পাক সীমানা জুড়ে

লাদেনের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছিলেন নওয়াজ শরীফ

 আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: আল কায়েদার সাবেক প্রধান ওসামা বিন লাদেনের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। নতুন একই বইয়ে এ দাবি করা হয়েছে। আইএসআইয়ের সাবেক অপারেটিভ খালিদ খাজার স্ত্রী শামামা খালিদের লেখা এই বইয়ের নাম ‘খালিদ খাজা: শহীদ-ই আমান’।

তে তিনি লিখেছেন, জিয়ার (পাকিস্তানের স্বৈরশাসক জিয়াউল হক) শাসন ক্ষমতা শেষে বেনজির ভুট্টো নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)র সঙ্গে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য আল কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেনের কাছ থেকে অর্থ সহায়তা গ্রহণ করেছিলেন পিএমএল-এন প্রধান মিয়া মোহাম্মদ নওয়াজ শরীফ।

এ বইয়ে দাবি করা হয়েছে নওয়াজ শরীফ একটি ইসলামিক ব্যবস্থা চালুর কথা বলেছিলেন, যা খালিদ খাজা ও বিন লাদেনকে আকৃষ্ট করেছিল। কিন্তু আল কায়েদা নওয়াজ শরীফের পিছনে বিপুল অর্থ খরচ করলেও তিনি যখন ক্ষমতায় আসীন হন তখন সব প্রতিশ্রুতি বেমালুম ভুলে যান। এ বইয়ে আইএসআইয়ের সাবেক মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল হামিদ গুলেরও একটি নোট যুক্ত করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, কিছু সময় পর্যন্ত নওয়াজ শরীফের খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন খালিদ খাজা।

এ বইয়ে আরও বলা হয়েছে, বিন লাদেনের সঙ্গে খালিদ খাজাকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন আল কায়েদার অন্যতম নেতা আবদুল্লাহ আজম। তিনি ফাদার অব গ্লোবাল জিহাদ বা বিশ্ব জিহাদের জনক হিসেবে পরিচিত। আবদুল্লাহ আজম ফিলিস্তিনের সুন্নী সম্প্রদায়ের একজন নেতা। তিনি আরব বিশ্ব থেকে জিহাদি আদর্শে উজ্জীবিতদের সংগ্রহ করতেন ও অর্থ সংগ্রহ করতেন। একজন পরামর্শক হিসেবে বিন লাদেনকে তিনি আফগানিস্তানে যেতে উৎসাহিত করেন।

এ বইয়ে দাবি করা হয়েছে, পাকিস্তানি তালেবানদের বিভক্ত একটি গ্রুপ হত্যা করে খালিদ খাজাকে। তখন তিনি উপজাতি অধ্যুষিত একটি শান্তি মিশনে দায়িত্বরত ছিলেন। তিনি অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল ইমাম ও বৃটিশ সাংবাদিক আসাদ কুরেশির সঙ্গে গিয়েছিলেন উত্তর ওয়াজিরিস্তানে। সেখানে খালিদ খাজা ও কর্নেল ইমামকে সন্ত্রাসীরা হত্যা করে।

তবে কুরেশিকে পরে মুক্তিপণের বিনিময়ে মুক্তি দেয়া হয়। ২০১০ সালের ২৬শে মার্চ খালিদ খাজা ও এ দু’জন নিখোঁজ হন। তারা ওইদিন একটি ডকুমেন্টারি নির্মাণের জন্য গিয়েছিলেন উত্তর ওয়াজিরিস্তানে। এর দু’এক সপ্তাহ পরেই তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। তাকে হত্যার দায় স্বীকার করে এশিয়ান টাইটারস নামে একটি গ্রুপ। এর আগে এ গ্রুপের নাম শোনা যায় নি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close