২ জনের জেলদন্ড দিয়েছে আদালত। আদালতের সাজায় সন্তোষ প্রকাশ করেন কিজলির কনজারভেটিভ দলীয় এমপি ক্রিস হবকিন্স।

অভিযুক্তদের মধ্যে ১১ জনকে কিজলিতে ১৩ থেকে ১৪ বছরের এক কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়। আর একই মেয়ের সঙ্গে সেক্সুয়াল এক্টিভিটি করার অভিযোগে অপর একজনকে দন্ড দেয়া হয়।

সোমবার ব্রাডফোর্ড ক্রাউন কোর্টে জানানো হয়, ২০১১ সাল থেকে ২০১২ সালের ভেতরে প্রায় ১৩ মাস অসহায় কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়। শহরের কোনো বাসায়, আন্ডারগ্রাউন্ড কার পার্ক এমনকি চার্চের গ্রেভইয়ার্ডে কিশোরীকে ধর্ষণ করে অভিযুক্তরা। এদিকে সংঘবদ্ধ কোনো চক্র এ ধরনের কার্যক্রম চালালে সঙ্গে সঙ্গে তা আইনের চোখে ধরিয়ে দেয়ার জন্য স্থানীয় কমিউনিটির প্রতি আহ্বান জানান এমপি ক্রিস হবকিন্স।

সাজা প্রাপ্তরা হলেন ৩৪ বছর বয়সী খালিদ রাজা মাহমুদ, ২৩ বছর বয়সী তাওকির হোসাইন, ২৫ বছর বয়সী ইয়াসের কাবির, ২৩ বছর সুফিয়ান জিয়ারাব, ২১ বছর বয়সী বিলাল জিয়ারাব, ১৯ বছর বয়সী ইসরার আলী, ২৪ বছর বয়সী নাসির খান, ২০ বছর বয়সী জাইন আলী, ২৭ বছর বয়সী ফয়সাল খান, ২৯ বছর বয়সী সাকিব ইউনুস, ১৯ বছর বয়সী হোসাইন সরদার, ৬৩ বছর বয়সী মোহাম্মদ আকরাম।

অভিযুক্তদের মধ্যে তাওকির হোসাইন ২০০৯ সালেও একটি ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত ছিলেন। অপ্রাপ্ত বয়স্ক অসহায় মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে খালিদ রাজা মাহমুদকে ১৭ বছরের জেলদন্ড দিয়েছে আদালত। একই অভিযোগে কিজলির বেলগ্রেভ রোডের বাসিন্দা তাওকিরকে ১৮ বছর, বেলগ্রেভ রোডের ইয়াসি কবিরকে ২০ বছর, কিজলির ক্যান্ডলার মিলার কোর্টের বাসিন্দা সুফিয়ান জিয়ারাবের ১৫ বছর, ব্রাডফোর্ডের বাসিন্দা বিলাল জিয়ারাবের ১২ বছর, ইসরার আলীর সাড়ে ৩ বছর, নাসির খানের ১৩ বছর, জাইন আলীর ৮ বছর, ফাইসাল খানের ১৩ বছর, সাকিব ইউনুসের ১৩ বছর, হোসাইন সরদারের ৬ বছর, মোহাম্মদ আকরামের ৫ বছরের জেলদন্ড প্রদান করে আদালত।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close