গ্যালারী থেকে

হায়দরাবাদের জয়ে মুস্তাফিজের নাচ: সাকিব যা পারেননি মুস্তাফিজ তাই পারলেন

গ্যালারী থেকে ডেস্ক: দম বন্ধ করা এক মুহূর্ত চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম, হায়দরাবাদ আর বাংলাদেশে। সে অবস্থার অবসান ঘটলো কিছুক্ষণ পরেই। শেষ দুটি বল মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ব্যাটসম্যান ইকবাল আবদুল্লাহ। তখন দু’বলে দরকার ১৩ রান। ইকবাল আবদুল্লাহ জেনে গেছেন পরাজয়। ক্যামেরা ক্লোজ করে ধরা হলো তার মুখের ওপর। হেলমেটের নিচে তিনি অঝোরে কাঁদছেন। সেই অবস্থায় মোকাবিলা করলেন বল। কোন ওয়াইড বা নো বল নয়। ফলে ব্যর্থ হলেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে আনন্দে নেচে উঠলেন বাংলাদেশের কোটি মানুষ।

কারণ, বাংলাদেশের গর্ব ওই মুস্তাফিজুর রহমান। তার টিম এবারের আইপিএল চ্যাম্পিয়ন। আর এর মধ্যমণি হয়ে উঠলেন এই হঠাৎ আবিষ্কার মুস্তাফিজ। তাকে ঘিরেই যেন আনন্দের বন্যা বয়ে গেল সান রাইজারাস হায়দরাবাদের টিমে। বোলারদের দাপটে যখন বিরাট কোহলির রয়েল চ্যালেঞ্জারস ব্যাঙ্গালুরু কুপোকাত তখনই ঝড়ের গতিতে মাঠে নেমে পড়েন ফিজ বাহিনী। তাদের বিজয় উদযাপনের মধ্যমণি হয়ে উঠলেন বাংলাদেশের মুস্তাফিজ।

ওপরের ছবিটি দেখুন। বাকি খেলোয়াড়রা, টিমের সবাই যখন বৃত্ত তৈরি করে নাচছিলেন তখন তাদের সেই বৃত্তের কেন্দ্র ছিলেন মুস্তাফিজ। মুস্তাফিজের হাতে তখন সবুজ রঙের উইকেট। বৃক্তের মাঝে তিনি নাচছেন। তাকে ঘিরে নাচছেন অন্যরা। এ এক অভাবনীয় দৃশ্য। আনন্দে বাংলাদেশের ভক্তদের চোখে অশ্রু এনে দিলেন মুস্তাফিজ। সেই সঙ্গে যখন সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেলেন তিনি তা যেন সোনায় সোহাগা হয়ে উঠল। তার প্রশংসা ঝরে পড়ল বৃষ্টির মতো। ক্রিকেটের কিংবদন্তি সুনীল গাভাস্কার, ভারতের সাবেক ক্রিকেটার নভোজোত সিধু, পাকিস্তানের রমিজ রাজারা তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

সুনীল গাভাস্কার বললেন, মুস্তাফিজুর রহমান যেভাবে বল করেছেন, তার অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার যেভাবে ব্যাট করেছেন তাতে তাদের টিম এবারের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দাবিদার। এটা তাদের প্রাপ্য ছিল। এনটিভির বিশেষজ্ঞ আকাশ চোপড়ার মতের সঙ্গে একমত পোষণ করলেন সুনীল গাভাস্কার। তারা বললেন, এবারের টুর্নামেন্ট জিতিয়েছেন বোলাররা। ডেভিড ওয়ার্নার যেভাবে তার বোলারদের পিছনে থেকে সমর্থন, সাহস যুগিয়েছেন তা অবিশ্বাস্য। চূড়ান্ত পর্বে তিনি নিয়ে এসেছেন মুস্তাফিজুর রহমানকে। এতেই প্রমাণ হয় ওয়ার্নার তার বোলারদের ওপর কতটা আস্থা রাখেন।

বাংলাদেশের প্রথম বৈশ্বিক ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) ছাড়াও অস্ট্রেলিয়ান বিগ-ব্যাশ ও ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লীগে নিয়মিত মুখ তিনি।

অন্যদিকে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে সেরা আবিষ্কার বলা হচ্ছে বাঁ-হাতি পেসার মুস্তাফিজের রহমানকে। সাকিব আল হাসান ইতিমধ্যে ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগের পাঁচটি আসর খেলেছেন। কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন দুইবার- ২০১২ ও ২০১৪ সালে। আইপিএলের ক্যারিয়ারে ৪২ ম্যাচে ২১.৬০ গড়ে মোট করেছেন ৪৯৭ রান। ২৪.৮৮ গড়ে নিয়েছেন ৪৩ উইকেট। তার অনেক অর্জন আছে।

কিন্তু মুস্তাফিজের মতো কিছু অর্জন তিনি করতে পারেননি। বাংলাদেশের এ পেসার প্রথম আসরেই সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেয়েছেন। নিজের প্রথম আসরেই জিতেছেন শিরোপা। সাকিব প্রথম আইপিএলে খেলেন ২০১১ সালে। পুরো আসরে খেলার সুযোগ পান ৭ ম্যাচ। কিন্তু মুস্তাফিজরে মতো তিনি প্রথম আসরে শিরোপা জিততে পারেননি।

অবশ্য পরের আসলে এই শিরোপার গৌরব অর্জন করেন সাকিব। কিন্তু টুর্নামেন্টের সেরা জাতীয় কোনো পুরস্কার এখনও তার হাতে ওঠেনি। কিন্তু মুস্তাফিজ টুর্নামেন্টের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতলেন। ১৬ ম্যাচে ১৭ উইকেট নিয়ে আইপিএলের নবম আসরে পুরোটা সময় থাকলেন আলাদা আলোচনায়।

Tags

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করেছে সাইন সফট লিমিটেড
Close