অস্ট্রেলিয়া জুড়ে

পানামা পেপার্স কেলেংকারীতে অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারির পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার নিজ নিজ দেশের বিত্তবান ও সেলিব্রেটিদের আর্থিক অনিয়ম তদন্ত শুরু করেছে। এবার পানামা পেপার্সের দ্বিতীয় কিস্তিতে এবার অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুলের নাম। কিন্তু কোনো ধরনের অন্যায়ের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছেন তিনি।

সুখোই লগ নামে সার্বিয়ান স্বর্ণ খনি কোম্পানিটি আনুমানিক ২ হাজার কোটি অস্ট্রেলীয় ডলার উপার্জন করার আশা করেছিল বলে অস্ট্রেলীয় ফাইনান্সিয়াল রিভিউয়ে দাবি করা হয়েছে। ম্যালকম টার্নবুল এবং নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রিমিয়ার নেভিল রান ১৯৯৩ সালে অস্ট্রেলিয়ায় তালিকাভুক্ত স্টার মাইনিং এনএল-এর বোর্ডে যোগ দিয়েছিলেন।

টার্নবুল এবং রান দু’জনেই পর্যায়ক্রমে স্টার টেকনোলজি সার্ভিসের পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন। ব্রিটিশ ভার্জিনিয়া দ্বীপের স্টার মাইনিং কোম্পানির ভর্তুকিতে চলা প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে পানামার ল’ফার্ম মোস্যাক ফনসেকার যোগাযোগ ছিল।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, অসংগতির কোনো ইঙ্গিত সেখানে নেই। সেখানে নতুন কিছু নেই। তিনি আরো বলেন, আমি এবং নেভিল রান যে কোম্পানির পরিচালক ছিলাম তা ছিল অস্ট্রেলিয়ায় নিবন্ধিত কোম্পানি। এই কোম্পানি কি লাভের মুখ দেখেছে? আফসোস, দেখেনি। যদি দেখে তবে অবশ্যই অস্ট্রেলিয়ায় কর দেবে।

ফাঁস হয়ে যাওয়া প্রায় ১ কোটি ১৫ লাখেরও বেশি নথি থেকে গেল ৪০ বছর ধরে মোস্যাক ফনসেকা রাজনীতিবিদসহ তাদের ক্ষমতাশালী মক্কেলদের কীভাবে অর্থ পাচারে সহযোগিতা করেছে, নিষেধাজ্ঞা এড়ানোর ও কর ফাঁকি দেওয়ার পথ দেখিয়েছে, সেসব তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। এতে করে ওইসব ব্যক্তিরা বিব্রতকর অবস্থায় পড়ার পাশাপাশি ইতিমধ্যে একজন সরকারপ্রধানসহ কয়েকজন পদত্যাগেও বাধ্য হয়েছেন।

পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারির পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার নিজ নিজ দেশের বিত্তবান ও সেলিব্রেটিদের আর্থিক অনিয়ম তদন্ত শুরু করেছে। ইতিমধ্যে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বন্ধু, যুক্তরাজ্য ও পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় এবং চীন ও ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্টের আত্মীয়ের বিরুদ্ধে কর ফাঁকি দিতে মোস্যাক ফনসেকার সহায়তা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

সাবেক বিনিয়োগ ব্যাংকার ও প্রযুক্তির উদ্যোক্তা চলতি বছরের ১২ জুলাই দেশটিতে আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের প্রচারণা চালাচ্ছেন। ক্ষমতাসীন লিবারেল-ন্যাশনাল জোটকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি। পানামার আইনি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান মোস্যাক ফনসেকার মাধ্যমে কর ফাঁকি দিয়ে সম্পদের পাহাড় গড়ায় অফশোর লেনদেন সংক্রান্ত নথিগুলো চলতি বছরের এপ্রিলের শুরুতে প্রকাশ্যে আসে। পানামা পেপার্স নাম দেওয়া এসব নথি ফাঁসের পুরো বিষয়টিকে বলা হচ্ছে পানামা পেপারস কেলেঙ্কারি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close