এশিয়া জুড়ে

দক্ষিণ এশিয়া জুড়ে রেল যোগাযোগ বাড়াতে নতুন রেলপথ স্থাপন করছে চীন

শীর্ষবিন্দু আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক: গোটা দক্ষিণ এশিয়ায় সঙ্গেই যোগাযোগ ব্যবস্থায় উন্নতি ঘটাতে চায় চীন। ভারতের বিহার রাজ্যের কাছাকাছি রেলপথ বিছিয়ে ভারতসহ নেপাল জুড়ে রেলপথ স্থাপন করছে চীন। এমনটাই জানিয়েছে চীনা সরকারের সাহায্যপ্রাপ্ত মিডিয়ার একাংশ।

আর সে জন্য এ বার রেলপথকেই হাতিয়ার হিসাবে বেছে নিয়েছে চীন। আসলে নেপালে আন্তঃসীমান্তে রেলপথ বিছিয়ে বিহার তথা ভারতের আরো কাছাকাছি আসতে চায় চীনা সরকার। এ জন্য নেপালের রসুয়াগ়ড়ি পর্যন্ত রেলপথ তৈরির করার প্রকল্প রয়েছে চীনের।

আগামী ২০২০ সালের মধ্যে দু’দেশের মধ্যে এই পরিকল্পনা রূপায়ণের সম্ভাবনা রয়েছে। প্রকল্পটি দিনের আলো দেখলে আমূল পরিবর্তন হবে চীন-ভারত বাণিজ্য সম্পর্কে। নেপালের রসুয়াগড়ি থেকে মাত্র ২৪০ কিলোমিটার দূরেই বিহারের বীরগঞ্জ। ফলে, প্রকল্প শেষ হলে এই রেলপথ দিয়ে চিনের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্যে সবচেয়ে লাভবান হবে বিহার।

কারণ, দূরত্ব কম হওয়ায় কলকাতা রুট দিয়ে চীনে পণ্য রফতানিতে যে সময় বা অর্থের প্রযোজন, একধাক্কায় অনেকটাই তা কমে যাবে। ফলে উপকৃত হবেন বিহারের ব্যবসায়ীরা।

কিন্তু এতে চীনের কী লাভ? চিনা মিডিয়ার দাবি, শুধুমাত্র বিহার বা নেপাল নয়— এই রেলপথের ফলে আখেরে লাভবান হবে চীনই। কারণ, রেলের মাধ্যমে গোটা দক্ষিণ এশিয়ার সঙ্গে সংযোগস্থাপন করতে পারবে চীন। তবে প্রকল্প রূপায়ণে এখনো বেশ কিছু বাধা রয়েছে।

গত মার্চেই চীনের সঙ্গে রেল ও স্থলপথে পরিষেবা নিয়ে একটি ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষর করেন বেইজিং সফররত নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি।

ওই চুক্তি অনুযায়ী, চীনের গাংসু প্রদেশের লানঝউ থেকে নেপালের কাছাকাছি তিব্বতীয় শহর শিগেজে মালবাহী ট্রেন পরিষেবা শুরু করেছে চীন। সেখান থেকে স্থলপথে নেপালে ওই মালপত্র পাঠানো সম্ভব হবে। সমুদ্রপথে যা পাঠাতে পঁয়ত্রিশ দিন বেশি সময় লাগত।

চীনা মিডিয়া রিপোর্টের দাবি, নেপালের বেশ কয়েকটি অভ্যন্তরীণ প্রকল্প ইতিমধ্যে নাকচ করে দিয়েছে সে দেশের সরকার। ভারতের উপর নেপালের তথাকথিত নির্ভরশীলতা নিয়ে সম্প্রতি যে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে তা মেটাতে এ মাসের গোড়ায় কৌশলগত পদক্ষেপ করেছে চীন। হিমালয়ের দুর্গম পথ দিয়ে কাঠমান্ডু পর্যন্ত স্থলপথ ও রেললাইনের মাধ্যমে পরিষেবা শুরু করেছে তারা।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close