লন্ডন থেকে

বাংলাদেশে নিয়োগপ্রাপ্ত ব্রিটিশ বাণিজ্যিক দূত রুশনারা আলী এমপিকে সংবর্ধনা দিলো ইউকেবিসিসিআই

শীর্ষবিন্দু নিউজ ডেস্ক: ব্রিটেন বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্য বাড়াতে আগ্রহী। বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়াতে চেষ্টা করছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত ব্রিটিশ এমপি রুশনারা আলী এমপি।

বুধবার পশ্চিম লন্ডনে একটি হোটেলে ইউকে বাংলাদেশ ক্যাটালিস্ট অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রীজ ইউকেবিসিসিআই আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের বাণিজ্য দূত রুশনারা আলী এমপি একথা বলেছেন।

ব্যারিস্টার আনওয়ার বাবুল মিয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন ইউকেবিসিসিআই এর সহ সভাপতি এম এ মালেক, ফাইনান্স ডাইরক্টর নাজমুল ইসলাম নুরু, ডাইরেক্টর অফ ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড এফেয়ার্স আজাদ আলী।

এছাড়া ব্রন্ট কাউন্সিলের মেয়র পারভেজ আহমদ ও লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি নবাব উদ্দিন বক্তব্য দেন। সভা শেষে রুশনারা আলীর হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয় ইউকেবিসিসিআই এর পক্ষ থেকে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ইউকেবিসিসিআইএর প্রেসিডেন্ট বজলুর রশীদ এমবিই বলেন, রুশনারা আলী বাণিজ্যিক দূত হওয়ায় আমরা খুশি। আমরা দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক বিনিয়োগ কিভাবে বাড়ানো যায় সে বিষয়ে কাজ করতে চাই। সংগঠনটির চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ ওবিই বলেন, বিনিয়োগের ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করতে সকল বাঁধা অপসারনে রুশনারা আলীর সাথে আমরা কাজ করতে চাই।

ইউকেবিসিসিআই এর চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ ওবিই বলেন,রুশনারা আলী ইউকেটিআই এর দূত নির্বাচিত হয়েছেন। তাই আমরা তার এই অর্জনকে সম্মান জানানোর জন্য এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছি। আমাদের এমন একজন মানুষ প্রয়োজন। তিনি বাংলাদেশের ব্যবসা ব্রিটেনে এবং ব্রিটেনে বাণিজ্য বাংলাদেশে সম্প্রসারেনের লক্ষে কাজ করবেন। আর এই সুযোগটিকে কাজে লাগাতে চায় ইউকেবিসিসিআই। তিনি আরো বলেন, পাশ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশ ইউকেটিটিআইর সাথে কাজের ক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে গেছে। রোশনারা আলীর মাধ্যমে আমরা সেই শুন্যতা পুরণ করতে চাই। এর জন্য কমিউনিটির সকল ব্যবসায়ীদের এগিয়ে আসারও আহবান জানান তিনি।

ইউকেবিসিসিসিআই এর প্রেসিডেন্ট বজলুর রশীদ এমবিই বলেন, আমাদের সংগঠন বাংলাদেশ থেকে ব্রিটেনে এবং ব্রিটেন থেকে বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য কাজ করছে। ফলে বাণিজ্যিক দূত হিসেবে রুশনারা আলীকে পেয়ে আমাদের সেই কাজটি আরো সহজ হবে। আমরা সাবেক ব্রিটিশ হাই কমিশনার বরার্ট গিবসনকে বলেছিলাম, বাংলাদেশে একটি ব্রিটিশ বাণিজ্যিক এলাকা প্রতিষ্ঠা করলে কেবল ব্রিটিশ বাংলাদেশীরা নয়, ব্রিটিশরাও বিনিয়োগ করবে। এটা আমাদের কাজের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। আর এই উদ্যোগ বাস্তবায়িত হলে দুই দেশের বাণিজ্যিক পরিবেশ আরো সহজ হবে।

লন্ডনের সদ্য বিদায়ী বাংলাদেশ হাই কশিনের রাষ্ট্রদূত আব্দুল হান্নান বলেছেন, দুই দেশের বিনিয়োগ আকর্ষনে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতার দরজা খোলা রয়েছে। এ বিষয়ে কাজ করার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ তৈরী রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

রুশনারা আলী এমপি বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করা বড় দেশগুলোর একটি যুক্তরাজ্য। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্যের ২৪০ টি কোম্পনি বাংলাদশের বিভিন্ন খাতে কাজ করছে। রুশনারা আলী বলেন, দুই দশের মধ্যে ২ দশমিক ৩ বিলিয়ন পাউন্ডের উপর বাণিজ্য হয়। এটি একটি বিশাল অংক এবং তা আরও বাড়ানো যেতে পারে। এজন্য আর্থিক প্রবৃদ্ধি ও সমৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার উপরও গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

সাভারের রানা প্লাজা মর্মান্তিক দুর্ঘটনার কথা উল্লেখ করে এ ধরনের ঘটনা রোধে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সরকারকের ও দায়িত্ব নেওয়ার আহবান জানান রুশরানা । বাংলাদেশর তৈরি পোশক শিল্পে পরিস্থিতির উন্নতি হলেও তা পর্যপ্ত নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি। রোশনারা আলী বলেন, দায়িত্ব নেওয়ার আগে যুক্তরাজ্যে প্রধানমন্ত্রীর অফিসে আমি শর্ত দিয়েছিলাম, শ্রমিকদের উন্নত পরিবেশে, সুষ্ঠু প্রশাসন ও মানুষের সাথে ভালো আচরন করা না গেলে বাণিজ্য ও আর্থিক প্রবৃদ্ধি প্রমোট করতে পারবো না। ভালো কথা হচেছ, দুই দেশের সরকারই এ বিষেয়ে একমত হয়েছে।

বাংলাদেশ তার হৃদয়ে রয়েছে উল্লেখ করে রুশনারা দরিদ্র দুরীকরণ, অনৈতিক উন্নয়, জলবায়ু পরিবর্তসহ ননা ধরনের প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলায় সাহায্য করার ইচ্চা প্রকাশ করেন। ব্রিটেনের ইউরোীয় উনিয়নে থাকা না থাকা নিয়ে জুনে আয়োজিত গণভোটে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটে দেওয়ারও আহবান জানান তিনি।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close